সম্পাদকীয়

রফতানিতে হোঁচট রোধে কৌশল গ্রহণ করুন

নতুন অর্থবছরের শুরুর মাসেই রফতানিতে ছিল স্বস্তি পরের মাসেই হোঁচট। এমন পরিস্থিতিতে ঈদুল আজহার ছুটিকে অজুহাত বিবেচনা করলেও প্রকৃত বিচারে নানা কৌশলগত কারণ রয়েছে। কৌশলগত দুর্বলতা কিংবা অজুহাত যা-ই হোক না কেন সামনের মাস থেকে এ ধাক্কা কাটিয়ে ওঠার প্রতিশ্রুতি কীভাবে সফল হয় সেটাই দেখার বিষয়। এক্ষেত্রে সরকারকে অবশ্যই কিছু কর্মকৌশলে পরিবর্তন আনতে হবে। প্রতিযোগী রাষ্ট্রের সঙ্গে তাল মিলিয়ে অগ্রণী হতে হলে পণ্য রফতানির বাধাগুলো দূর করতে হবে।
গত অর্থবছরে বাংলাদেশ রেকর্ড পরিমাণ রফতানিতে আয় করেছে। চলতি অর্থবছরের প্রথম মাসে লক্ষ্যমাত্রার চেয়ে বেশি রফতানি ও রফতানি আয় ছিল আশাপ্রদ। কিন্তু পরের আগস্ট মাসে রফতানি লক্ষ্যমাত্রার চেয়ে ১১ শতাংশ কমে গিয়েছে। গত বছরের তুলনায় এই সময়টাতেও রফতানি কমেছে শূন্য দশমিক ৯২ শতাংশ। চামড়া ও চামড়াজাত পণ্য, বিশেষায়িত বস্ত্রশিল্প, ওষুধ, তামাক এবং হস্তশিল্প রফতানিতে প্রবৃদ্ধি বাড়লেও পাট ও পাটজাত পণ্য, চা এবং হিমায়িত মাছের রফতানিতে এসেছে ঘাটতি। মূলত তৈরি পোশাক রফতানিতে প্রবৃদ্ধি কমে যাওয়ায় আগস্টে সার্বিক রফতানি চিত্রে ভাটা পড়েছে। এর কারণ হিসেবে দেখা গেছে, রফতানির উপখাতগুলোর মধ্যে কেবল তৈরি পোশাক খাতের পরিধি ৯০ শতাংশ। ঈদের ছুটিতে পোশাক কারখানা বন্ধ থাকায় উৎপাদন ও রফতানি কার্যক্রম বন্ধ থাকায় এই পরিস্থিতি সৃষ্টি হয়েছে। যদি তাই হয় তবে সংকটটিকে সাময়িক বলতে হবে। কিন্তু ঈদের ছুটিতে রফতানির অর্ডার কমে আসার বিষয়টি এড়িয়ে চলা যেত।
ভারত, পাকিস্তান, ভিয়েতনাম ও চীনসহ বিভিন্ন দেশের সঙ্গে আমাদের নানা সমস্যা ও সুযোগ-সুবিধার অভাবে তৈরি পোশাকের মূল্যও বাংলাদেশকে কম রাখতে হচ্ছে। ফলে রফতানি আয় কমে যাচ্ছে। ভারত, পাকিস্তান ও চীনসহ বিভিন্ন দেশের সঙ্গে প্রতিযোগিতায় টিকে থাকতে হলে তাদের মতোই মুদ্রার অবমূল্যায়ন করার প্রস্তাব রাখছেন খাতসংশ্লিষ্টরা। বিষয়টিকে কীভাবে বাস্তবায়ন করা যায় তা নিয়ে সরকারের নীতি নির্ধারকদের ভাবতে হবে। অবকাঠামোগত সমস্যার কথা উঠে এসেছে। সংকটটি নতুন নয়। তাই হঠাৎ হোঁচট খাওয়ার বিষয়টির সঙ্গে এর সম্পর্ক না থাকলেও ভবিষ্যৎ সক্ষমতা বাড়ানোর জন্য অবকাঠামো উন্নয়ন জরুরি। বহুদিন ধরেই দেশের সরকারি-বেসরকারি ব্যাংকঋণে নানা সংকট লক্ষ্য করা যাচ্ছে। ব্যাংকের ঋণ বিতরণে যেমন অধঃগতি দেখা যায়, তেমনি উচ্চ সুদের হারের কারণে ব্যবসায়ীরা সংকটে পড়ছেন। এই সংকট মিটমাট করতে না পারলে প্রতিযোগী দেশের সঙ্গে তাল মেলানো কঠিন হবে।
আগামীতে এসব সংকট থেকে মুক্ত থাকতে সরকারের অবকাঠামো ও কৌশলগত দুর্বলতা মিটিয়ে ফেলার আশু উদ্যোগ প্রত্যাশিত।

সর্বশেষ..