প্রিন্ট করুন প্রিন্ট করুন

লেনদেন ও বেশিরভাগ শেয়ারের দরপতন

নিজস্ব প্রতিবেদক: উভয় পুঁজিবাজারে গতকাল লেনদেন কমার পাশাপাশি বেশিরভাগ শেয়ারের দরপতন হয়। ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জে (ডিএসই) গতকাল মাত্র ৩২ শতাংশ শেয়ারের দর বেড়েছে, কমেছে ৫৪ শতাংশের। লেনদেনের শুরুতে ক্রয়চাপে সূচক বাড়তে থাকে, তবে তা স্থায়ী হয়নি। আধা ঘণ্টার মধ্যে সূচক নামতে থাকে। বেলা ১২টার ফের ক্রয়চাপে সূচক ঊর্ধ্বমুখী হয়। ১ টার পর নামতে থাকে। শেষ পর্যন্ত সামান্য ইতিবাচক হয় সূচক। তবে সব খাতে শেয়ার বিক্রির চাপ বেশি ছিল। চট্টগ্রাম স্টক এক্সচেঞ্জেও (সিএসই) সিএসআই সূচক ছাড়া বাকি সব নিম্নমুখী ছিল। লেনদেন ও বেশিরভাগ শেয়ারের দরপতন হয়।

বাজার পর্যবেক্ষণে দেখা গেছে, ডিএসইর প্রধান মূল্যসূচক ডিএসইএক্স গতকাল এক দশমিক ৬৪ পয়েন্ট বা দশমিক শূন্য দুই শতাংশ বেড়ে ছয় হাজার ৪১ দশমিক ২০ পয়েন্টে অবস্থান করে। ডিএসইএস বা শরিয়াহ সূচক দুই দশমিক ৮৫ পয়েন্ট বা দশমিক ২১ শতাংশ বেড়ে এক হাজার ৩৩২ দশমিক ২৭ পয়েন্টে আর ডিএস৩০ সূচক দশমিক ৯৬ পয়েন্ট বা দশমিক ০৪ শতাংশ বেড়ে দুই হাজার ১৮৯ দশমিক ২৬ পয়েন্টে অবস্থান করে। গতকাল ডিএসইর বাজার মূলধন বেড়ে চার লাখ আট হাজার ৬৯৫ কোটি ৩৭ লাখ ৭৩ হাজার টাকা হয়।

ডিএসইতে গতকাল লেনদেন হয় ৫৩৪ কোটি ৬৭ লাখ টাকার শেয়ার ও মিউচুয়াল ফান্ডের ইউনিট। আগের কার্যদিবসে লেনদেন হয়েছিল ৬০০ কোটি ৭১ লাখ টাকার শেয়ার ও মিউচুয়াল ফান্ডের ইউনিট। এ হিসাবে লেনদেন কমেছে ৫৭ কোটি টাকা। এদিন ১৩ কোটি চার লাখ ২৭ হাজার ১১৮টি শেয়ার এক লাখ আট হাজার ৫৫৭ বার হাতবদল হয়। লেনদেন হওয়া ৩৩১টি কোম্পানি ও মিউচুয়াল ফান্ডের মধ্যে দর বেড়েছে ১০৯টির, কমেছে ১৮১টির, অপরিবর্তিত ছিল ৪১টির দর।

টাকার অঙ্কে লেনদেনের শীর্ষে উঠে আসে লংকাবাংলা ফাইন্যান্স। ২৮ কোটি ৮১ লাখ টাকায় কোম্পানির ৪৪ লাখ ২৫ হাজার ৮৩৩টি শেয়ার লেনদেন হয়। গতকাল শেয়ারটির দর অপরিবর্তিত ছিল। এর পরের অবস্থানগুলোয় ছিল বিবিএস কেব্লস, রংপুর ফাউন্ড্রি, জিপি, আইডিএলসি, আমরা নেট, ইফাদ অটোস, এক্সিম ব্যাংক, ইসলামী ব্যাংক, উত্তরা ফাইন্যান্স। সবচেয়ে বেশিসংখ্যক শেয়ার লেনদেন হয় এক্সিম ব্যাংকের। কোম্পানিটির ৪৪ লাখ ২৫ হাজার ৮৩৩টি শেয়ার ১২ কোটি ৪৯ লাখ টাকায় লেনদেন হয়। শেয়ারটির দর ২০ পয়সা বেড়েছে। এরপরের অবস্থানগুলোয় ছিল লংকাবাংলা ফাইন্যান্স, বিডি ফাইন্যান্স, এনবিএল, মার্কেন্টাইল ব্যাংক, ইসলামী ব্যাংক, আইএফআইসি, সি অ্যান্ড এ টেক্স, উত্তরা ব্যাংক, শাহ্জালাল ব্যাংক।

