দিনের খবর প্রচ্ছদ প্রথম পাতা বাজার বিশ্লেষণ

শেয়ার কেনার চাহিদা বেশি ছিল বস্ত্র বিমা আর্থিক খাতে

রুবাইয়াত রিক্তা: পুঁজিবাজারে গতকাল বেশিরভাগ শেয়ারের দর বাড়লেও সূচক সে অনুপাতে ইতিবাচক হতে পারেনি। অন্যদিকে লেনদেন কমেছে ১৩৪ কোটি টাকা। ব্যাংক ছাড়া অন্য বৃহৎ খাতগুলোতে দর বৃদ্ধির হার তুলনামূলক বেশি ছিল। ছোট খাতগুলোর মধ্যে কয়েকটি নেতিবাচক অবস্থানে ছিল। শেয়ার কেনার চাহিদা বেশি ছিল বস্ত্র, বিমা ও আর্থিক খাতে। অন্যদিকে ব্যাংক খাত ছাড়াও স্কয়ার ফার্মা, বিএটিবিসি, পাওয়ার গ্রিড ও ইউনাইটেড পাওয়ারের বড় দরপতন সূচকের উত্থানে বাধা দিয়েছে। এছাড়া বস্ত্র ও বিমা খাতের অধিকাংশ কোম্পানি ছোট মূলধনি হওয়াতে সূচক দর বৃদ্ধির অনুপাতে ইতিবাচক হতে পারেনি।

১৫ শতাংশ লেনদেন হয়ে বস্ত্র খাত শীর্ষে উঠে আসে। এ খাতে ৫৯ শতাংশ কোম্পানির দর বেড়েছে। কাট্টলী টেক্সটাইলের ৯ কোটি ৮২ লাখ টাকা লেনদেন হয়। দর বেড়েছে ৬০ পয়সা। দর বৃদ্ধির শীর্ষে অবস্থান করা আলিফ ম্যানুফ্যাকচারিংয়ের ছয় কোটি ৬৫ লাখ টাকা লেনদেন হয়। দর বেড়েছে ৭০ পয়সা। গতকাল সার্কিট ব্রেকারের সর্বোচ্চ সীমায় লেনদেন হয়ে এ কোম্পানিটির শেয়ার। এছাড়া মেট্রো স্পিনিং, জাহিন স্পিনিং, ফ্যামিলি টেক্সটাইল ও ম্যাকসন্স স্পিনিং দর বৃদ্ধির শীর্ষ দশের তালিকায় উঠে আসে। ১২ শতাংশ করে লেনদেন হয় প্রকৌশল, ওষুধ ও রসায়ন এবং বিমা খাতে। প্রকৌশল খাতে ৪৭ শতাংশ কোম্পানির দর বেড়েছে। ন্যাশনাল টিউবসের সাড়ে ১৪ কোটি টাকা লেনদেন হয়। দরপতন হয় ১৬ টাকা ৩০ পয়সা। ইয়াকিন পলিমারের দর ৯ দশমিক ২৭ শতাংশ বেড়েছে। ওষুধ ও রসায়ন খাতে ৪৬ শতাংশ কোম্পানির দর বেড়েছে। স্কয়ার ফার্মার ১০ কোটি ২৫ লাখ টাকা লেনদেন হয়। দরপতন হয় তিন টাকা ৮০ পয়সা। বিমা খাতে ৫৭ শতাংশ কোম্পানির দর বেড়েছে। প্যারামাউন্ট ইন্স্যুরেন্স দর বৃদ্ধির শীর্ষ দশে অবস্থান করে। ব্যাংক খাতে ১১ শতাংশ লেনদেন হলেও মাত্র ২৩ শতাংশ কোম্পানির দর বেড়েছে। ৩০ পয়সা বেড়ে প্রিমিয়ার ব্যাংক দর বৃদ্ধির শীর্ষ দশে অবস্থান করে। আর্থিক খাতে লেনদেন বেড়েছে দুই শতাংশ। এ খাতে ৮২ শতাংশ কোম্পানির দর বেড়েছে। লংকাবাংলা ফাইন্যান্সের ১০ কোটি টাকা লেনদেন হয়। দর বেড়েছে এক টাকা। সিমেন্ট খাতের লাফার্জহোলসিম বাংলাদেশের সাড়ে সাত কোটি টাকা লেনদেন হয়। দর বেড়েছে সাড়ে তিন টাকা বা ১০ শতাংশ। এ কোম্পানিটিও গতকাল সার্কিট ব্রেকারের সর্বোচ্চ সীমায় লেনদেন করে। খাদ্য খাতের বঙ্গজের দর প্রায় ১০ শতাংশ ও সিরামিক খাতের ফু ওয়াং সিরামিকের দর সাড়ে ৯ শতাংশ বেড়ে কোম্পানি দুটি দর বৃদ্ধির শীর্ষ দশের মধ্যে উঠে আসে। চামড়া খাতের ফরচুন শুজের প্রায় ১৫ কোটি টাকা লেনদেন হলেও ৬০ পয়সা দরপতন হয়।

প্রিন্ট করুন প্রিন্ট করুন

সর্বশেষ..