প্রিন্ট করুন প্রিন্ট করুন

শেরপুরে একই দিনে চারজনের অপমৃত্যু

প্রতিনিধি,শেরপুর : শেরপুর জেলায় পৃথক ঘটনায় একই দিনে চারজনের অপমৃত্যুর খবর পাওয়া গেছে। তারা হলো ঝিনাইগাতি উপজেলায় এসএসসি পরীক্ষার্থী কুতুব উদ্দিন (১৮)। সে বিদ্যুৎস্পৃষ্টে মারা গেছে। এছাড়া একই উপজেলার মায়া আক্তার মৌ (১২) নামে এক মাদ্রাসা শিক্ষার্থী ফাঁসিতে ঝুলে এবং নকলায় আজুফা (৩০) নামে এক গৃহবধূ ফাঁসিতে ঝুলে আত্মহত্যা করেছেন। অপরদিকে নালিতাবাড়ি উপজেলায় শাহনাজ পারভীন নামে এক গৃহবধূকে শ্বাসরোধে হত্যা করেছে তার স্বামী। উল্লিখিত ঘটনায় বিভিন্ন থানায় পৃথক মামলা দায়ের করা হয়েছে।

পুলিশ ও স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, গতকাল মঙ্গলবার সন্ধ্যায় জেলার ঝিনাইগাতী উপজেলার ধানশাইল ইউনিয়নের চকপাড়া গ্রামের শহীদুল্লাহর ছেলে কুতুব উদ্দিন তাদের সেচপাম্পের বিদ্যুতের ছেড়া তার জোড়া দিতে গিয়ে বিদ্যুৎস্পৃষ্ট হয়ে ঘটনাস্থলেই মারা যায়। কুতুব উদ্দিন এবার এসএসসি পরীক্ষার্থী ছিল। তার মৃত্যুতে এলাকায় শোকের ছায়া নেমে এসেছে।

এদিকে একই উপজেলার নলকুড়া ইউনিয়নের শালচুড়া গ্রামের আব্দুল মান্নানের মেয়ে ও শালচুড়া মহিলা মাদ্রাসার ৬ষ্ঠ শ্রেণির শিক্ষার্থী মায়া আক্তার মৌ মঙ্গলবার সন্ধ্যায় তার নিজ ঘরের ধরনার সাথে ওড়না পেঁচিয়ে আত্মহত্যা করে। তার আত্মহত্যার কারণ জানা যায়নি। তবে পুলিশ বলছে, ময়নাতদন্ত শেষে তার মৃত্যুর প্রকৃত কারণ জানা যাবে।

অপরদিকে জেলার নকলা উপজেলার উরফা ইউনিয়নের দক্ষিণ লয়খা গ্রামের নিজ ঘরের ধরনার সাথে অজুফা নামের এক গৃহবধূ ফাঁস দিয়ে আত্মহত্যা করেছেন। মঙ্গলবার রাতে এ ঘটনা ঘটে। তিনি ওই গ্রামের আনারুল ইসলামের স্ত্রী।

স্থানীয় সূত্র ও পুলিশ জানায়, দীর্ঘদিন যাবৎ মানসিক সমস্যায় ভুগছিলেন অজুফা।

এদিকে একই দিন রাতে জেলার নালিতাবাড়ি উপজেলার গোল্লারপাড় গ্রামে জাহের আলী তার স্ত্রী শাহনাজ পারভীনকে নিজ ঘরে ঘুমিয়ে থাকা অবস্থায় শ্বাসরোধ করে হত্যা করেন। এ ঘটনায় পুলিশ স্বামীকে আটক করেছে। পারিবারিক সূত্রে জানা যায়, এক বছর আগে তাদের বিয়ে হয়। এর আগে জাহের আলী ও শাহনাজের একাধিক বিয়ে হয়েছিল। শাহনাজ-জাহেরের বিয়ের পর থেকেই সংসারে ঝামেলা চলছিল।