কোম্পানি সংবাদ বাজার বিশ্লেষণ

লেনদেনের শীর্ষে লংকাবাংলা ফাইন্যান্স

নিজস্ব প্রতিবেদক: বিদায়ী সপ্তাহে ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জে (ডিএসই) লেনদেনের শীর্ষে রয়েছে লংকাবাংলা ফাইন্যান্স লিমিটেড। আলোচ্য সপ্তাহে কোম্পানিটির শেয়ারদর বেড়েছে ৯ দশমিক ৪২ শতাংশ। ডিএসই সূত্রে এসব তথ্য জানা গেছে।

আলোচ্য সপ্তাহে কোম্পানিটির তিন কোটি ৭৩ লাখ ৬০ হাজার ৪২৪টি শেয়ার লেনদেন হয়েছে। যার বাজারমূল্য ২৪৩ কোটি ৪৮ লাখ ৮৭ হাজার টাকা। তালিকার দ্বিতীয় স্থানে থাকা বারাকা পাওয়ার লিমিটেডের শেয়ার দর দশমিক ৭৮ শতাংশ বেড়েছে। আলোচ্য সপ্তাহে কোম্পানিটির দুই কোটি ৭৫ লাখ ২৩ হাজার ৭৬০টি শেয়ার লেনদেন হয়েছে। যার বাজারমূল্য ১৪১ কোটি ৯২ লাখ ৪৯ হাজার টাকা।

তালিকার তৃতীয় স্থানে রয়েছে জিপিএইচ ইস্পাত লিমিটেড। আলোচ্য সপ্তাহে কোম্পানিটির শেয়ারদর বেড়েছে ৫ দশমিক ৭৩ শতাংশ। গত সপ্তাহে কোম্পানিটির ২ কোটি ৮৪ লাখ ১৩৪টি শেয়ার লেনদেন হয়েছে। যার বাজারমূল্য ১৩৭ কোটি ৪১ লাখ ৯৪ হাজার টাকা।

তালিকায় থাকা অন্য কোম্পানিগুলো হচ্ছে: ইসলামী ব্যাংক, বেক্সিমকো, রতনপুর স্টিল রি-রোলিং মিলস, বিডি থাই অ্যালুমিনিয়াম, কেয়া কসমেটিকস, সেন্ট্রাল ফার্মাসিউটিক্যাল, বেক্সিমকো ফার্মাসিউটিক্যালস এবং সিটি ব্যাংক লিমিটেড।

এদিকে লংকাবাংলা ফাইন্যান্সের লেনদেন রেকর্ড ডেটের কারণে সপ্তাহের শেষ কার্যদিবস বৃহস্পতিবার বন্ধ ছিল। এর আগে কোম্পানিটির শেয়ারের লেনদেন স্পট মার্কেটে এবং ব্লক/অডলটে শুরু করে; যা বুধবার সম্পন্ন হয়। আজ রোববার থেকে কোম্পানিটি আবার স্বাভাবিক লেনদেন শুরু করবে পুঁজিবাজারে।

গত কয়েক সপ্তাহ ধরে কোম্পানিটির শেয়ারদর বেড়েই চলছে। বিদায়ী হিসাববছরে কোম্পানির শেয়ারপ্রতি আয় (ইপিএস) এবং ৩০ শতাংশ লভ্যাংশ প্রদানকে কেন্দ্র করে বিনিয়োগকারীদের আস্থা বাড়বে, শেয়ারদর বাড়বে এটা ইতিবাচক। কিন্তু এ তথ্যকে পুঁজি করে কোনো কারসাজি মহল যাতে সাধারণ বিনিয়োগকারীদের ঠকানোর সুযোগ না পায় সেদিকেও সংশ্লিষ্টদের খেয়াল রাখতে হবে বলে মনে করছেন বিশেষজ্ঞরা।

কোম্পানিটি ৩১ ডিসেম্বর ২০১৬ সালের জন্য কোম্পানির পরিচালনা পর্ষদ ১৫ শতাংশ ক্যাশ এবং ১৫ শতাংশ স্টক ডিভিডেন্ড ঘোষণা করেছে। এ সময়ে কোম্পানির ইপিএস হয়েছে ২ দশমিক ৮৭ টাকা, শেয়ারপ্রতি সম্পদমূল্য দাঁড়িয়েছে ২৪ দশমিক ১৬ টাকা এবং শেয়ারপ্রতি কার্যকরী নগদ প্রবাহের পরিমাণ দাঁড়িয়েছে ৯  দশমিক ০২ টাকা। যা আগের বছর একই সময়ে ছিল যথাক্রমে এক দশমিক ৫৩ টাকা, ২২ দশমিক ৬৩ টাকা এবং ১০ দশমিক ৭২ টাকা। সেই হিসেবে কোম্পানির ইপিএস বেড়েছে ৮৮ শতাংশ।

এছাড়া কোম্পানিটি আলোচিত বছরের ডিভিডেন্ড ঘোষণা করে গত ১৩ ফেব্রুয়ারি। তারপর থেকে এর শেয়ারদর বেড়েছে পাঁচ দশমিক ৪০ টাকা বা ১০ দশমিক ৪৭ শতাংশ। এছাড়া কোম্পানির পক্ষ থেকে বোর্ড সভার ঘোষণা করা হয় ৫ ফেব্রুয়ারি এবং তার পর থেকে এর দর বেড়েছ ১০ টাকা বা ২১ দশমিক ২৮ শতাংশ। একইভাবে গত বছরের নভেম্বর থেকে কোম্পানির শেয়ারদর টানা বাড়তে থাকে। নভেম্বরের শুরু থেকে এ পর্যন্ত কোম্পানির শেয়ারদর বাড়ে ৩০ টাকা বা ১১১ শতাংশ।

‘এ’ ক্যাটাগরির এই কোম্পানিটি পুঁজিবাজারে তালিকাভুক্ত হয় ২০০৬ সালে। লংকাবাংলা ফাইন্যান্সের মোট শেয়ারের ৩৪ দশমিক ৮৩ শতাংশ রয়েছে উদ্যোক্তা পরিচালকদের হাতে। প্রাতিষ্ঠানিক ও বিদেশি বিনিয়োগকারীদের কাছে রয়েছে যথাক্রমে ৩১ দশমিক ৮১ ও ৩ দশমিক ৭৬ শতাংশ। বাকি ২৯ দশমিক ৬০ শতাংশ রয়েছে সাধারণ বিনিয়োগকারীদের হাতে।

 

প্রিন্ট করুন প্রিন্ট করুন

সর্বশেষ..