সারা বাংলা

রাজবাড়ীতে কৃষক সমাবেশ

প্রতিনিধি, রাজবাড়ী: রাজবাড়ীতে ফসল নিবিড়তা বৃদ্ধিকরণে চার ফসলভিত্তিক ফসল বিন্যাস উদ্ভাবন ও বিস্তার কর্মসূচির আওতায় সরষে, তিল, রোপা আউশ ও রোপা আমন ফসল ধারায় বারি সরষে ১৪ জাতের উৎপাদন কার্যক্রমের ওপর কৃষক সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়েছে।

গতকাল দুপুরে জেলা সদরের শহীদওহাবপুর ইউনিয়নের সাদীপুর গ্রামে ফরিদপুর সরেজমিন গবেষণা বিভাগের (বিএআরআই) বাস্তবায়নে ও ফসল নিবিড়তা বৃদ্ধিকরণে চার ফসলভিত্তিক ফসল বিন্যাস উদ্ভাবন ও বিস্তার কর্মসূচির অর্থায়নে এ সমাবেশ হয়।

সমাবেশে প্রধান অতিথির বক্তব্য রাখেন, বাংলাদেশ কৃষি গবেষণা ইনস্টিটিউটের সরেজমিন গবেষণা বিভাগের মুখ্য বৈজ্ঞানিক কর্মকর্তা ও প্রধান ড. মো. আককাছ আলী। বিশেষ অতিথি ছিলেন রাজবাড়ী জেলা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের উপপরিচালক গোপাল কৃষ্ণ দাস। বৈজ্ঞানিক কর্মকর্তা এএফএম রুহুল কুদ্দুসের সঞ্চালনায় অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন, বারির সরেজমিন গবেষণা বিভাগ ফরিদপুর অঞ্চলের প্রধান বৈজ্ঞানিক কর্মকর্তা ড. সেলিম আহমেদ। সমাবেশে অনান্যের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন কর্মসূচি পরিচালক ড. মো. ফারুক হোসেন, সরেজমিন গবেষণা বিভাগ কুষ্টিয়া জেলার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা ড. জাহান আল মাহমুদ।

মো. আককাছ আলী বলেন, ‘বর্তমানে দেশে জনসংখ্যা বৃদ্ধি পাচ্ছে কিন্তু জমি দিন দিন কমে যাচ্ছে। এজন্য সীমিত জমি থেকে অধিক ফসল জš§াতে হবে। দেশে প্রায় পাঁচ দশমিক পাঁচ লাখ হেক্টর জমিতে সরষে আবাদ হয় যা থেকে প্রায় দুই লাখ টন তেল পাওয়া যায়। এটা চাহিদার তুলনায় অপ্রতুল। বাংলাদেশ কৃষি গবেষণা ইনস্টিটিউট বারি সরষে ১৪ নামে যে স্বল্পমেয়াদি জাত উদ্ভাবন করেছে তার গড় ফলন প্রতি হেক্টর এক দশমিক চার থেকে এক দশমিক আট টন বা প্রতি শতাংশে প্রায় ছয় কেজি। তাই নতুন জাত আবাদে কৃষক আর্থিকভাবে লাভবান হবেন ও খুব সহজে চার ফসল ধারাতে খাপ খাওয়াতে পারেন। কৃষকদের নতুন জাত ও প্রযুক্তি দ্বারা সরষে আবাদের জন্য অনুরোধ রইল। সমাবেশে শতাধিক কৃষক ও কৃষানিরা অংশ নেন।

প্রিন্ট করুন প্রিন্ট করুন

সর্বশেষ..