যত ঝুঁকি আসুক উন্নয়ন অব্যাহত রাখতে হবে: প্রধানমন্ত্রী

শেয়ার বিজ ডেস্ক: যত ঝুঁকিই আসুক, তা মোকাবিলা করে দেশের উন্নয়ন অব্যাহত রাখার প্রত্যয় জানিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। ঘূর্ণিঝড় প্রস্তুতি কর্মসূচির (সিপিপি) ৫০ বছর ও আন্তর্জাতিক দুর্যোগ প্রশমন দিবস উপলক্ষে এক অনুষ্ঠানে গতকাল সরকারপ্রধানের এ আহ্বান আসে।

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেন, ‘আমরা সব সময় মনে করি এই দেশটা আমাদের। যত ঝুঁকি আসুক, দেশের উন্নয়ন আমাদের অব্যাহত রাখতে হবে, দেশের মানুষের ভাগ্য পরিবর্তন করতে হবে, দারিদ্র্যের হাত থেকে মানুষকে মুক্তি দিতে হবে।’ খবর: বিডি নিউজ।

দুর্যোগের ঝুঁকি কমাতে সরকারের নেয়া বিভিন্ন পদক্ষেপের কথা তুলে ধরে তিনি বলেন, ‘আমাদের দেশের মানুষকেও কিন্তু সতর্ক থাকতে হবে। তাদের নিজেদেরও কিছু ব্যবস্থা নিতে হবে। যখনই আপনি ঘর-বাড়ি, অফিস-আদালত বা আপনার ব্যবসা প্রতিষ্ঠানÑযা-ই করেন না কেন, সেটা করার সময় আপনাকে আগে মাথায় রাখতে হবে আগুন লাগতে পারে, ঝড় আসতে পারে, বন্যা আসতে পারে, বা যে কোনো ক্ষেত্রে আপনাকে ঝুঁকি থেকে মুক্ত থাকার কী কী ব্যবস্থা নিতে হবে, সেই বিল্ডিং কোড মেনেই সব তৈরি করতে হবে। সেদিকেও সব রকম ব্যবস্থা নিতে হবে।’

সরকারের তরফ থেকে যা যা করা দরকার, তা করা হচ্ছে বলে জানিয়ে প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘আমরা চাই আমাদের দেশটা এগিয়ে যাক। কাজেই আজকে এটুকু বলব, যতটুকু উদ্যোগ আমরা নিয়েছি, যা জাতির পিতাই আমাদের শিখিয়েছিলেন, সেই পদাঙ্ক অনুসরণ করে। তার ফলে বাংলাদেশ আজকে ঝুঁকি মোকাবিলায় একটা আদর্শ দেশ হিসেবে কিন্তু প্রতিষ্ঠা লাভ করেছে। আমাদের এই সম্মানটা যেন বজায় থাকে ভবিষ্যতে, সে বিষয়ে সবাইকে সচেতন থাকতে হবে।’

ওসমানী স্মৃতি মিলনায়তনে আয়োজিত এ অনুষ্ঠানে ভিডিও কনফারেন্সে যুক্ত হয়ে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা দুর্যোগ মোকাবিলায় সাবেক বিএনপি সরকারের ভূমিকারও সমালোচনা করেন।

১৯৯১ সালে ঘূর্ণিঝড়ের পর তখনকার প্রধানমন্ত্রী বিএনপি নেত্রী খালেদা জিয়ার এক বক্তব্যের কথা স্মরণ করিয়ে দিয়ে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেন, ‘তত মানুষ মরেনি, যত মানুষ মরার কথা ছিল’ একথা যেন আর জীবনে কখনও শুনতে না হয়। সেজন্য সবাইকেই সচেতন থাকতে হবে, মানুষকে সচেতন করতে হবে।

দেশবাসীকে আশ্বস্ত করে আওয়ামী লীগ সভাপতি শেখ হাসিনা অনুষ্ঠানে বলেন, ‘আওয়ামী লীগ সব সময় জনগণের পাশে আছে। যেকোনো দুর্যোগে আর কেউ না যাক, আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীরা সব সময় পাশে থাকে। এবার করোনাভাইরাসের সময়ও আপনারা দেখেছেন যে, আমাদের সেই ছাত্রলীগ, আওয়ামী লীগ, স্বেচ্ছাসেবক লীগ, যুবলীগ, কৃষক লীগসহ প্রত্যেকটা সহযোগী সংগঠনের নেতাকর্মীরা নিজের জীবনের ঝুঁকি নিয়ে মানুষের পাশে দাঁড়িয়েছে। আর কাউকে আমরা সামনে এগিয়ে আসতে দেখিনি।’

বঙ্গবন্ধুর মেয়ে শেখ হাসিনা বলেন, ‘যত দুর্যোগই আসুক জাতির পিতা তার ঐতিহাসিক ভাষণে বলে গিয়েছিলেন, কেউ দাবায়ে রাখতে পারবা না। বাঙালিকে কেউ দাবায়ে রাখতে পারবে না, বাংলাদেশকে কেউ দাবায়ে রাখতে পারবে না। এটাই হচ্ছে আমাদের কথা। কাজেই সবকিছু মোকাবিলা করেও উন্নয়নের অগ্রযাত্রায় আমরা অপ্রতিরোধ্য গতিতে এগিয়ে যাব। এই লক্ষ্যটা সামনে নিয়েই আমরা কাজ করে যাচ্ছি।’

ওসমানী স্মৃতি মিলনায়তনে এ অনুষ্ঠানে দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণ মন্ত্রণালয়ের প্রতিমন্ত্রী মো. এনামুর রহমান, দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণ মন্ত্রণালয়-সম্পর্কিত সংসদীয় স্থায়ী কমিটির সভাপতি বিএম তাজুল ইসলাম, মন্ত্রণালয়ের সচিব মো. মোহসীনসহ ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।

সর্বশেষ..