বিশ্ব সংবাদ

রাশিয়ায় আরও নিষেধাজ্ঞার হুমকি যুক্তরাষ্ট্রের

শেয়ার বিজ ডেস্ক: যুক্তরাষ্ট্র ও রাশিয়ার মধ্যে তিক্ততা বেড়েই চলছে। সম্প্রতি জি-৭-এর সম্মেলন কেন্দ্রে দুই নেতার বৈঠকের পর সম্পর্ক শীতল হবে বলে আশা করা হয়েছিল। কিন্তু উল্টো আরেক দফা নিষেধাজ্ঞা আরোপের হুমকি দিচ্ছে যুক্তরাষ্ট্র। রাশিয়ার প্রেসিডেন্ট ভ্লদিমির পুতিনের প্রধান সমালোচক আলেক্সেই নাভালনিকে বিষ প্রয়োগের ইস্যুতে রাশিয়ার ওপর আরেক দফা নিষেধাজ্ঞা আরোপের প্রস্তুতি নিয়েছে যুক্তরাষ্ট্র। জো বাইডেনের জাতীয় নিরাপত্তা উপদেষ্টা জ্যাক সুলিভান রোববার এ হুশিয়ারি দেন। খবর: এএফপি, বিবিসি।

সিএনএনকে দেয়া এক সাক্ষাৎকারে সুলিভান বলেন, ‘আলেক্সেই নাভালনিকে বিষ প্রয়োগের দায়ে আমরা রাশিয়ার ওপর নিষেধাজ্ঞা আরোপ করেছি। রাশিয়ার মাটিতে তাদের কোনো নাগরিকের বিরুদ্ধে রাসায়নিক এজেন্ট ব্যবহারের জন্য তাদের ওপর নিষেধাজ্ঞা আরোপের যৌথ প্রয়াসে আমরা ইউরোপীয় মিত্রদের একত্রিত করেছি।’

তিনি বলেন, ‘আমরা এ বিষয়ে আরেক দফা নিষেধাজ্ঞা আরোপের প্রস্তুতি নিচ্ছি। আমরা পুরো সময়ে দেখিয়েছি যে, আমাদের আঘাত আমরা ফিরিয়ে নেব না।’

নাভালনি বর্তমানে কারাবন্দি রয়েছেন। গত বছর রাসায়নিক এজেন্টে আক্রান্ত হয়ে তিনি কোমায় চলে গিয়েছিলেন। জার্মানির বার্লিনে চিকিৎসা নিয়ে এ বছরের জানুয়ারিতে রাশিয়া ফিরে আসেন তিনি। রাশিয়া পৌঁছানোর পরপরই তাকে গ্রেপ্তার করা হয়। বিষ প্রয়োগের ঘটনায় নাভালনি পুতিন প্রশাসনকে দায়ী করে আসছেন।

গত মার্চে রাশিয়ার এফএসবি নিরাপত্তা সংস্থার প্রধানের ওপর নিষেধাজ্ঞা আরোপ করে যুক্তরাষ্ট্র। নাভালনিকে বিষ প্রয়োগের ঘটনা এফএসবি ঘটিয়েছে, এমন তথ্যের ভিত্তিতে যুক্তরাষ্ট্র এই পদক্ষেপ নেয়।

গত সপ্তাহে জেনেভায় বাইডেন ও পুতিন প্রথমবার বৈঠকে বসার পর রাশিয়ার ওপর নিষেধাজ্ঞা আরোপের কথা জানালেন বাইডেন প্রশাসনের শীর্ষ এ কর্মকর্তা। যদিও বাইডেন প্রেসিডেন্ট হিসেবে ক্ষমতা গ্রহণের পর থেকে রাশিয়ার সঙ্গে যুক্তরাষ্ট্রের বেশ শীতল সম্পর্ক চলছে। গত মার্চে বাইডেন পুতিনকে ‘খুনি’ হিসেবে অভিহিত করেন। এরপর যুক্তরাষ্ট্র থেকে রুশ রাষ্ট্রদূত আনাতোলি আন্তোনভকে রাশিয়ায় ফিরিয়ে নিয়ে যাওয়া হয়। যুক্তরাষ্ট্রও একই পদক্ষেপ নিয়ে রাশিয়া থেকে রাষ্ট্রদূত জন সুলিভানকে দেশে ফিরিয়ে নেয়।

তবে জেনেভায় বৈঠকের পর গত রোববার স্থানীয় সময় সকাল ৯টা ২০ মিনিটে ওয়াশিংটনে নিযুক্ত রাশিয়ার রাষ্ট্রদূত আনাতোলি অ্যান্টোনভকে নিয়ে রাশিয়ার একটি বিমান নিউইয়র্কের উদ্দেশে মস্কোর চেরেমিতিয়েভা বিমানবন্দর ছেড়ে যায়। বিমানে ওঠার আগে অ্যন্টোনোভ বলেন, ‘দুই প্রেসিডেন্টের মধ্যকার বৈঠকের পর আমি আশা করছি, যুক্তরাষ্ট্রের বন্ধুদের সঙ্গে মিলে আমি আবার গঠনমূলক কাজ করতে পারব এবং উভয় দেশের মধ্যে চমৎকার সম্পর্ক তৈরিতে ভূমিকা রাখব।’

প্রিন্ট করুন প্রিন্ট করুন

সর্বশেষ..