প্রচ্ছদ প্রথম পাতা

রাইড শেয়ারিংয়ের চূড়ান্ত অনুমোদন পেল ৯ প্রতিষ্ঠান

নিজস্ব প্রতিবেদক: বাংলাদেশে রাইড শেয়ারিং কার্যক্রম পরিচালনার চূড়ান্ত অনুমোদন পেয়েছে ৯টি প্রতিষ্ঠান। বাংলাদেশ সড়ক পরিবহন কর্তৃপক্ষ (বিআরটিএ) জানিয়েছে, বিআরটিএর ওয়েবপোর্টালের মাধ্যমে আবেদনের পর প্রয়োজনীয় শর্ত পূরণ করায় পাঠাও, উবারসহ এসব প্রতিষ্ঠান চূড়ান্ত অনুমোদন পেল।

বিআরটিএর পরিচালক (প্রকৌশল) মো. লোকমান হোসেন মোল্লা বলেন, কোম্পানি হিসেবে তালিকাভুক্ত হতে কমপক্ষে ১০০টি মোটরযান তালিকাভুক্ত করতে হয়। এসব প্রতিষ্ঠান সেটা করেছে।

চূড়ান্ত অনুমোদন পেয়েছে পিকমি, কম্পিউটার নেটওয়ার্ক সিস্টেম, ওভাই সলিউশনস, চাল, ডাল, পাঠাও, আকাশ টেকনোলজি, সেজেস্টো, সহজ ও উবার। এছাড়া বাড়ি লিমিটেড, আকিজ অনলাইন লিমিটেড ও ইজিয়ার টেকনোলজিস লিমিটেডের মোটরযান তালিকাভুক্তির আবেদন প্রক্রিয়াধীন। প্রবাহন লিমিটেড নামে আরেকটি প্রতিষ্ঠান বিআরটিএর সার্ভিস পোর্টালের মাধ্যমে আবেদন করে। তবে এটি প্রাথমিক অনুমোদন পায়নি।

লোকমান হোসেন মোল্লা বলেন, ‘আমরা তাদের আগেই অনুমোদন দিয়েছি। কিন্তু তারা সেটা প্রিন্ট করতে পারেনি। কারণ আমাদের ওয়েবপোর্টালের সিস্টেম ছিল ১০০ গাড়ি এনলিস্টেড করতে পারলে তারা অনুমোদনের কপি অনলাইন থেকে প্রিন্ট করতে পারবে। নীতিমালায় বলা আছে, কোনো কোম্পানি তালিকাভুক্তির সনদ পেতে হলে ১০০ গাড়ি নিবন্ধন করাতে হবে। আমরা কোনো সার্টিফিকেট হাতে হাতে দিই না, সব অটোমেটেড।’

উল্লেখ্য, গত ১ জুলাই থেকে রাইড শেয়ারিং সেবাদাতা প্রতিষ্ঠান ও মোটরযানের তালিকাভুক্তির সনদ দেওয়ার কাজ শুরু করে বিআরটিএ। তবে নির্ধারিত শর্ত পূরণ না হওয়ায় অনুমোদন প্রক্রিয়া আটকে ছিল।

গণপরিবহনের সংকটের ঢাকা শহরে ২০১৬ সালে রাইড শেয়ারিং সেবা চালু হওয়ার পর দ্রুতই জনপ্রিয় হয়ে ওঠে। ভাড়াসহ বিভিন্ন বিষয়ে এ সেবাদাতা প্রতিষ্ঠানগুলোকে নিয়মের মধ্যে আনতে ২০১৮ সালের ১৫ জানুয়ারি ‘রাইডশেয়ারিং সার্ভিস নীতিমালা ২০১৭’ অনুমোদন করে সরকার। ওই বছরের ৮ মার্চ থেকে এ নীতিমালা কার্যকর হওয়ার কথা থাকলেও শর্ত পূরণের অভাবে তা আটকে যায়।

পরে নীতিমালার কয়েকটি বিষয়ে ছাড় দিয়ে গত ১ জুলাই থেকে রাইড শেয়ারিং সেবা দাতা প্রতিষ্ঠান ও মোটরযানের তালিকাভুক্তির সনদ বা এনলিস্টমেন্ট সার্টিফিকেট ইস্যু শুরু করে বিআরটিএ।

প্রিন্ট করুন প্রিন্ট করুন
ট্যাগ »

সর্বশেষ..