প্রিন্ট করুন প্রিন্ট করুন

রাবি ছাত্রদলের বিক্ষোভ মিছিল

প্রতিনিধি,রাবি: সারাদেশে লোডশেডিং ও জ্বালানি খাতে অব্যবস্থাপনার বিরুদ্ধে এবং ভোলায় বিএনপির বিক্ষোভ সমাবেশে পুলিশের বাঁধায় হতাহতের প্রতিবাদে বিক্ষোভ মিছিল পালন করেছে রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয় (রাবি) শাখা ছাত্রদল।

সোমবার (১ আগস্ট) বিকাল সাড়ে ৩ টায় এ কর্মসূচি পালন করেন শাখা ছাত্রদলের নেতাকর্মীরা।

রাবি ছাত্রদলের আহবায়ক সুলতান আহমেদ রাহীর নেতৃত্বে বিক্ষোভ মিছিলটি কাজলা গেইট থেকে বের হয়ে রাজশাহী-ঢাকা মহাসড়ক প্রদক্ষিণ শেষে বিশ্ববিদ্যালয়ের মেইন গেইটে এসে এক সংক্ষিপ্ত সমাবেশে মিলিত হোন তারা।

মিছিল শেষে সমাবেশে সদস্য সচিব সামসুদ্দিন চৌধুরী সানিনের সঞ্চালনায় বিশ্বববিদ্যালয়ের আহবায়ক সুলতান আহমেদ রাহী বলেন, জনগণের নায্য দাবি আদায়ের কর্মসূচিতে পুলিশের নগ্ন হামলার মাধ্যমে এটাই প্রমাণ হয় যে, বিনা ভোটের সরকার কখনোই জনগণের জন্য কাজ করেনা।তারা রাষ্ট্রযন্ত্রকে ব্যবহার করে ক্ষমতার মসনদে টিকে থাকার জন্য এখন বেপরোয়া আচরণ করছে, অচিরেই অতীতের ন্যায় ছাত্র আন্দোলনের মাধ্যমে সরকারের বিদায় ঘন্টা বাজানো হবে।

রাহী আরও বলেন, পুলিশের বাহিনীর দলীয় আচরণ চলবে না। কেউ যদি এমন আচরণ করতে চান, তাহলে পুলিশের পোশাক ছেড়ে মুজিবকোর্ট পরিধান করেন। তাহলেই তখন তাদের রাজপথে মোকাবিলা করা হবে। কোনো রাষ্ট্রীয় বাহিনীর গুটিকয়েক লোকের জন্য পুরো বাহিনী দায় নিক, আমরা তা চাই না। এ সময় তিনি দলীয় মানসিকতার সব পুলিশ সদস্যকে সতর্ক করেন।

সদস্য সচিব শামসুদ্দিন চৌধুরী সানিন বলেন, এই হত্যার তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানাই।জড়িত পুলিশ সদস্যদের শাস্তি এবং বিচারের ব্যবস্থায় না আনা পর্যন্ত দেশনায়ক জনাব তারেক রহমানের নেতৃত্বে আমাদের কর্মসূচি চালু থাকবে।

এসময় আরও উপস্থিত ছিলেন উপস্থিত ছিলেন সিনিয়র যুগ্ম আহবায়ক মো. রাশেদ আলী, যুগ্ম আহবায়ক জহুরুল ইসলাম, মেহেদী হাসান খান,শফিকুল ইসলাম, শাকিলুর রহমান সোহাগ, মাহমুদুল মিঠু,জহির শাওন, মারুফ হোসেন, এম এ তাহের। এছাড়াও আরো উপস্থিত ছিলেন আহবায়ক সদস্য ফারুক হোসেন, নাফিউল ইসলাম জীবন, শেখ নুরুদ্দীন আবীর, তুষার শেখ, ইমরান হাসান রাকেশ, আবু সাইদ, সজীব ওয়াজেদ জয় সহ বিভিন্ন হল ও অনুষদের নেতৃবৃন্দ।

এর আগে রোববার (৩১ জুলাই) ভোলায় বিএনপি বিক্ষোভ সমাবেশকে কেন্দ্র করে পুলিশের সঙ্গে দলের নেতাকর্মীদের সংঘর্ষের ঘটনায় মো. আব্দুর রহিম নামে একজন নিহত হয়েছেন। এতে ছয় পুলিশ সদস্যসহ আহত হয়েছেন অন্তত ৫০ জন।

ওইদিন বেলা সাড়ে ১১টার দিকে ভোলা জেলা বিএনপির কার্যালয়ের সামনে এ ঘটনা ঘটে।