সারা বাংলা

যশোরে বৃদ্ধি পেয়েছে শিশুরোগের প্রকোপ

প্রতিনিধি, যশোর: যশোরে ব্যাপকহারে বেড়েছে শিশুরোগের প্রকোপ। অধিকাংশ বাসাবাড়িতে শিশুরা আক্রান্ত হচ্ছে জ্বর, সর্দি-কাশি, নিউমোনিয়াসহ বিভিন্ন রোগে।

যশোর ২৫০ শয্যা হাসপাতালের এক পরিসংখ্যানে জানা গেছে, গত জানুয়াির থেকে আগস্ট পর্যন্ত চার হাজার ৪৮৪ শিশু এসব রোগে আক্রান্ত হয়ে হাসপাতালে ভর্তি হয়েছে। ভর্তি হওয়া শিশুদের মধ্যে ১৪৩ শিশু চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা গেছে। এছাড়া বহিঃবিভাগ থেকে আট মাসে ২৬ হাজার ১৭২ শিশু চিকিৎসা নিয়েছে। জরুরি বিভাগ থেকে চিকিৎসা নিয়েছে এক হাজার ১৭৪ শিশু। সেপ্টেম্বরের মাঝামাঝি পর্যন্ত চিকিৎসা নিয়েছে দুই হাজার শিশু। হাসপাতালের শিশু ওয়ার্ডে প্রতিদিন ১০ থেকে ১৫ শিশু ভর্তি হচ্ছে জ্বর, সর্দি-কাশি ও নিউমোনিয়ায় আক্রান্ত হয়ে।

জানা গেছে, রোগের লক্ষণ দেখে ও প্যাথলজি পরীক্ষা করে চিকিৎসকরা চিকিৎসা দিচ্ছেন। শিশুদের মাঝে করোনাভাইরাস নেই বললেই চলে। তবে দিনে ভ্যাপসা গরম আর শেষ রাতে ঠাণ্ডা অনুভূত হওয়ায় বেশিরভাগ শিশু আক্রান্ত হচ্ছে। গ্রাম-শহর সর্বত্র একই অবস্থা। চার-পাঁচ শিশুর শরীরে করোনাভাইরাস শনাক্ত হয়েছে, তাও বাবা-মায়ের সংস্পর্শে থেকে। জ্বর ও ঠাণ্ডা-কাশিতে শিশুরা আক্রান্ত হলেই তাদের অভিভাবকরা ভয় পাচ্ছেন, করোনায় আক্রান্ত হয়েছে কি না।

এ ব্যাপারে যশোর মেডিকেল কলেজের শিশু বিশেষজ্ঞ ডা. আহমেদ ফেরদৌস জাহাঙ্গীর সুমন ও ডা. মাহফুজুর রহমান বলেন, জ্বর হলেই শিশুর করোনা হয়েছে, এ কথা ঠিক নয়; ধারণা করাও ভুল। প্রতি বছর শিশুরা এ সময় জ্বর, ঠাণ্ডা, কাশি ও নিউমোনিয়াসহ নানা রোগে আক্রান্ত হয়। এর প্রধান কারণ আবহাওয়ার পরিবর্তন; কখনও ঠাণ্ডা, কখনও গরম।

এ অবস্থায় অভিভাবকদের পরামর্শ দিয়ে দুই চিকিৎসক বলেন, শিশুরা তাদের স্বাস্থ্যের প্রতি যতœ বোঝে না। তাদের সুস্থ থাকার জন্য অভিভাবকদের সতর্কতা বড় নিয়ামক শক্তি হিসেবে কাজ করে। তাই শিশুদের প্রতি সব সময় নজর রাখা এবং পরিষ্কার-পরিচ্ছন্ন পরিবেশ রাখার জন্য গুরুত্বারোপ করেন তারা।

প্রিন্ট করুন প্রিন্ট করুন

সর্বশেষ..