প্রিন্ট করুন প্রিন্ট করুন

মোবাইল ব্যাংকিং: গ্রাহকের একটির বেশি হিসাব থাকতে পারবে না

নিজস্ব প্রতিবেদক: মোবাইল ব্যাংকিং সেবাদানকারী একটি প্রতিষ্ঠানে কোনো গ্রাহকের একাধিক হিসাব থাকতে পারবে না। কোনো গ্রাহকের একাধিক হিসাব থাকলে তা দ্রুত বন্ধ করার নির্দেশ দিয়েছে বাংলাদেশ ব্যাংক। পাশাপাশি এজেন্ট নির্দেশনা অনুযায়ী কাজ করছে কি না, তা নিয়মিত তদারকি করারও নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে মোবাইল ব্যাংকিং সেবাদাতা প্রতিষ্ঠানগুলোকে।

গতকাল বুধবার বাংলাদেশ ব্যাংকের পেমেন্ট সিস্টেমস বিভাগ থেকে জারি করা এক সার্কুলারে মোবাইল ব্যাংকিং সেবাদাতা প্রতিষ্ঠানগুলোকে এ নির্দেশনা প্রদান করা হয়েছে।

সার্কুলারে বলা হয়েছে, মোবাইল ব্যাংকিং একটি দ্রুত বিকাশমান সেবা, যা খুব কম সময়ে মানুষের মধ্যে জনপ্রিয়তা পেয়েছে। কিন্তু কিছু অসাধু ব্যক্তি এ সেবাটির অপব্যবহার করছে, যা দেশের জন্য খুবই ক্ষতিকর। সম্প্রতি মোবাইল ব্যাংকিং ব্যবহার করে হুণ্ডির জমজমাট ব্যবসা চালিয়ে যাচ্ছে অসাধু একটি চক্র। তাই এর অপব্যবহার রোধ করতে কিছু নির্দেশনা  দেওয়া হয়েছে। নির্দেশনা অনুযায়ী সেবাদাতা একটি প্রতিষ্ঠানে কোনো গ্রাহকের একাধিক হিসাব থাকতে পারবে না। কোনো গ্রাহকের যদি একাধিক হিসাব থেকে থাকে তবে তার সঙ্গে আলোচনা করে একটি রেখে বাকিগুলো বন্ধ করে দেওয়ার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। তবে বন্ধ করার পূর্বে তার হিসাবে থাকা টাকাগুলো যথাযথভাবে পরিশোধ করতে বলা হয়েছে। একই সঙ্গে নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে এজেন্টদের জন্যও। এজেন্ট এসব নির্দেশনা ঠিকঠাকভাবে পরিপালন করছে কি না তা নিয়মিত তদারকি করতে বলা হয়েছে সেবাদাতা প্রতিষ্ঠানকে। কেউ কথা না শুনলে তার এজেন্টশিপ বাতিল করতে বলা হয়েছে।

লেনদেনের বিষয়ে কিছু নতুন নিয়মকানুন যুক্ত করেছে বাংলাদেশ ব্যাংক। নির্দেশনায় বলা হয়েছে, কোনো গ্রাহক যদি পাঁচ হাজার টাকা বা তার বেশি লেনদেন করে তবে অবশ্যই তার নিজস্ব ভোটার আইডি কার্ড দেখাতে হবে। যে কার্ডের নম্বর এজেন্টের রেজিস্ট্রারে লিখে রাখতে হবে। এছাড়া গ্রাহকের হিসাবের নগদ অর্থ জমাকরণ ও উত্তোলনের পৃথক পৃথক হিসাব সংরক্ষণ করতে বলা হয়েছে। যেখানে প্রত্যেকটি লেনদেনের বিপরীতে গ্রাহকের স্বাক্ষর বা টিপসই রাখতে হবে।

নতুন এ নির্দেশনায় লেনদেনের সীমা পুনর্নির্ধারণ করা হয়েছে। ক্যাশ-ইনের ক্ষেত্রে প্রতিদিন সর্বোচ্চ দুই বারে ১৫ হাজার টাকা এবং মাসে সর্বোচ্চ ২০ বারে ১ লাখ টাকা লেনদেন করা যাবে। ক্যাশ-আউটের ক্ষেত্রে দিনে দুই বারে ১০ হাজার টাকা, মাসে ১০ বারে ৫০ হাজার টাকা লেনদেন করা যাবে। তবে একটি মোবাইল হিসাবে ক্যাশ-ইন হওয়ার পর ২৪ ঘণ্টার মধ্যে ওই হিসাব থেকে সর্বোচ্চ পাঁচ হাজার টাকার বেশি নগদ উত্তোলন করা যাবে না। পিটুটি হিসাবের ক্ষেত্রে প্রতিদিন সর্বোচ্চ ১০ হাজার এবং মাসিকভিত্তিতে সর্বমোট ২৫ হাজার টাকার সীমা বজায় থাকবে। এসব নির্দেশনা সার্কুলার জারির দিন অর্থাৎ গতকাল বুধবার থেকেই কার্যকর হয়েছে।