৯ দশমিক ৯৮ শতাংশ বেড়ে বৃদ্ধির শীর্ষে উঠে আসে রংপুর ফাউন্ড্রি। ছয় দশমিক ৭৩ শতাংশ বেড়েছে শাশা ডেনিমসের। এরপরে ছয় দশমিক ২৫ শতাংশ বাড়ে বিবিএস কেব্লসের। রহিম টেক্সের দর বেড়েছে ছয় দশমিক শূন্য তিন শতাংশ ও হামিদ ফেব্রিকসের দর বেড়েছে পাঁচ দশমিক ৫০ শতাংশ। অন্যদিকে ১০ দশমিক ৬৯ শতাংশ দর কমেছে লিগ্যাসি ফুটওয়্যারের। শ্যামপুর সুগারের দর ৯ দশমিক ৭৭ শতাংশ, জিলবাংলার দর ৯ দশমিক ৭৩ শতাংশ, আরামিট সিমেন্টের দর ৯ দশমিক ২৯ শতাংশ ও এসপি সিরামিকসের দর সাত দশমিক ৫৫ শতাংশ কমেছে।

চট্টগ্রাম স্টক এক্সচেঞ্জে (সিএসই) গতকাল সিএসসিএক্স মূল্যসূচক আট দশমিক শূন্য পাঁচ পয়েন্ট কমে ১১ হাজার ৩২১ পয়েন্টে এবং সার্বিক সূচক সিএএসপিআই ১২ দশমিক ৯৪ পয়েন্ট কমে ১৮ হাজার ৭৩০ পয়েন্টে অবস্থান করে। গতকাল দিনজুড়ে ২৪১টি কোম্পানি ও মিউচুয়াল ফান্ডের শেয়ার ও ইউনিট লেনদেন হয়। এর মধ্যে ৮৩টির দর বেড়েছে, কমেছে ১২৭টির। অপরিবর্তিত ছিল ৩১টির দর।

সিএসইতে এদিন ৪২ কোটি ৮২ হাজার টাকার শেয়ার ও মিউচুয়াল ফান্ডের ইউনিট লেনদেন হয়। আগের কার্যদিবেসে ৬৩ কোটি ৫৩ লাখ ৯৩ হাজার টাকার শেয়ার ও মিউচুয়াল ফান্ডের ইউনিট লেনদেন হয়। সে হিসাবে লেনদেন কমেছে ২০ কোটি ৭১ লাখ টাকা। সিএসইতে লেনদেনের শীর্ষে ছিল ডাচ্-বাংলা ব্যাংক। কোম্পানিটির ১৯ কোটি ৫৭ লাখ টাকার শেয়ার লেনদেন হয়। এরপর বিবিএস কেব্লস এক কোটি ৪৫ লাখ, আমরা নেট এক কোটি ২৮ লাখ টাকার, রংপুর ফাউন্ড্রি এক কোটি ২৬ লাখ, এনসিসি ব্যাংক এক কোটি পাঁচ লাখ, ইসলামী ব্যাংক ৯৭ লাখ, এক্সিম ব্যাংক ৮২ লাখ, আইএফআইসি ৬৩ লাখ, রংপুর ফাউন্ড্রি ৬৩ লাখ ও সিটি ব্যাংকের ৬২ লাখ টাকার শেয়ার লেনদেন হয়।