মত-বিশ্লেষণ

লেখাপড়া চালিয়ে যাওয়ার জন্য বিকল্প পথ খুঁজতে হবে

প্রতিকূল পরিস্থিতিতে ইউনিসেফ জরুরি ভিত্তিতে রোহিঙ্গা শিশুদের লেখাপড়া চালিয়ে যাওয়ার জন্য বিকল্প পথ খুঁজছে। ইউনিসেফ এরই মধ্যে রোহিঙ্গা শিশুদের লেখাপড়ায় সহায়তা করতে তাদের মা-বাবা ও যতœকারীদের নির্দেশনা প্রদান এবং স্বাস্থ্য ও পরিষ্কার পরিচ্ছন্নতা বিষয়ে গুরুত্বপূর্ণ বার্তা পৌঁছে দিতে রোহিঙ্গা সম্প্রদায়ের শিক্ষকদের একটি নেটওয়ার্ক চালু করেছে।পরিবার ও সেবাদানকারীদের মাধ্যমে ঘরে থেকে লেখাপড়া করতে ইউনিসেফের সহযোগীরা সচিত্র বই, অডিও বার্তা ও ওয়ার্কবুক বা অনুশীলন বই দিয়ে সহায়তা করছে।

তবে এক্ষেত্রে সাক্ষরতার বিষয়টি গুরুত্বপূর্ণ চ্যালেঞ্জ হিসেবে দেখা দিয়েছে। মা-বাবার যদি লেখাপড়া না থাকে, তবে তারা তাদের সন্তানদের পড়াশোনা তদারকি করতে পারেন না। বাস্তবতা হলো, বহু রোহিঙ্গা মা-বাবা অশিক্ষিত। তাই ঘরে থাকা শিশুদের যতœকারীর মাধ্যমে পদ্ধতিগত শিক্ষা নিশ্চিত করা কঠিন হয়ে পড়েছে।

শিশুদের প্রাক-রেকর্ডকৃত পাঠ সরবরাহের জন্য বিকল্প হিসেবে ইন্টার-অ্যাকটিভ রেডিও নির্দেশিকার মতো স্বল্পমূল্যের প্রযুক্তি ব্যবহারের বিষয়টি আলোচনাধীন রয়েছে। তবে ইউনিসেফ কভিডের কারণে সৃষ্ট নজিরবিহীন এই পরিস্থিতির সঙ্গে খাপ খাইয়ে নিয়ে রোহিঙ্গা শিশুদের পড়াশোনার সর্বোত্তম উপায়ের অনুসন্ধান চালিয়ে যাচ্ছে।

রোহিঙ্গাদের আশ্রয়দাতা বাংলাদেশিদের সঙ্গে সেতুবন্ধ গড়ে তোলা মানবিক সহায়তা কার্যক্রম অব্যাহত থাকায় পরিষেবা প্রদান ক্রমেই গুরুত্বপূর্ণ হয়ে উঠেছে। এটি স্থানীয় লোকজনের সঙ্গে সেতুবন্ধ তৈরি করে, শিশুদের স্বাস্থ্য ও পুষ্টি সুরক্ষা প্রদান করে নিরাপদ পানি ও স্যানিটেশন সেবা দেয়া নিশ্চিত করার মাধ্যমে।

রোহিঙ্গা শরণার্থীদের আগমন কক্সবাজার জেলার ওপর চাপ সৃষ্টি করেছে, যা আগে থেকেই বাংলাদেশে শিশুদের কল্যাণের জন্য বিভিন্ন সূচকে সবচেয়ে খারাপ অবস্থানে ছিল। ফলস্বরূপ, ইউনিসেফ এবং অন্যান্য সহযোগী সংস্থাগুলো জরুরি শরণার্থী পরিস্থিতি মোকাবিলার সঙ্গে সঙ্গে স্থানীয় জনগোষ্ঠীর প্রয়োজনের দিকে গভীরভাবে মনোনিবেশ করেছে। এই প্রচেষ্টার মধ্যে রয়েছে তীব্র অপুষ্টিতে আক্রান্ত শিশুদের শনাক্ত করা, নিরাপদ পানি সরবরাহের জন্য গভীর নলকূপ স্থাপন করা এবং সরকারি সেবাকেন্দ্র ও কমিউনিটি ক্লিনিকগুলোতে হাজার হাজার ছোট শিশুর জন্য স্বাস্থ্য পরামর্শ প্রদান করা। অসুস্থ নবজাতকদের সেবা প্রদানের লক্ষ্যে ইউনিসেফ কক্সবাজার জেলায় পাঁচটি বিশেষায়িত নবজাতক সেবাকেন্দ্রে সহায়তা দেয়। ইউনিসেফের তথ্য অবলম্বনে

প্রিন্ট করুন প্রিন্ট করুন

সর্বশেষ..