কোম্পানি সংবাদ পুঁজিবাজার

শুল্কমুক্ত মেরিন ফুয়েল বিক্রি করবে যমুনা অয়েল

নিজস্ব প্রতিবেদক: শুল্কমুক্ত মেরিন ফুয়েল (সামুদ্রিক জ্বালানি) বিক্রির সিদ্ধান্ত নিয়েছে যমুনা অয়েল কোম্পানি লিমিটেড। আইএমও রেগুলেশন অনুযায়ী কোম্পানিটি মেরিন ফুয়েল বিক্রি করবে। ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জ (ডিএসই) সূত্রে এ তথ্য জানা গেছে।

প্রাপ্ত তথ্যমতে, যমুনা অয়েল কোম্পানিকে বাংলাদেশ পেট্রোলিয়াম করপোরেশন শুল্কমুক্ত মেরিন ফুয়েল বিক্রির জন্য দাম নির্ধারণ করে দিয়েছে। এতে কোম্পানিটি চট্টগ্রাম ও মোংলা বন্দরে দেশি-বিদেশি জাহাজের জন্য মেরিন ফুয়েল সরবরাহ করতে পারবে। কোম্পানিটি প্রতি লিটার মেরিন ফুয়েল বিক্রি করে ৫৫ পয়সা মার্জিন পাবে।

এদিকে কোম্পানিটির তৃতীয় প্রান্তিকে (জানুয়ারি-মার্চ, ২০২০) শেয়ারপ্রতি আয় হয়েছে তিন টাকা ৭৯ পয়সা, যা আগের বছর একই সময় ছিল দুই টাকা ৭৮ পয়সা। এছাড়া ২০২০ সালের ৩১ মার্চ শেয়ারপ্রতি সম্পদমূল্য দাঁড়িয়েছে ১৫৬ টাকা ৪১ পয়সা, যা ২০১৯ সালের ৩০ জুন ছিল ১৬৭ টাকা ৬১ পয়সা। এছাড়া প্রথম তিন প্রান্তিকে (জুলাই ২০১৯-মার্চ ২০২০) কোম্পানিটির শেয়ারপ্রতি নগদ অর্থপ্রবাহ দাঁড়িয়েছে ৪৭ টাকা ৮৪ পয়সা, আগের বছর একই সময়ে যা ছিল ৯৬ টাকা ৬৯ পয়সা (লোকসান)।

২০১৯ সালের ৩০ জুন সমাপ্ত হিসাববছরের নিরীক্ষিত আর্থিক প্রতিবেদন পর্যালোচনা করে কোম্পানিটি ১৩০ শতাংশ নগদ লভ্যাংশ ঘোষণা করেছে। আলোচিত সময়ে ইপিএস হয়েছে ২১ টাকা ১৯ পয়সা এবং শেয়ারপ্রতি নিট সম্পদমূল্য (এনএভি) দাঁড়িয়েছে ১৬৭ টাকা ৬১ পয়সা। আর ওই সময় মোট মুনাফা করেছে ২৩৩ কোটি ৯৫ লাখ ৮০ হাজার টাকা।

জ্বালানী ও বিদ্যুৎ খাতের কোম্পানিটি ২০০৭ সালে পুঁজিবাজারে তালিকাভুক্ত হয়ে বর্তমানে ‘এ’ ক্যাটেগরিতে অবস্থান করছে। ৩০০ কোটি টাকা অনুমোদিত মূলধনের বিপরীতে পরিশোধিত মূলধন ১১০ কোটি ৪২ লাখ ৫০ হাজার টাকা। রিজার্ভের পরিমাণ এক হাজার ৭৭৩ কোটি ২৯ লাখ টাকা।

এদিকে গতকাল ডিএসইতে কোম্পানিটির শেয়ারদর শূন্য দশমিক ৮৮ শতাংশ বা এক টাকা ৫০ পয়সা কমে প্রতিটি সর্বশেষ ১৬৮ টাকা ৭০ পয়সায় হাতবদল হয়, যার সমাপনী দর ছিল ১৬৮ টাকা ৮০ পয়সা। দিনজুড়ে ২১ হাজার ১৪৩টি শেয়ার মোট ১০৭ বার হাতবদল হয়, যার বাজারদর ৩৫ লাখ ৭০ হাজার টাকা। দিনভর শেয়ারদর সর্বনিম্ন ১৬৮ টাকা ৬০ পয়সা থেকে সর্বোচ্চ ১৭১ টাকায় হাতবদল হয়।

প্রিন্ট করুন প্রিন্ট করুন

সর্বশেষ..