টেলকো টেক

মোস্ট ওয়ান্টেড ক্যালেন্ডার

মোস্ট ওয়ান্টেড ক্যালেন্ডারইউরোপীয় ইউনিয়নের পুলিশ এজেন্সি ইউরোপল ‘মোস্ট ওয়ান্টেড’ নামে একটি ক্যালেন্ডার চালু করেছে। এ অঞ্চলের দাগি আসামিদের ধরতে এমন উদ্যোগ নিয়েছে সংস্থাটি।

সংস্থাটির ফেসবুক পেইজ ও টুইটার ফিডে প্রতিদিন একটি দেশের একটি করে ছবি প্রকাশ হবে। অর্থাৎ ইইউর ২৩টি দেশের ২৩ জন আসামির ছবি ছাপানো হবে।

ইউরোপলের মুখপাত্র গেরাল্ড হেজটেরা বলেছেন, খুন, অপহরণ, সন্ত্রাস, মাদক চোরাচালান, নারী ও শিশু নিগ্রহের অপরাধীরাই থাকবে এ তালিকায়। সাজা ভোগ না করে দীর্ঘদিন ধরে পালিয়ে বেড়ানো অপরাধীদের খুঁজে পেতে এটি সহায়তা করবে বলে আশা করছেন গেরাল্ড।

কুখ্যাত অপরাধীদের এ ক্যালেন্ডারে প্রথমে স্থান করে নিয়েছেন অস্ট্রিয়ার পলাতক আসামি ৬০ বছর বয়সী টিবর ফোকো। এক বীরাঙ্গনাকে খুনের দায়ে ১৯৮৬ সাল থেকে পালিয়ে বেড়াচ্ছেন টিবর। তার ছবির নিচে ইউরোপলের টুইট ‘২১ বছর ধরে পলাতক আসামিকে খুঁজে পেতে অস্ট্রিয়ান পুলিশকে সাহায্য করুন’। উল্লেখ্য, যাবজ্জীবন কারাদণ্ডপ্রাপ্ত এ আসামি দীর্ঘদিন জেল খাটছিলেন। ১৯৯৫ সালে জেল থেকে পালিয়ে যান। এ কারণে তিনি ইউরোপের মোস্ট ওয়ান্টেড তালিকায় রয়েছেন। তাকে ধরতে দুই হাজার ৯০০ ইউরোর (দুই হাজার ৪৫৭ পাউন্ড) ঘোষণা দিয়েছে ইউরোপল। শুধু তাকেই নয়, ইউরোপের সব ধরনের অপরাধীর তথ্য দিতেও অনুরোধ করেছে ইউরোপল।

গত মাসের ২ ডিসেম্বর ইউক্রেনের নাগরিক সার্গে ফিলিপভ গিওর্গিভকে ধরিয়ে দেওয়ার আহ্বান জানানো হয়। ২০১১ সালে বুলগেরিয়ার এক অধিবাসীকে গলা কেটে হত্যা করে ৫৫ বছরের সার্গে ফিলিপভ।

ইতোমধ্যে সফলতাও পেয়েছে ইউরোপের আইন প্রয়োগকারী সংস্থাগুলো। ওয়েবসাইটটি এ বছরে শুরু যাত্রা শুরু করেছে। এর মধ্যে ২৪ দাগি আসামিকে পাকড়াও করতে সক্ষম হয়েছে তারা। ক্যালেন্ডারের মাধ্যমে ফেসবুক ও টুইটারের বদৌলতে এটা সম্ভব হয়েছে বলে মনে করেন সংশ্লিষ্টরা। এমনকি অপরাধীদের খুঁজে পেতে সাধারণ মানুষ মতামতকেও বিবেচনায় নেওয়া হয়েছে। জনসাধারণকে বড়দিনের আগে আরও চমক দেখানোর আশা ব্যক্ত করেছেন ইউরোপলের মুখপাত্র। সংস্থাটি অসংখ্য অপরাধীকে ধরতে সক্ষম হবে বলে মনে করছে। বড়দিনের উৎসবে ঝামেলার শঙ্কা থাকবে বলে মনে করেন অপরাধ বিশেষজ্ঞরা।

সর্বশেষ..