Print Date & Time : 7 March 2021 Sunday 1:12 am

শেয়ারের দর বৃদ্ধির তদন্ত স্থগিত করেছে বিএসইসি

প্রকাশ: January 13, 2021 সময়- 11:31 pm

নিজস্ব প্রতিবেদক: পুঁজিবাজারে কোনো কারসাজি হচ্ছে কি নাÑতা জানতে এবং পুঁজিবাজার উন্নয়নের স্বার্থে জারি করা তদন্তের আদেশ স্থগিত করেছে নিয়ন্ত্রক সংস্থা বাংলাদেশ সিকিউরিটিজ অ্যান্ড এক্সচেঞ্জ কমিশনের (বিএসইসি)। গত মঙ্গলবার দুই পুঁজিবাজারের ব্যবস্থাপনা পরিচালকদের দেয়া নির্দেশনার এ আদেশটি গতকাল স্থগিত করে বিএসইসি।

আদেশ স্থগিতের বিষয়ে জানতে চাইলে শেয়ার বিজকে বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন বিএসইসির কমিশনার অধ্যাপক ড. শামসুদ্দিন আহমেদ।

তিনি বলেন, ‘আমরা কোনো নির্দিষ্ট কোম্পানির বিষয়ে তদন্তের নির্দেশ দেইনি। রুটিন ওয়ার্কের মতোই একটি ওপেন গাইডলাইন ছিল দুই সিইওর প্রতি। এছাড়া পুঁজিবাজারের উন্নয়নের স্বার্থে কোম্পানিগুলোর অস্বাভাবিক দর উঠা-নামা, শেয়ারপ্রতি আয় (ইপিএস) অস্বাভাবিক পরিবর্তন খতিয়ে দেখার জন্য স্টক এক্সচেঞ্জকে নির্দেশনা দেয়া হয়েছিল। সেটি স্থগিত করা হয়েছে।’

তিনি আরও বলেন, বাজারে যেন কেউ কোনো কারসাজি করতে না পারে তার পূর্ব সতর্কতামূলক ব্যবস্থা কমিশন সবসময়ই নিয়ে থাকে এবং ভবিষ্যতেও নেবে। তবে এ সতর্কতাকে কেউ ভুলভাবে ব্যাখ্যা করে বাজার যেন অস্থিতিশীল করতে না পারে সেই বিষয়েও সচেষ্ট থাকতে হবে সবাইকে।

প্রসঙ্গত, গত ১১ জানুয়ারি বিএসইসির উপপরিচালক মোহাম্মদ শামসুর রহমান স্বাক্ষরিত একটি চিঠি ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জের (ডিএসই) ব্যবস্থাপনা পরিচালক, চট্টগ্রাম স্টক এক্সচেঞ্জের (সিএসই) এবং দুই স্টক এক্সচেঞ্জের প্রধান নিয়ন্ত্রক কর্মকর্তাদের (সিআরও) দেয়া হয়েছে। চিঠিতে চারটি নির্দেশনা দেয়া হয়েছিল। নির্দেশনা পরিপালন করার জন্য সময় দেয়া হয় ৪৫ কার্যদিবস। নির্ধারিত সময়ের মধ্যে বাংলাদেশ সিকিউরিটিজ অ্যান্ড এক্সচেঞ্জ কমিশনে (বিএসইসি) প্রতিবেদন জমা দেয়ার নির্দেশনাও দেয়া হয়েছিল চিঠিতে।

চিঠিতে উল্লেখ করা চারটি নির্দেশনা ছিল পুঁজিবাজারে গত ৩০ কার্যদিবসে যেসব কোম্পানির শেয়ারের দাম ৫০ শতাংশ বেড়েছে বা কমেছে, সেসব কোম্পানির শেয়ার লেনদেন তদন্ত করতে ঢাকা ও চট্টগ্রাম স্টক এক্সচেঞ্জকে নির্দেশ। এসব কোম্পানির অস্বাভাবিক মূল্য বৃদ্ধির পেছনে কোনো কারসাজি, ইনসাইডার ট্রেডিং বা অন্য কোনো কারণ রয়েছে কি না, তা খতিয়ে দেখতেই তদন্তের নির্দেশ দেয়া হয়েছিল।

দ্বিতীয়ত, যেসব কোম্পানির প্রান্তিক কিংবা বার্ষিক আয় আগের বছরের তুলনায় ৫০ শতাংশ বা তার বেশি তারতম্য ঘটেছে, তাও খতিয়ে দেখার নির্দেশনা দেয়া হয়। তৃতীয়ত, গত এক মাসে যেসব কোম্পানির শেয়ারের লেনদেন আগের ছয় মাসের তুলনায় পাঁচগুণ বা তার চেয়ে বেশি বেড়েছে, তাও তদন্ত করতে বলা হয় বিএসইসির দেয়া চিঠিতে।

চতুর্থত, কোনো কোম্পানির মূল্য সংবেদনশীল তথ্য প্রকাশের আগের ১০ দিনে শেয়ারের মূল্য ও লেনদেন ৩০ শতাংশ বা তার কম-বেশি বেড়ে থাকলে তাতে কোনো কারসাজি বা ইনসাইডার ট্রেডিং হয়েছে কি না, সেটিও খুঁজে দেখতে বলা হয় স্টক এক্সচেঞ্জ কর্তৃপক্ষ। তবে বিএসইসির নির্দেশনায় সুনির্দিষ্টভাবে কোনো কোম্পানির বিরুদ্ধে তদন্তের কথা বলা হয়নি।