কোম্পানি সংবাদ পুঁজিবাজার

শেষার্ধে কেনার চাপে ডিএসইএক্স সূচক বেড়েছে ৮১ পয়েন্ট

নিজস্ব প্রতিবেদক: সপ্তাহের শেষদিনে উভয় বাজারে ইতিবাচক গতিতে লেনদেন হয়েছে। ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জে (ডিএসই) প্রথমার্ধে সূচকের ওঠানামার মধ্য দিয়ে লেনদেন চললেও বেলা ১২টার পর থেকে ক্রমান্বয়ে বাড়তে থাকে শেয়ার কেনার চাপ। সে সঙ্গে সূচকও ঊর্ধ্বমুখী হতে থাকে। তবে সাড়ে ১২টার পর থেকে কেনার গতি কিছুটা কমে এলেও ধীরে ধীরে ঊর্ধ্বমুখী হয় সূচক। শেষ পর্যন্ত ডিএসইএক্স সূচক ৮১ পয়েন্ট ইতিবাচক হয়। বাকি দুই সূচকও বেড়েছে। লেনদেন বেড়েছে সামান্য। চিটাগং স্টক এক্সচেঞ্জে (সিএসই) একই চিত্র লক্ষ করা গেছে।            

বাজার পর্যবেক্ষণে দেখা গেছে, গতকাল ডিএসইর প্রধান সূচক ডিএসইএক্স ৮১ দশমিক ৬২ পয়েন্ট বা দুই শতাংশ বেড়ে চার হাজার ১৪৯ দশমিক ৮২ পয়েন্টে অবস্থান করে।

ডিএসইএস বা শরিয়াহ্ সূচক ২৬ দশমিক শূন্য তিন পয়েন্ট বা দুই দশমিক ৮৪ শতাংশ বেড়ে ৯৪০ দশমিক ২৯ পয়েন্টে এবং ডিএস৩০ সূচক ৩৫ দশমিক ৩৬ পয়েন্ট বা দুই দশমিক ৫৭ শতাংশ বেড়ে এক হাজার ৪০৬ দশমিক ৫৯ পয়েন্টে অবস্থান করে। গতকাল ডিএসইর বাজার মূলধন চার হাজার ৮১২ কোটি টাকা বেড়ে দাঁড়িয়েছে তিন লাখ ১৯ হাজার ৩৭০ কোটি ৮৪ লাখ ৫৮ হাজার টাকায়। ডিএসইতে লেনদেন হয় ২৬৭ কোটি ৪৯ লাখ ১৪ হাজার টাকার শেয়ার ও মিউচুয়াল ফান্ডের ইউনিট। আগের কার্যদিবসে লেনদেন হয়েছিল ২৪২ কোটি ৮২ লাখ ৯৮ হাজার টাকার শেয়ার ও মিউচুয়াল ফান্ডের ইউনিট। এ হিসেবে লেনদেন বেড়েছে ২৪ কোটি ৬৬ লাখ টাকা। এদিন ১০ কোটি ১২ লাখ ৫৬ হাজার ৯৯২ শেয়ার এক লাখ ৯৯৫ বার হাতবদল হয়। লেনদেন হওয়া ৩৫৩ কোম্পানি ও মিউচুয়াল ফান্ডের মধ্যে দর বেড়েছে ১৯৪টির, কমেছে ১১২টির এবং অপরিবর্তিত ছিল ৪৭টির দর।

গতকাল টাকার অঙ্কে লেনদেনের শীর্ষে উঠে আসে স্কয়ার ফার্মা। কোম্পানিটির ২১ কোটি ৩২ লাখ টাকার শেয়ার লেনদেন হয়। দর বেড়েছে ১১ টাকা ১০ পয়সা। এরপর লাফার্জহোলসিম বাংলাদেশের ১১ কোটি ৩৬ লাখ টাকা লেনদেন হয়। দর কমেছে এক টাকা। এডিএন টেলিকমের ১১ কোটি শূন্য চার লাখ টাকা লেনদেন হয়। দর কমেছে চার টাকা। সি পার্ল রিসোর্টের ১০ কোটি ৯৯ লাখ টাকার শেয়ার লেনদেন হয়। দর বেড়েছে দুই টাকা ৯০ পয়সা। ব্র্যাক ব্যাংকের ৯ কোটি ৮৩ লাখ টাকা লেনদেন হয়। দর বেড়েছে এক টাকা ৪০ পয়সা। এছাড়া গ্রামীণফোনের আট কোটি ৯৪ লাখ, রিং শাইন টেক্সটাইলের পাঁচ কোটি ৮৬ লাখ, বীকন ফার্মার পাঁচ কোটি ৭৯ লাখ, খুলনা পাওয়ার কোম্পানির চার কোটি ৯০ লাখ, স্ট্যান্ডার্ড সিরামিকের চার কোটি ৭২ লাখ টাকার শেয়ার লেনদেন হয়।  

