দিনের খবর শেষ পাতা

রাজস্ব বিরোধ নিষ্পত্তি হবে আলোচনার মাধ্যমে

জিপি-রবির বিষয়ে অর্থমন্ত্রী

নিজস্ব প্রতিবেদক: আইনি প্রক্রিয়ায় নয়, সেলফোন অপারেটর গ্রামীণফোন ও রবির কাছে সরকারের যে পাওনা রয়েছে, তা আলোচনার মাধ্যমে ফয়সালা করা হবে বলে জানিয়েছেন অর্থমন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামাল। আগামী তিন সপ্তাহের মধ্যেই এ প্রক্রিয়া সম্পন্ন হবে বলে জানান তিনি। সচিবালয়ে গতকাল এক সংবাদ সম্মেলনে অর্থমন্ত্রী এ কথা জানান।
অন্যদিকে অর্থমন্ত্রীর এমন বক্তব্যে সন্তুষ্টি প্রকাশ করেছে গ্রামীণফোন ও রবি। গতকাল পৃথক বিবৃতিতে এ সন্তুষ্টির কথা জানায় প্রতিষ্ঠান দুটি। সরকারের পাওনা দাবি বিষয়ে অব্যাহতি চেয়ে অপারেটর দুটি আদালতে যে মামলা করেছিল, তা প্রত্যাহার করা হবে বলে জানিয়েছেন অর্থমন্ত্রী।
বিটিআরসির দাবি অনুযায়ী, গ্রামীণফোন ও রবির কাছে মোট পাওনা ১৩ হাজার ৪৪৭ কোটি টাকা। এর মধ্যে গ্রামীণফোনের কাছে ১২ হাজার ৫৮০ কোটি টাকা এবং রবির কাছে পাওনা ৮৬৭ কোটি টাকা। এ টাকা আদায়ে মাঝখানে ব্যান্ডউইড্থ সীমিত করা এবং প্যাকেজ ও সরঞ্জামের ছাড়পত্র (এনওসি) দেওয়া বন্ধ করে দেয় বিটিআরসি।
অর্থমন্ত্রী বলেন, ‘ভুল বোঝাবুঝির কারণে সমস্যা তৈরি হয়েছে। আর এতে দুই অপারেটরের সঙ্গে সরকারের সম্পর্কের অবনতি ঘটতে যাচ্ছিল। এ অবস্থা চলমান থাকলে আমাদের ক্ষতি হতো। তারা ব্যবসা করবে, আমরাও পাওনা বুঝে নেব। তারা যে মামলা করেছে, তা প্রত্যাহার করে নেবে। অন্যদিকে সরকারের তরফ থেকে যে নোটিস দেওয়া হয়েছিল, তাও প্রত্যাহার করা হবে। এতে তারাও জিতবে, আমরাও জিতব।’
এদিকে গ্রামীণফোন ও রবির সঙ্গে কাকতালীয়ভাবে দেনা-পাওনা নিয়ে বিরোধ সৃষ্টি হয়েছে বলে মনে করেন ডাক ও টেলিযোগাযোগমন্ত্রী মোস্তাফা জব্বার। তিনি বলেন, তারা জনগণের সেবা করছে ২২ বছর ধরে। এর মধ্যে এ সমস্যা দেখা দিয়েছে। দীর্ঘদিনের এ সমস্যা সমাধানের চেষ্টা করছি। অর্থমন্ত্রী যেটি বলেছেন, আমাদের সবার মতও একই। আমরা চাই না ব্যবসার পরিবেশ নষ্ট হোক। তবে জাতীয় রাজস্বও উপেক্ষা করার সুযোগ নেই।
এনবিআর চেয়ারম্যান মোশাররফ হোসেন ভূঁইয়া বলেন, তাদের কাছে বিটিআরসির পাওনার ৬০ থেকে ৭০ ভাগই সুদ। তবে আমরা যে চার হাজার কোটি টাকা পাই, সেখানে সুদের হিসাব নেই। বিষয়টি আলোচনার মাধ্যমেই নিষ্পত্তি হবে বলে আমরা আশা করছি।
সংবাদ সম্মেলনে আরও উপস্থিত ছিলেন বিটিআরসির বাংলাদেশ টেলিযোগাযোগ নিয়ন্ত্রণ কমিশনের (বিটিআরসি) চেয়ারম্যান মো. জহুরুল হক, ডাক ও টেলিযোগাযোগ বিভাগের সচিব অশোক কুমার বিশ্বাস, গ্রামীণফোনের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা (সিইও) মাইকেল ফোলি এবং রবির সিইও মাহতাব উদ্দিন আহমেদ।
এদিকে পাওনা ইস্যুতে সমঝোতার ঘোষণার প্রতিক্রিয়ায় গ্রামীণফোনের এক্সটার্নাল কমিউনিকেশন বিভাগের ডেপুটি জেনারেল ম্যানেজার মো. হাসান গণমাধ্যমকে বলেন, ‘আমরা খুব আশাবাদী যে আজকে আমরা সবাই মিলে একমত হয়েছি, বিষয়টি নিয়ে একটি স্বচ্ছ ও গঠনমূলক উপায়ে সমাধানের দিকে নিয়ে যাব। আজকের এই অগ্রগতির বিষয়ে সহায়তা করার জন্য আমরা অর্থমন্ত্রী, ডাক ও টেলিযোগাযোগমন্ত্রী এবং এনবিআর চেয়ারম্যানের প্রতি কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করছি। আমরা একটি সুন্দর সমাধানের প্রত্যাশা করছি, যেটি টেলিযোগযোগ খাত ও সরকারকে ডিজিটাল বাংলাদেশ গড়তে আবার মনোনিবেশ করতে সহায়তা করবে।’
বিটিআরসির পাওনা আদায়ে শীর্ষ দুই টেলিকম কোম্পানির সঙ্গে সমঝোতার সিদ্ধান্তকে স্বাগত জানিয়ে অন্যদিকে রবির পক্ষ থেকে পাঠানো এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়েছে, ‘আলোচনার মাধ্যমে অডিট আপত্তি নিয়ে সৃষ্ট জটিলতা নিষ্পত্তির জন্য সরকারের সিদ্ধান্তকে স্বাগত জানাই। এজন্য ভূমিকা রাখায় অর্থমন্ত্রীর প্রতি আমরা কৃতজ্ঞ। আজকের (বুধবার) ঘোষণায় টেলিকম খাতের বিনিয়োগকারীদের মধ্যে যে উদ্বেগ-অনিশ্চয়তা তৈরি হয়েছে, তার অবসান ঘটবে। এ নিয়ে সৃষ্ট অনাকাক্সিক্ষত অচলাবস্থার কারণে যে সংকট বা ক্ষতি হয়েছে, সেটা আমরা শিগগিরই কাটিয়ে উঠতে পারব। ডিজিটাল বাংলাদেশ গড়ে তোলায় টেলিকম খাত সব সেক্টরেই ভূমিকা রাখবে। আমরা উচ্ছসিত যে, সংকট কাটিয়ে ওঠার কারণে এ খাতে গতি ফিরবে।’

সর্বশেষ..