শোবিজ

শুরু হচ্ছে গঙ্গা-যমুনা সাংস্কৃতিক উৎসব

শোবিজ ডেস্ক: শুরু হচ্ছে গঙ্গা-যমুনা সাংস্কৃতিক উৎসব-২০১৯। গত সাত বছর ধরে ভারত-বাংলাদেশের নাট্য ও সাংস্কৃতিক সংগঠন এ উৎসবের আয়োজন করে আসছে। দুদেশের অভিন্ন সংস্কৃতির অভিজ্ঞতা বিনিময় এবং জনগণের মৈত্রীর বন্ধন দৃঢ় করার লক্ষ্যে এটি আয়োজন করা হয়। আগামী ১১ অক্টোবর বাংলাদেশ শিল্পকলা একাডেমিতে ১০ দিনব্যাপী এ উৎসব শুরু হবে। আর এটি সংস্কৃতিবিষয়ক মন্ত্রণালয়, বাংলাদেশ শিল্পকলা একাডেমি ও ইন্ডিয়া-বাংলাদেশ ফাউন্ডেশনের সহযোগিতায় আয়োজন করা হয়েছে। গঙ্গা-যমুনা নাট্যোৎসব পর্ষদ জানিয়েছে, ওইদিন সন্ধ্যা ৬টায় বাংলাদেশ শিল্পকলা একাডেমির জাতীয় নাট্যশালা মিলনায়তনে উৎসবের উদ্বোধন করবেন বিশিষ্ট নাট্যজন আসাদুজ্জামান নূর, এমপি ও মেঘনাদ ভট্টাচার্য। এতে প্রধান অতিথি থাকবেন সংস্কৃতিবিষয়ক প্রতিমন্ত্রী কেএম খালিদ, এমপি। এছাড়াও অতিথি হিসেবে উপস্থিত থাকবেন বাংলাদেশ গ্রুপ থিয়েটার ফেডারেশনের চেয়ারম্যান ও বাংলাদেশ শিল্পকলা একাডেমির মহাপরিচালক লিয়াকত আলী লাকী, সেক্রেটারি জেনারেল কামাল বায়েজীদ, ইন্দিরা গান্ধী সাংস্কৃতিক কেন্দ্রের পরিচালক ড. নিপা চৌধুরী, বাংলাদেশ পথনাটক পরিষদের সভাপতি মান্নান হীরা। উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে স্বাগত বক্তব্য রাখবেন উৎসব পর্ষদের সদস্য সচিব আকতারুজ্জামান। এতে সভাপতিত্ব করবেন উৎসব পর্ষদের আহ্বায়ক গোলাম কুদ্দুছ। অনুষ্ঠানটি উপস্থাপনা করবেন আহকাম উল্লাহ। উল্লেখ্য, এ উৎসব চলবে ১০ দিনব্যাপী। এতে ভারতের চারটি, ঢাকা ও ঢাকার বাইরের ৩৬টি নাট্যদল মোট ৪০টি মঞ্চনাটক প্রদর্শন করবে। বাংলাদেশ শিল্পকলা একাডেমির জাতীয় নাট্যশালা মিলনায়তন, পরীক্ষণ থিয়েটার হল, স্টুডিও থিয়েটার হল এবং সংগীত আবৃত্তি ও নৃত্য মিলনায়তন, বাংলাদেশ মহিলা সমিতির ড. নীলিমা ইব্রাহিম মিলনায়তনে এসব নাটক মঞ্চস্থ হবে। এছাড়া ১৫টি আবৃত্তি সংগঠন, ১৫টি সংগীত সংগঠন, সাতটি নৃত্য সংগঠন, তিনটি মূকাভিনয় সংগঠন, ১০টি শিশুদল এবং একক আবৃত্তি ও একক সংগীত পরিবেশনাও থাকবে। সব মিলিয়ে আনুমানিক তিন হাজার শিল্পীর অংশগ্রহণের মধ্য দিয়ে এবারের উৎসব পালিত হবে।

প্রিন্ট করুন প্রিন্ট করুন

সর্বশেষ..