প্রিন্ট করুন প্রিন্ট করুন

শাবিপ্রবি ক্যারিয়ার ক্লাব

চারদিকে সবুজ। মাঝখান দিয়ে বয়ে গেছে আঁকাবাঁকা পিচঢালা পথ। এমন মনোরম পরিবেশে একটু আলসেমি ভর করতেই পারে! কিন্তু না, শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের ক্যারিয়ার ক্লাব (সাস্টসিসি) সদস্যদের দিন কাটে ব্যস্ততায়। তাদের গল্প শোনাচ্ছেন হাসান আদিল

সাস্ট ক্যারিয়ার ক্লাব যাত্রার শুরু থেকেই বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের ডেভেলপমেন্টের জন্য বিভিন্ন সেমিনার, ওয়ার্কশপ, জব ফেয়ারসহ আরও বিভিন্ন ধরনের বৈচিত্র্যপূর্ণ প্রোগ্রাম আয়োজন করে আসছে। রিসোর্সফুল বিভিন্ন  আয়োজনের মাধ্যমে ক্লাব যাতে দিন দিন আরও সমৃদ্ধশালী হয়, বিভিন্ন প্রতিযোগিতায় অংশ নিয়ে যাতে সুনাম বয়ে আনতে পারেÑ এসব ব্যাপারে আমারা সবসময় সচেষ্ট, বললেন ক্লাবের সভাপতি সাকিব হাসান।

ক্লাব সদস্যদের মাঝে নানামাত্রিক যোগ্যতার সংযোজনকল্পে রয়েছে এ সংগঠনের তিনটি শাখা স্কুল। যার মাধ্যমে একজন ক্লাব সদস্য নিজেকে ভবিষ্যতের জন্য উপযুক্ত করে তুলতে পারেন। স্কুল তিনটি হচ্ছেÑ

স          স্কুল অব স্কিল ডেভেলাপমেন্ট

স          স্কুল অব নলেজ ডেভেলাপমেন্ট

স          স্কুল অব এন্ট্রাপ্রেনিউরশিপ ডেভেলাপমেন্ট

ক্লাবের মিশন

ক্লাব সবসময় শুধু সদস্যদের নিয়ে ভাবে না। ক্লাবের ভাবনায় সমগ্র বিশ্ববিদ্যালয়। যা তার মিশনগুলোতে প্রতীয়মান। তিনটি মিশন নিয়ে সাস্ট ক্যারিয়ার ক্লাবের কার্যক্রম পরিচালিত হয়।

স          বিভিন্ন ক্যারিয়ারমুখী ইভেন্ট এবং সেমিনার আয়োজনের মাধ্যমে শাবিপ্রবির শিক্ষার্থীদের যোগ্যতা বৃদ্ধি, শিক্ষাগত মানোন্নয়নে সহযোগিতা এবং পেশাগত দক্ষতা বৃদ্ধিতে সহযোগিতা করা।

স          শাবিপ্রবির শিক্ষার্থীদের ক্যারিয়ারমুখী করার পাশাপাশি চিন্তা-পরিক্রমা এবং দৃষ্টি প্রসারিতকরণে সহযোগিতা।

স          শিক্ষার্থীদের পেশাগত লক্ষ্যে পৌঁছাতে সহযোগিতা করা।

ক্যারিয়ার নিয়ে বিশ্ববিদ্যালয় পর্ব শেষ হওয়ার আগে চিন্তা করতেই হয়। এ চিন্তা অনেক সময় দুশ্চিন্তায় রূপ নিতে বাধ্য, যদি না আগে থেকে যথাযথ প্রস্তুতি থাকে। সে ক্ষেত্রে অনেকটা পথ এগিয়ে দেয় এ সংগঠন। ক্যারিয়ারমুখী নানা পদক্ষেপ গ্রহণের পাশাপাশি সেমিনার ও কর্মশালার আয়োজন ক্লাবকে নিয়ে গেছে ক্যাম্পাসের প্রথম সারির সংগঠনগুলোর কাতারেÑ এমন দাবি স্কুল অব ক্যারিয়ার ডেভলাপমেন্টের সহ-সভাপতি সুচিত্রা সেন তানির।

ক্লাবের ভিশন

স          শাবিপ্রবির সাবেক ও বর্তমান শিক্ষার্থীদের মাঝে মেলবন্ধন তৈরি করা।

স          শাবিপ্রবির প্রতিটি শিক্ষার্থীকে দেশের জন্য সম্পদে পরিণত করা।

স          দেশ ও দেশের বাইরে শাবিপ্রবির প্রতিটি বিভাগকে সুপরিচিত করে তোলা।

ক্লাবের অর্জন

২০১২ সালের ১৪ ফেব্রুয়ারি পথচলা শুরু। এরপর থেকে ক্লাব শাবিপ্রবির শিক্ষার্থীদের জন্য ক্যারিয়ারমুখী নানা কর্মশালা ও সেমিনারসহ বিভিন্ন ইভেন্টের আয়োজন করে আসছে। এসবের মধ্যে ২০১২ সালে দিনব্যাপী বিসিএস প্রিলি কর্মশালা, বিদেশে উচ্চশিক্ষার নির্দেশামূলক সেমিনার, জিআরই-জিমেট নিয়ে কর্মশালা, বিডি জবসে’র উদ্যোগে ‘জার্নি টু ক্যারিয়ার’ কর্মশালা, ফ্রিল্যান্স আউটসোর্সিং-এর ওপর কর্মশালা, ‘মোটিবেশনাল স্পিচ বাই সাবিরুল ইসলাম’ কর্মশালা, ‘ক্যারিয়ার ইন টেলিকম সেক্টর’ বিষয়ক সেমিনার, ‘হায়ার স্টাডি ইন কানাডা’ বিষয়ক সেমিনার, ‘সাপ্লাই চেইন মেনেজমেন্ট’ বিষয়ক সেমিনার উল্লেখযোগ্য। পড়ালেখার পাশাপাশি বিশ্ববিদ্যালয়ে বিভিন্ন ধরনের অতিরিক্ত কার্যপরিক্রমের জন্য ২০১৫ সাল থেকে ক্লাব চালু করে ‘সাস্টসিসি অ্যাওয়ার্ড’। দশটি ক্যাটাগরিতে এ সম্মাননা প্রদান করা হয়। এছাড়া ক্লাব সদস্যদের চাঙা রাখতে আয়োজিত হয় ‘সাস্টসিসি ফেস্টিভাল’। ‘স্ফূরণ’ নামে একটি বার্ষিক প্রকাশনাও আছে ক্লাবটির।

ক্লাবের সদস্যদের যোগ্য করে তুলতে সপ্তাহে একদিন বিসিএস-জিআরই-পাবলিক স্পিকিং এর ওপর আড্ডা হয়। পাশাপাশি আয়োজন করা হয় আলোচনা অনুষ্ঠান ‘ক্যারিয়ার টক’। তাছাড়া চালু হতে যাচ্ছে আরেক আলোচনা অনুষ্ঠান ‘নলেজ টক’, যা আমাদের শাবিপ্রবির শিক্ষকদের মাধ্যমে পরিচালিত হবে, জানিয়েছেন ক্লাবের সাধারণ সম্পাদক মোস্তাফিজুর রহমান মিল্টন।