প্রিন্ট করুন প্রিন্ট করুন

রাবি শিক্ষকের সহযোগিতায় শীতবস্ত্র পেল ৪০ অসহায় পরিবার

প্রতিনিধি, রাবি : শীত ধনীদের কাছে সুখময় হলেও অসহায়দের কাছে একধরনের দুর্ভোগ। তাদের কষ্ট কিছুটা লাঘব করার জন্য শীতার্ত মানুষের পাশে দাঁড়িয়ে মহানুভবতার পরিচয় দিয়েছেন রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের (রাবি) সমাজকর্ম বিভাগের শিক্ষক অধ্যাপক ড. গোলাম কিবরিয়া ফেরদৌস। তিনি রাজশাহী জেলার পবা থানার হুজুরিপাড়ার ইউনিয়নের অন্তর্গত আফি-নেপালপাড়া গ্রামের ৪০ অসহায় পরিবারের মাঝে কম্বল বিতরণ করেছেন।

শনিবার (২৬ নভেম্বর) সকাল ১০টায় আফি নেপালপাড়া গ্রামের বাসিন্দা আবুল কালামের বাসায় এ কম্বল বিতরণ করেন। এছাড়া কয়েকজনকে আর্থিক সহযোগিতা ও একজন কলেজ পড়ুয়া শারিরীক প্রতিবন্ধী শিক্ষার্থীকে শীতবস্ত্র দিয়ে সহযোগিতা করেছেন।

এর আগে ২০২১ সালে তিনি ৫০জন ও ২০২০ সালে ৭০জনকে শীত বস্তু বিতরণ করেন মানবতাবাদী এই অধ্যাপক। আগামী বছর ২০০ জনকে কম্বল দেয়ার পরিকল্পনার কথা জানান তিনি। তাঁর ইচ্ছা ওই দুটি গ্রামের সকল দরিদ্র মানুষদের শীত বস্ত্র বিতরণ করবেন। তাই এক বছরে যাদের কম্বল দেয়া হয় পরবর্তী বছরে তাদের দেয়া হয়না। প্রতিবছরই নতুন করে নামের তালিকা তৈরি করা হয়। এছাড়াও দুটি গ্রামে সুপেয় পানির সংকট কাটাতে ২টি টিউবওয়েল বসিয়েছেন। কেউ অসুস্থ হলে তাঁকে জানালে তিনি সহযোগিতার হাত বাড়িয়ে দেন।

ভবিষ্যতে সহযোগিতা করার জন্য একটি সমাজসেবামূলক সংগঠন করার ইচ্ছা আছে এই অধ্যাপকের। ওই সংগঠনের দ্বারা সকল দরিদ্র মানুষদের পাশে থেকে তাদের সাহায্য সহযোগিতা করতে পারেন। এজন্য গ্রামের ছেলেদের সংঘবদ্ধ হতে উৎসাহিত করছেন।

শীতবস্ত্র বিতরণ বিষয় জানতে চাইলে অধ্যাপক গোলাম কিবরিয়া বলেন, প্রায় পাঁচ বছর আগে ওই গ্রামের তৃতীয় লিঙ্গের একজনের সাথে আমার পরিচয় হয়। সে গ্রামের অসহায় মানুষদের সাহায্য সহযোগিতা করে থাকে। সে বিভিন্ন সময়ে গ্রামের মানুষের জন্য আমার কাছে সহযোগিতা চেয়ে আসছেন। এবছর তাঁর গ্রামের দরিদ্র মানুষদের জন্য ৩০টি কম্বল চেয়েছিলেন। আমি উদ্যোগ নিয়ে আমার সহযোগী বড় ভাই-বন্ধুদের সাহায্য নিয়ে ৪০টি কম্বল কিনে তাদের মাঝে উপহার দিতে পেরেছি। তাদের সহযোগীতা করতে পেরে খুব ভালো লাগছে।

তিনি আরো বলেন, ভবিষ্যতেও অসহায় মানুষদের পাশে থাকার কথা জানান তিনি। আগামী বছর ২০০ কম্বল বিতরণ করার কথা বলেন তিনি। অসহায় মানুষদের পাশে থাকার জন্য সবার প্রতি আহ্বান জানান তিনি।