সারা বাংলা

শার্শায় চুরি হওয়া শিশু তিন দিন পর উদ্ধার

প্রতিনিধি, বেনাপোল (যশোর): যশোরের শার্শা উপজেলার বাগআঁচড়া থেকে চুরি হওয়া শিশু তাসিনকে তিনদিন পর উদ্ধার করেছে পুলিশ। এছাড়া এ ঘটনায় দু’জনকে আটক করা হয়েছে। উদ্ধারের পর শিশুটিকে পুলিশ তার মা-বাবার কাছে ফিরিয়ে দেয়া হয়েছে। শিশু তাসিন উদ্ধারের তথ্যটি জানান বাগআঁচড়া পুলিশ ফাঁড়ির ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা উত্তম কুমার বিশ্বাস। এর সঙ্গে জড়িত অভিযোগে আটক দু’জন হলেন সালমা খাতুন (২৩) ও লুৎফর গাজী (৫৫)। সালমা খাতুন কলারোয়া সোনাবাড়িয়া গ্রামের মিলন গাজীর স্ত্রী। এছাড়া লুৎফর গাজী একই গ্রামের বাছের গাজীর ছেলে। তারা সম্পর্কে বউমা ও শ্বশুর।

জানা যায়, গত ২০ জানুয়ারি অপরিচিত এক নারী এনজিওকর্মী শিশু তাসিনদের বাসায় গিয়ে গর্ভবতী কার্ড করে দেবে বলে লোভ দেখায়। সে মোতাবেক অপরিচিত ওই নারী এনজিওকর্মী তাদের বাড়ি গিয়ে গত বুধবার সকালে ৩০ হাজার টাকা দেবে বলে তাসিনের মা ও দাদাকে বাগআঁচড়া বাজারে নিয়ে আসে। একপর্যায়ে উভয়ে নাশতা করার জন্য বাগআঁচড়া বাজারের রিফাত হোটেলে প্রবেশ করে। পরে ওই এনজিওকর্মী তাসিনের মা ও দাদাকে নাশতা করায় এবং তাসিনকে নিজের কাছে নিয়ে হোটেল থেকে কৌশলে পালিয়ে যায়। পরে অনেক খোঁজাখুঁজি করেও শিশু তাসিন এবং ওই এনজিওকর্মী পরিচয় দেয়া নারীকে খুঁজে পাওয়া যায়নি।

এরপর গত ২০ জানুয়ারি থেকে শিশু তাসিনকে উদ্ধারে তল্লাশি কার্যক্রম শুরু করে পুলিশ। পরে শার্শা থানা পুলিশ, বাগআঁচড়া ফাঁড়ি ও পিবিআইয়ের যৌথ প্রচেষ্টায় শনিবার রাতে সাতক্ষীরা জেলার কলারোয়া থানার সোনাবাড়িয়া গ্রাম থেকে উদ্ধার করা হয় শিশু তাসিনকে।

বাগআঁচড়া ফাঁড়ির ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা উত্তম কুমার বিশ্বাস বলেন, ‘শিশু তাসিন চুরি হওয়ার পর আমরা তাকে উদ্ধারের জন্য মাঠে নামি। সঙ্গে শার্শা থানার পুলিশ ও পিবিআইয়ের সহযোগিতায় কলারোয়া সোনাবাড়িয়া থেকে উদ্ধার করতে সক্ষম হই। এর সঙ্গে জড়িত থাকার অপরাধে বউমা ও শ্বশুরকে আটক করা হয়েছে।’

প্রিন্ট করুন প্রিন্ট করুন

সর্বশেষ..