প্রিন্ট করুন প্রিন্ট করুন

রাঙামাটিতে প্রাথমিকে শিক্ষক সংকট

শেয়ার বিজ ডেস্ক: রাঙামাটির সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়গুলোতে শিক্ষক সংকট চরম আকার ধারণ করেছে। এমনকি অনেক স্কুলে প্রধান শিক্ষকও নেই। ফলে ব্যাহত হচ্ছে পাঠদান। খবর রাইজিংবিডি।

জেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিস সূত্রে জানা গেছে, সর্বশেষ জাতীয়করণকৃত ২০৩টি বিদ্যালয়সহ জেলার ৬১৫টি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় রয়েছে। এর মধ্যে প্রধান শিক্ষকের শূন্যপদ ১৭৬টি। জেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসের পরিসংখ্যান অনুযায়ী ১০ উপজেলার মধ্যে রাঙামাটি সদর উপজেলায় ১৪টি, কাউখালী উপজেলায় ১৫টি, নানিয়ারচর উপজেলায় ১৪টি, বরকল উপজেলায় ২৪টি, জুরাছড়ি উপজেলায় চারটি, লংগদু উপজেলায় ৩৩টি, বাঘাইছড়ি উপজেলায় ২৮টি, কাপ্তাই উপজেলায় নয়টি, রাজস্থলী উপজেলায় ২১টি, বিলাইছড়ি উপজেলায় দুটি বিদ্যালয়ে প্রধান শিক্ষকের পদ শূন্য আছে।

প্রধান শিক্ষকের পাশাপাশি বর্তমানে রাঙামাটিতে ১৯৯ জন সহকারী শিক্ষকের পদ শূন্য রয়েছে। শূন্য পদের মধ্যে রাঙামাটি সদর উপজেলায় ২৩টি, কাউখালী উপজেলায় ২০টি, নানিয়ারচর ১৪টি, বরকল উপজেলায় ৩৬টি, জুরাছড়ি উপজেলায় ছয়টি, লংগদু উপজেলায় ৩০টি, বাঘাইছড়ি উপজেলায় ৩২টি, কাপ্তাই উপজেলায় নয়টি, রাজস্থলী উপজেলায় ১৯টি এবং বিলাইছড়ি উপজেলায় ১০টি পদ রয়েছে। এ ছাড়াও প্রাথমিক বিদ্যালয়গুলোর কর্মরত শিক্ষকদের একটি অংশ পিটিআইএ দেড় বছর মেয়াদি প্রশিক্ষণে নিয়োজিত আছে। পরিসংখ্যানগতভাবে তাদের কর্মরত শিক্ষক হিসেবে দেখানো হচ্ছে।

অপরদিকে পিডিপি-৩, সিøপসহ প্রাথমিক শিক্ষার বিভিন্ন প্রশিক্ষণে বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষকদের অংশগ্রহণ বাধ্যতামূলক বিধায় বছরের একটি উল্লেখযোগ্য সময় প্রধান শিক্ষকদের স্বল্পমেয়াদি ও দীর্ঘমেয়াদি প্রশিক্ষণে বিদ্যালয়ের বাইরে থাকতে হয়। ফলে বিদ্যালয়ে না থেকেও তাদের কর্মরত হিসেবে দেখানো হয়। তাছাড়া বিদ্যালয়ের শিক্ষক-শিক্ষিকাদের মেডিক্যাল ছুটি, সিএল ছুটি তো আছেই।

বিভিন্ন সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে খবর নিয়ে জানা গেছে, জেলা বা উপজেলা সদর কিংবা যোগাযোগ সুবিধায় অবস্থিত সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়গুলোয় শিক্ষক সংকট তুলনামূলক কম হলেও দুর্গম ও প্রত্যন্ত এলাকার সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়গুলোতে শিক্ষক সংকট প্রকট। প্রত্যন্ত এলাকার এমন একাধিক বিদ্যালয় আছে যেখানে একজন কিংবা দু’জন শিক্ষক কর্মরত। আবার এমন বিদ্যালয়ও আছে যেখানে সর্ব সাকুল্যে শিক্ষার্থী ১৫ থেকে ২০ জন।

জেলা প্রাথমিক শিক্ষা কর্মকর্তা জিল্লুর রহমান জানান, পার্বত্য চট্টগ্রাম স্থানীয় সরকার পরিষদ আইন বলে রাঙামাটি জেলা প্রাথমিক শিক্ষা বিভাগ ১৯৯০ সাল থেকে রাঙামাটি জেলা পরিষদের কাছে ন্যস্ত। এ কারণে প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষক নিয়োগের বিষয়টিও জেলা পরিষদে ন্যস্ত। জেলা পরিষদই শিক্ষকদের নিয়োগ দিয়ে থাকে। তবে সম্প্রতি পিইডিপি-৩ প্রকল্পের আওতায় রাজস্ব খাতে প্রাক-প্রাথমিক শাখায় ৭৫ জন শিক্ষক নিয়োগ প্রক্রিয়া শুরু হয়েছে।