প্রিন্ট করুন প্রিন্ট করুন

যমুনার বন্যা নিয়ন্ত্রণ বাঁধের পাশে ভাঙন

শেয়ার বিজ ডেস্ক: সিরাজগঞ্জ সদর ও কাজিপুরে যমুনার পশ্চিম পাড়ে পানি উন্নয়ন বোর্ডের (পাউবো) বন্যা নিয়ন্ত্রণ বাঁধের পাশে নতুন করে ভাঙন দেখা দিয়েছে। সদর উপজেলার শিমলা ও চর-বাহুকা এবং কাজিপুরের শুভগাছার টুটুলের মোড়ে গত কদিনের অব্যাহত ভাঙনে শতাধিক ঘরবাড়ি যমুনায় বিলীন হয়েছে। তবে বরাদ্দ নেই এমন অযুহাতে এসব এলাকায় বিকল্প বাঁধ নির্মাণ, ভাঙন ঠেকানো এবং স্থায়ী প্রতিরক্ষা ব্যবস্থার পদক্ষেপ বা প্রকল্প গ্রহণে উদাসীন পাউবো। খবর বাংলা ট্রিবিউন।

স্থানীয়রা জানায়, শিমলা ও চর-বাহুকা এবং টুটুলের মোড়ের বাঁধের পাশে গত বছর বিশাল চর জেগে ওঠায় যমুনা নদীর সে াত সরাসরি তীরে আঘাত করছে। এ অঞ্চলে পাউবোর তীররক্ষা বাঁধ না থাকায় ভাঙনের তীব্রতা বেড়েছে। অব্যাহত ভাঙনে নতুন করে বিলীনের অপেক্ষায় রয়েছে আরও শতাধিক ঘরবাড়ি। ভাঙন অব্যাহত থাকলে আগামী বর্ষা মৌসুমের আগেই শুভগাছায় বন্যা নিয়ন্ত্রণ বাঁধ ভেঙে যাওয়ার আশঙ্কা রয়েছে। তাই বর্ষার আগেই সদরের শিমলা ও চর-বাহুকা ও কাজিপুরের শুভগাছা ও ক্ষুদবান্দির প্রায় ৮ কিলোমিটার অরক্ষিত অংশে তীররক্ষা বাঁধ এবং টুটুলের মোড়ে বিকল্প বাঁধ নির্মাণসহ স্থায়ী প্রতিরক্ষা ব্যবস্থা গ্রহণের দাবি জানিয়েছেন। শুভগাছা গ্রামের স্থানীয় বাসিন্দা আকদুল কাদের জানান, দুদিন পর পরই থেমে থেমে ভাঙছে। কমপক্ষে ৭০ থেকে ৮০টি পরিবার গত দুই মাসে অন্যত্র চলে গেছে। একই এলাকার আবু হাশেম জানান, ভাঙতে ভাঙতে চর-বাহুকা সরকারি প্রাইমারি স্কুলের পাশে নদী অবস্থান করছে। নদী পানি উন্নয়ন বোর্ডের বাঁধের মাত্র ২০ মিটার দূরে অবস্থান করলেও তাদের এ নিয়ে মাথা ব্যথা নেই। ভাঙন স্থানের পাশে পাউবোর লোকজন গুটিকয়েক জিওব্যাগ বালির বস্তা সাজিয়ে রেখেছে। পাউবোর লোকজন দফায় দফায় এ এলাকায় ভাঙন স্থান পরিদর্শন করলেও তারা কোনো স্থায়ী পদক্ষেপ নিচ্ছেন না। গত বছর পাউবোর লোকজন ড্রেজিং মেশিন এখানে এনে দীর্ঘদিন রাখলেও তা কোনো কাজে আসেনি। পাউবোর স্থানীয় সেকশনাল অফিসার (সদর) রনজিৎ কুমার সরকার জানান, টুটুল মোড়ের বাঁধের পাশে যমুনায় বিশাল চর জেগে উঠেছে। তাই যমুনার সে াত সরাসরি তীরে আঘাত করায় ভাঙনের তীব্রতা বেড়েছে। পাউবোর উপ-বিভাগীয় প্রকৌশলী এ কেএম ফজলুল হক জানান, যমুনার অব্যাহত ভাঙনে বাঁধ থেকে নদী এখন ২০ মিটার দূরে অবস্থান করছে। পাউবো, পানিসম্পদ মন্ত্রণালয় ও পরিকল্পনা দফতরসহ ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষ এ ব্যাপারে অবগত আছে।

পাউবোর নির্বাহী প্রকৌশলী সৈয়দ হাসান ইমাম জানান, সিরাজগঞ্জ জেলার কাজিপুর উপজেলার ক্ষুদবান্ধি, শুভগাছার টুটুলের মোড় থেকে সদর উপজেলার শিমলা পর্যন্ত প্রায় ৮ কিলোমিটার দৈর্ঘ্যরে নদী তীর সংরক্ষণ কাজের জন্য ৫৮৮ কোটি টাকার একটি ডিপিপি পাউবো বরাবর পাঠিয়ে দেওয়া হয়েছে। খুব শিগগিরই এটি পরিকল্পনা কমিশনে যাবে। প্রকল্পটি পাস হওয়ার পর বরাদ্দপ্রাপ্তি সাপেক্ষে কাজ বাস্তবায়িত হলে কাজিপুর-সদর উপজেলার ওই অংশে ভাঙন স্থায়ীভাবে রক্ষা পাবে। আমাদের সদিচ্ছার কোনো অভাব নেই। কিন্তু বরাদ্দ না পেলে কিছুই করার থাকে না। পাউবো থেকে প্রতি বছর যা বরাদ্দ দেওয়া হয়, তা দিয়ে ভাঙন রোধ সম্ভব হয় না। তিনি আরও জানান, ঠিকাদারদের এখনও ৪০ থেকে ৪২ কোটি টাকার বকেয়া পাওনা পড়ে আছে। টুটুলের মোড়ে ভাটি ও উজানে পাঁচ কোটি টাকা ব্যয়ে দুই কিলোমিটার দৈর্ঘ্যরে বিকল্প বাঁধ নির্মাণ করা না হলে আগামী বর্ষায় বাঁধ ভেঙে সদর ও কাজিপুরসহ সিরাজগঞ্জ শহর বন্যায় প্লাবিত হওয়ার আশঙ্কা রয়েছে। পাউবোর রাজশাহী অঞ্চলের প্রধান প্রকৌশলী মহম্মদ আলী জানান, বাজেট বরাদ্দ নিয়ে সংকটের মধ্যে আছি। আমি নিজেও ওই এলাকা পরিদর্শনের পর বোর্ডের কাছে চিঠি লিখেছি। কিন্তু এখনও বরাদ্দ পাইনি। স্বাস্থ্যমন্ত্রী মোহাম্মদ নাসিম বলেন, ‘আমি নিজেও ওই এলাকায় গিয়ে ভাঙন পরিস্থিতি পরিদর্শন করেছি।