বিশ্ব বাণিজ্য

যুক্তরাষ্ট্র থেকে আমদানি বাড়াচ্ছে চীন

শেয়ার বিজ ডেস্ক: যুক্তরাষ্ট্র থেকে আমদানির পরিমাণ বাড়াতে যাচ্ছে চীন। এরই মধ্যে আগামী দুবছরে যুক্তরাষ্ট্র থেকে বাড়তি ২০০ বিলিয়ন ডলারের পণ্য ও সেবা কেনার প্রতিশ্রুতি দিয়েছে বেইজিং। এর বিপরীতে চীনের ওপর আরোপিত কিছু শুল্ক স্থগিত রাখবে ওয়াশিংটন। তবে যুক্তরাষ্ট্র থেকে চীনের বাড়তি আমদানি লক্ষ্যমাত্রাকে অবাস্তব হিসেবে অভিহিত করেছেন অনেক মার্কিন বাণিজ্য বিশেষজ্ঞ। খবর: রয়টার্স।

দুদেশের মধ্যকার বাণিজ্যযুদ্ধ অবসানে গতকাল (১৫ জানুয়ারি) প্রথম দফার বাণিজ্যচুক্তি স্বাক্ষরিত হওয়ার কথা। এর ভিত্তিতেই দুদেশের মধ্যে এমন সমঝোতা হয়েছে।  টুইটারে দেওয়া পোস্টে ট্রাম্প জানিয়েছেন, প্রথম দফায় হোয়াইট হাউসে এ অনুষ্ঠান হবে। চীনের উচ্চপর্যায়ের প্রতিনিধিরা এতে উপস্থিত থাকবেন। পরবর্তী তারিখে আমি বেইজিং যাব। সেখানে দ্বিতীয় ধাপের আলোচনা শুরু হবে।

এরই মধ্যে যুক্তরাষ্ট্র থেকে আরও বেশি কৃষিজাত পণ্য আমদানিতে সম্মত হয়েছে বেইজিং। ২০১৯ সালের ৩০ ডিসেম্বর যুক্তরাষ্ট্র থেকে জেনেটিক্যালি মোডিফায়েড (জিএম) পদ্ধতির দুই শস্য আমদানির অনুমতি দেয় চীন। শস্য দুটি হচ্ছে সয়াবিন ও পেঁপে। একই সঙ্গে পুরোনো ১০টি জিএম শস্যের অনুমোদন নবায়ন করা হয়। এর ফলে যুক্তরাষ্ট্রের কাছ থেকে চীনের কৃষিজাত আমদানির পরিমাণ আরও বাড়বে।

২০১৯ সালের ডিসেম্বরের গোড়ার দিকে দুদেশের মধ্যে প্রথম ধাপের বাণিজ্যচুক্তি স্বাক্ষরে সম্মত হয় যুক্তরাষ্ট্র ও চীন। ওই সময় যুক্তরাষ্ট্রের পক্ষ থেকে এর আগে চীনকে আরও স্বচ্ছ, সময়োপযোগী ও বৈজ্ঞানিক পদ্ধতির ওপর ভিত্তি করে তার জিএম ফসল আমদানির আবেদন প্রক্রিয়া পরিবর্তনের আহ্বান জানানো হয়েছিল। মূলত এরপরই নতুন করে মার্কিন দুই জিএম শস্য আমদানির সুযোগ দেওয়ার সিদ্ধান্ত নেয় বেইজিং। ক্রমেই এর পরিসর আরও বাড়বে বলে প্রতীয়মান হচ্ছে।

দুদেশ যে চুক্তিতে সম্মত হয়েছে, তাতে চীনের তরফ থেকে যুক্তরাষ্ট্র থেকে আমদানির পরিমাণ বাড়ানোর কথা বলা হয়েছে। এটি ঠিক কী পরিমাণ বাড়বে তারও একটি রূপরেখা তৈরি করা হয়েছে। ফলে স্বভাবতই প্রশ্ন উঠছে চীন কেন যুক্তরাষ্ট্রের সঙ্গে বাণিজ্য চুক্তিতে উপনীত হতে ক্রমাগত চাপের মুখে পড়ছে? এর প্রধান কারণ বেইজিংয়ের ধীরগতির অর্থনীতি। বাণিজ্যযুদ্ধ চীনের অর্থনীতিকে হয়তো মন্দার দিকে নিয়ে যাবে না। কিন্তু এটা অবশ্যই পরিস্থিতিকে আরও খারাপের দিকে নিয়ে যাবে।

প্রিন্ট করুন প্রিন্ট করুন

সর্বশেষ..