বিশ্ব সংবাদ

যুক্তরাষ্ট্রের আর্থিক প্রবৃদ্ধি ৩৮ বছরে সর্বোচ্চ

আর্থিক প্রণোদনা ও গণটিকা প্রয়োগ

শেয়ার বিজ ডেস্ক: ব্যাপকহারে কভিডের গণটিকা প্রয়োগ, কর্মহীনদের জন্য আর্থিক প্রণোদনা প্যাকেজ ও কেন্দ্রীয় ব্যাংকের সহজ মুদ্রানীতির জন্য বছরের দ্বিতীয় প্রান্তিকের প্রবৃদ্ধি সর্বোচ্চ স্তরে পৌঁছাবে বলে অর্থনীতিবিদদের ধারণা। জুন শেষে যুক্তরাষ্ট্রের জিডিপি প্রবৃদ্ধি আট দশমিক পাঁচ শতাংশে দাঁড়াবে বলে মনে করা হয়, যা গত ৩৮ বছরের মধ্যে ত্রৈমাসিক ভিত্তিতে সর্বোচ্চ প্রবৃদ্ধি। খবর: রয়টার্স, ব্লুমবার্গ।

স্থানীয় সময় বৃহস্পতিবার যুক্তরাষ্ট্রের বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ের অধীনে ব্যুরো অব ইকোনমিকস এপ্রিল-জুন প্রান্তিকের প্রতিবেদন প্রকাশ করবে। প্রতিবেদন প্রকাশের আগের দিন রয়টার্সের অর্থনীতিবিদরা এ পূর্বাভাস দিয়েছেন।

রয়টার্সের পূর্বাভাসে বলা হয়, ব্যাহকহারে টিকা প্রয়োগ এবং বাইডেন প্রশাসনের আর্থিক প্রণোদনা প্যাকেজের কারণে দেশটির ভোক্তাব্যয় চূড়ায় উঠেছে, যা অর্থনীতির চাকা সচল রাখতে সহায়তা করেছে।

ধারণা করা হচ্ছে, এ প্রান্তিকে যুক্তরাষ্ট্রের জিডিপি আট দশমিক পাঁচ শতাংশ হবে, যা ১৯৮৩ সাল থেকে সর্বোচ্চ এবং গত বছরের তৃতীয় প্রান্তিক থেকে ৩৩ দশমিক চার শতাংশ বেশি। বছরের প্রথম প্রান্তিকে (জানুয়ারি-মার্চ) প্রবৃদ্ধি ছিল ছয় দশমিক চার শতাংশ, যদিও কভিডের ডেল্টা ধরনের সংক্রমণে দেশটির অর্থনীতির অনেক সরবরাহ-শৃঙ্খল ব্যাহত হচ্ছে।

এ বিষয়ে উত্তর ক্যারোলিনার শালর্টে ওয়েলস ফার্গোর জ্যেষ্ঠ অর্থনীতিবিদ স্যাম বালর্ড বলেন, ভোক্তাদের পর্যাপ্ত আয় ও ব্যয় আমাদের ব্যবসার দূর্বল অবস্থাকে সবল করেছে, যা সার্বিক টেকসই জিডিপি প্রবৃদ্ধিতে অবদান রেখেছে।

এদিকে যুক্তরাষ্ট্রের কেন্দ্রীয় ব্যাংক ফেডারেল রিজার্ভ সিস্টেম বা ফেডের সভায় বেঞ্চমার্ক সুদহার (প্রায় শূন্য শতাংশ) অপরিবর্তিত রাখা

হয়েছে। গত মঙ্গলবার ও বুধবার দুই দিনব্যাপী ফেডের ত্রৈমাসিক মুদ্রানীতির সভায়

আগের সিদ্ধান্ত অপরিবর্তিত রেখেছেন বলে জানিয়েছেন ফেড চেয়ার জ্যানেট পাওয়ায়েল, যা অর্থনীতির প্রবৃদ্ধি বৃদ্ধিতে ভূমিকা রাখবে বলে মনে করা হয়।

অর্থনীতিবিদরা ধারণা করেছিলেন, চলতি বছর যুক্তরাষ্ট্রের প্রবৃদ্ধি সাত শতাংশ হবে, যা দেশটির ১৯৮৪ সাল থেকে এ পর্যন্ত শক্তিশালী অর্থনৈতিক কর্মদক্ষতা। কিন্তু এ প্রান্তিকে সেই ধারণার চেয়েও দেড় শতাংশ প্রবৃদ্ধি বেশি হচ্ছে।

এদিকে আন্তর্জাতিক মুদ্রা তহবিল (আইএমএফ) মঙ্গলবার পূর্বাভাস দিয়েছে, ২০২১ সালে সাত শতাংশ এবং ২০২২ সালে চার দশমিক ৯ শতাংশ প্রবৃদ্ধি হবে, যা আগের এপ্রিলের পূর্বাভাস থেকে যথাক্রমে শূন্য দশমিক ছয় এবং এক দশমিক চার শতাংশ বেশি।

অন্যদিকে বাইডেন প্রশাসন গত মার্চে এক দশমিক ৯ ট্রিলিয়ন ডলারের প্রণোদনা প্যাকেজ ঘোষণা করে, যে তহবিল থেকে আগামী সেপ্টেম্বর পর্যন্ত কর্মহীনদের এক হাজার ৪০০ ডলার ভাতা দেয়া হচ্ছে। ফলে সরকার এ পর্যন্ত ছয় ট্রিলিয়ন ডলার প্যাকেজ ঘোষণা করেছে, যা প্রবৃদ্ধি বৃদ্ধিতে অবদান রাখছে।

অন্যদিকে লকডাউন শিথিল করায় দেশটিতে কর্মযজ্ঞ বাড়ছে। গত সপ্তাহেই দেশটিতে তিন লাখ ৮০ হাজার নতুন কর্মস্থান সৃষ্টি হয়েছে।

এদিকে দেশটির প্রায় অর্ধেক মানুষ কভিড টিকা গ্রহণ করেছেন, যদিও এরই মধ্যে দেশটির পর্যটন, রেস্টুরেন্ট, স্পোর্ট ইভেন্ট ও অন্যান্য বিনোদন কেন্দ্র উš§ুক্ত করে দেয়া হয়েছে।

তবে কভিডের ডেল্টা ধরন নিয়ে স্থাস্থ্য বিশেষজ্ঞরা সতর্ক করে দিয়েছেন, কিন্তু বাইডেন প্রশাসন তাতে কোনো কর্ণপাতই করছে না। চলতি সপ্তাহের শুরুর দিকে বাইডেনের স্থাস্থ্য উপদেষ্টা ড. ফাউসি সতর্ক করে বলেছেন, কভিডের বিষয়য়ে যুক্তরাষ্ট্র ভুল পথে আছে।

প্রিন্ট করুন প্রিন্ট করুন

সর্বশেষ..