প্রচ্ছদ প্রথম পাতা বাজার বিশ্লেষণ

লেনদেন ও শেয়ারের চাহিদা বেড়েছে ছোট খাতগুলোয়

রুবাইয়াত রিক্তা: পুঁজিবাজারের স্টেকহোল্ডারদের সঙ্গে অর্থমন্ত্রী গতকাল এক মতবিনিময় সভায় বসেন। এ খবরে পুঁজিবাজারে ইতিবাচক প্রভাব দেখা গেছে। বেশিরভাগ শেয়ারদর ও সূচক বাড়লেও লেনদেনে দৈন্যদশা অব্যাহত ছিল। তবে আগেরদিনের তুলনায় সামান্য বেড়েছে লেনদেন। গতকাল ডিএসইতে ৪৬ শতাংশ কোম্পানির দর বেড়েছে। কমেছে ৩৮ শতাংশের দর। মূল লেনদেন ওষুধ ও রসায়ন এবং প্রকৌশল খাতে সীমাবদ্ধ থাকলেও গতকাল ছোট খাতগুলোর শেয়ারের চাহিদা তুলনামূলক বেশি ছিল। বিশেষ করে টেলিযোগাযোগ, তথ্য ও প্রযুক্তি সিরামিক, সেবা ও আবাসন খাতের কোম্পানিগুলোর শেয়ারের চাহিদা বেশি ছিল। সেই সঙ্গে লেনদেনও বেড়েছে।
মোট লেনদেনের ২২ শতাংশ বা ৮৫ কোটি টাকা হয় প্রকৌশল খাতে। এ খাতে ৬২ শতাংশ কোম্পানির শেয়ারদর বেড়েছে। সাড়ে ৩৩ কোটি টাকা লেনদেন হয়ে শীর্ষে উঠে আসে মুন্নু জুট স্টাফলার্স। ১১৫ টাকা ৩০ পয়সা বেড়ে কোম্পানিটি দর বৃদ্ধির তালিকায় নবম অবস্থানে ছিল। সাম্প্রতিক দর বৃদ্ধির প্রেক্ষিতে ডিএসইর অনুসন্ধানের জবাবে কোম্পানি কর্তৃপক্ষ কোনো কারণ দর্শাতে পারেনি। তা সত্ত্বেও অব্যাহত গতিতে বেড়ে চলেছে মুন্নু জুট ও মুন্নু সিরামিকের দর ও লেনদেন। মুন্নু সিরামিকের সাড়ে ১২ কোটি টাকা লেনদেনের পাশাপাশি দর বেড়েছে ছয় টাকা ১০ পয়সা। অপর লোকসানি কোম্পানি ন্যাশনাল টিউবসের ২১ কোটি টাকার বেশি লেনদেন হলেও দরপতন হয় ১২ টাকা ২০ পয়সা। জাতীয় রাজস্ব বোর্ড ন্যাশনাল টিউবসের অগ্রিম দেওয়া আয়করের টাকা ফেরত দেওয়ার পাশাপাশি কোম্পানিটি ঢাকাসহ সারা দেশব্যাপী গ্যাসের পাইপলাইন স্থাপনের কাজ পেয়েছে। সম্প্রতি সংবাদমাধ্যমে কোম্পানিটি নিয়ে এ ধরনের ভুয়া সংবাদ প্রচারের প্রেক্ষিতে শেয়ারটির দর ও লেনদেন অস্বাভাবিক গতিতে বাড়ছিল। এ ব্যাপারে ডিএসইর অনুসন্ধানের পরিপ্রেক্ষিতে কোম্পানি কর্তৃপক্ষ জানিয়েছে এসব সংবাদের কোনো ভিত্তি নেই। এর ফলে গতকাল দরপতন হয় কোম্পানিটির।
ওষুধ ও রসায়ন খাতে লেনদেন হয় ১৬ শতাংশ। দর বেড়েছে ৬২ শতাংশ কোম্পানির। বীকন ফার্মার সাড়ে ১০ কোটি টাকা লেনদেন হয়, দরপতন হয় ৯০ পয়সা। জেএমআই সিরিঞ্জের ১০ কোটি টাকা লেনদেন হয়, দরপতন হয় ১৪ টাকা। বস্ত্র খাতে ১০ শতাংশ লেনদেন হয়, দর বেড়েছে ৪৫ শতাংশ কোম্পানির। দর বৃদ্ধির শীর্ষ দশের মধ্যে উঠে আসে ভিএফএস থ্রেড ডায়িং, স্টাইল ক্রাফট ও এমএল ডায়িং। এসব শেয়ারের দর পাঁচ থেকে সাড়ে ৯ শতাংশ বেড়েছে। স্টাইল ক্রাফটের ১৩ কোটি টাকা লেনদেন হয়। টেলিযোগাযোগ, সিরামিক এবং সেবা ও আবাসন খাত শতভাগ ইতিবাচক ছিল। বাংলাদেশ সাবমেরিন কেব্লসের সাড়ে ১০ কোটি টাকা লেনদেন হয়, দর বেড়েছে পাঁচ টাকা ২০ পয়সা। খাদ্য খাতের বিএটিবিসির সাড়ে ৯ কোটি টাকা লেনদেন হয়। দর বেড়েছে ৬৯ টাকা। কোম্পানিটি দর বৃদ্ধির শীর্ষ দশে উঠে আসে। এ তালিকায় থাকা জেমিনি সি ফুডের দর সাড়ে ছয় শতাংশ বেড়েছে। এছাড়া সিমেন্ট খাতে ৭১ শতাংশ, তথ্য ও প্রযুক্তি খাতে ৬৬ শতাংশ, পাট খাতে ৬৬ শতাংশ কোম্পানির শেয়ারদর বেড়েছে।

সর্বশেষ..