৯ দশমিক ৭০ শতাংশ বেড়ে আনলিমা ইয়ার্ন দর বৃদ্ধির শীর্ষে উঠে আসে। এরপর ইস্টার্ন ইন্স্যুরেন্সের আট দশমিক ৮১ শতাংশ, স্কয়ার ফার্মার সাত দশমিক ৪৬ শতাংশ, সি পার্ল রিসোর্টের সাত দশমিক ৩১ শতাংশ, সোনার বাংলা ইন্স্যুরেন্সের ছয় দশমিক ৬৪ শতাংশ, স্ট্যান্ডার্ড সিরামিকের পাঁচ দশমিক ৮২ শতাংশ, এফএএস ফাইন্যান্সের পাঁচ দশমিক ৭৬ শতাংশ, আইসিবি অগ্রণী ব্যাংক মিউচুয়াল ফান্ড ওয়ানের পাঁচ দশমিক ৭৬ শতাংশ, রিপাবলিক ইন্স্যুরেন্সের পাঁচ দশমিক ৩৮ শতাংশ ও স্ট্যান্ডার্ড ব্যাংকের দর পাঁচ দশমিক শূন্য ছয় শতাংশ বেড়েছে।   

৯ দশমিক ৬০ শতাংশ কমে দর পতনের শীর্ষে উঠে আসে এসএস স্টিল। এর পর রয়েছে এডিএন টেলিকমের সাড়ে ৯ শতাংশ, আজিজ পাইপসের আট দশমিক ৮৫ শতাংশ, ইউনাইটেড এয়ারের ছয় দশমিক ৬৬ শতাংশ, রিং শাইনের ছয় দশমিক ৩২ শতাংশ, হাইডেলবার্গ সিমেন্টের সোয়া পাঁচ শতাংশ, আরামিট সিমেন্টের পাঁচ শতাংশ, গোল্ডেন হার্ভেস্ট এগ্রোর চার দশমিক ৬৬ শতাংশ, নর্দান জুটের দর চার দশমিক ৬২ শতাংশ।          

অন্যদিকে সিএসইতে গতকাল সিএসসিএক্স মূল্যসূচক ১২৯ দশমিক ৯০ পয়েন্ট বা এক দশমিক ৭৩ শতাংশ বেড়ে সাত হাজার ৬৩৪ দশমিক ৭৬ পয়েন্টে এবং সার্বিক সূচক সিএএসপিআই ২০৭ দশমিক ৮১ পয়েন্ট বা এক দশমিক ৬৭ শতাংশ বেড়ে ১২ হাজার ৬০০ দশমিক ৮৫ পয়েন্টে অবস্থান করে। গতকাল সর্বমোট ২১৭ কোম্পানি এবং মিউচুয়াল ফান্ডের শেয়ার ও ইউনিট লেনদেন হয়। এর মধ্যে দর বেড়েছে ১০৩টির, কমেছে ৮৭টির, অপরিবর্তিত ছিল ২৭টির দর।

সিএসইতে এদিন আট কোটি ৬৩ লাখ ৬১ হাজার ৭১০ টাকার শেয়ার ও মিউচুয়াল ফান্ডের ইউনিট লেনদেন হয়। আগের কার্যদিবসে লেনদেন হয় সাত কোটি ৯৯ লাখ ১৭ হাজার ৩৩৮ টাকার শেয়ার ও মিউচুয়াল ফান্ডের ইউনিট। এ হিসেবে লেনদেন বেড়েছে ৬৪ লাখ ৪৪ হাজার টাকা।

সিএসইতে লেনদেনের শীর্ষে অবস্থান করে লাফার্জহোলসিম বাংলাদেশ। কোম্পানিটির ৮১ লাখ ৯০ হাজার টাকার শেয়ার লেনদেন হয়। এর পরের অবস্থানগুলোয় থাকা এডিএন টেলিকমের ৮১ লাখ ৫০ হাজার, সি পার্ল রিসোর্টের ৬৬ লাখ, স্কয়ার ফার্মার ৪৩ লাখ, এসএস স্টিলের সাড়ে ২১ লাখ, বিবিএস কেব্লসের প্রায় ২০ লাখ, বেক্সিমকোর সাড়ে ১৭ লাখ, লংকাবাংলা ফাইন্যান্সের ১৬ লাখ ও খুলনা পাওয়ারের ১৫ লাখ টাকার শেয়ার লেনদেন হয়।

প্রিন্ট করুন প্রিন্ট করুন

সর্বশেষ..