প্রিন্ট করুন প্রিন্ট করুন

শেষ দিনে বেশি দর বেড়েছে পাট খাতে!

নিজস্ব প্রতিবেদক: সপ্তাহের শেষ কার্যদিবস গতকাল দেশের পুঁজিবাজারে সূচকের উত্থানের মধ্য দিয়ে লেনদেন শেষ হয়েছে। এদিন দেশের প্রধান পুঁজিবাজার ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জের (ডিএসইর) সব সূচক বেড়েছে। তবে লেনদেন আগের দিনের তুলনায় কমেছে। এদিন ডিএসইতে লেনদেনে অংশ নেয়া বেশিরভাগ কোম্পানির শেয়ার ও ইউনিটদর অপরিবর্তিত রয়েছে। গতকাল সপ্তাহের শেষ কার্যদিবসে সূচকের উত্থানের সঙ্গে বিনিয়োগকারীদের আগ্রহ বেশি ছিল পাট খাতের শেয়ারে। এর ফলে আলোচিত খাতটিতে শেয়ারদর সবচেয়ে বেশি বেড়েছে। এরপর শেয়ারদর বেশি বেড়েছে আইটি খাতের শেয়ারে। এছাড়া বিনিয়োগকারীদের আগ্রহের দিক থেকে তৃতীয় ও চতুর্থ স্থানে যথাক্রমে রয়েছে কাগজ ও মুদ্রণ এবং ওষুধ ও রসয়ান খাতের শেয়ার।

বাজার পর্যালোচনায় দেখা যায়, গতকাল আগ্রহ বেশি থাকা পাট খাতের শেয়ারদর বেড়েছে ৫ দশমিক ৪০ শতাংশ। এদিন খাতটিতে মোট তিনটি কোম্পানির শেয়ার লেনদেন হয়েছে। লেনদেন হওয়া শেয়ারগুলোর মধ্যে দাম বেড়েছে দুটি কোম্পানির এবং কমেছে একটির। দ্বিতীয় স্থানে থাকা আইটি খাতের শেয়ারদর গতকাল বেড়েছে ১ দশমিক ৯০ শতাংশ। খাতটিতে গতকাল মোট ১১টি কোম্পানির শেয়ার লেনদেন হয়। এর মধ্যে দাম বেড়েছে সাতটি কোম্পানির শেয়ারের এবং কমেছে একটির। আর বাকি কোম্পানির শেয়ারদর অপরিবর্তিত রয়েছে। গতকাল শেয়ারদর বৃদ্ধির দিক থেকে তৃতীয় স্থানে থাকা কাগজ খাতের শেয়ারদর ১ দশমিক ৮০ শতাংশ বেড়েছে। আলোচিত খাতটিতে গতকাল মোট ছয়টি কোম্পানির শেয়ার লেনদেন হয়েছে। খাতটিতে লেনদেন হওয়া শেয়ারগুলোর মধ্যে তিনটির দাম বেড়েছে এবং দুটির কমেছে। এদিকে গতকাল বিনিয়োগকারীদের আগ্রহের চতুর্থ স্থানে রয়েছে ওষুধ খাতের কোম্পানির শেয়ার। এ খাতে গতকাল শেয়ারদর বেড়েছে ১ দশমিক ৪০ শতাংশ। খাতটিতে গতকাল মোট ৩২টি কোম্পানির শেয়ার লেনদেন হয়েছে। এর মধ্যে ১১টি কোম্পানির শেয়ারদর বেড়েছে এবং ১১টির শেয়ারদর কমেছে।

এদিকে গতকাল বিনিয়োগকারীদের আগ্রহ কম থাকায় শেয়ারদর বেশি কমেছে ভ্রমণ ও অবকাশ খাতের কোম্পানির শেয়ারে। খাতটিতে গতকাল শেয়ারদর কমেছে ২ দশমিক ৫০ শতাংশ। এরপর বেশি কমেছে সেবা ও আবাসন খাতের কোম্পানির শেয়ারে। এদিন সেবা খাতে শেয়ারদর কমেছে ১ দশমিক ৮০ শতাংশ। শেয়ারদর কমায় তৃতীয় স্থানে থাকা সিমেন্ট খাতের শেয়ারের দর কমেছে দশমিক ৬০ শতাংশ।

অপরদিকে গতকাল লেনদেনের দিক থেকে সবচেয়ে বেশি লেনদেন হয়েছে ওষুধ খাতে। খাতটিতে গতকাল ডিএসইর মোট লেনদেনের ২২ দশমিক ১০ শতাংশ লেনদেন হয়েছে। এরপর দ্বিতীয় স্থানে থাকা প্রকৌশল খাতে গতকাল ডিএসইর মোট লেনদেনের ১৬ দশমিক ৯০ শতাংশ লেনদেন হয়েছে। ১২ দশমিক ৯০ শতাংশ লেনদেন হওয়া বিবিধ খাত রয়েছে তৃতীয় স্থানে। গতকাল চতুর্থ স্থানে থাকা পেপার খাতে ডিএসইর মোট লেনদেনের ৬ দশমিক ৫০ শতাংশ লেনদেন হয়েছে।

গতকাল সপ্তাহের শেষ কার্যদিবসে ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জের (ডিএসই) প্রধান সূচক ডিএসইএক্স ২৪ দশমিক ৬৭ পয়েন্ট বা দশমিক ৩৭ শতাংশ বেড়ে দাঁড়িয়েছে ৬ হাজার ৫৬৯ দশমিক ৫০ পয়েন্টে। ডিএসইর অপর সূচকগুলোর মধ্যে শরিয়াহ্ সূচক ১২ দশমিক ৯৮ বা দশমিক ৯০ শতাংশ এবং ডিএসই-৩০ সূচক ১৮ দশমিক ৫২ পয়েন্ট বা দশমিক ৭৯ শতাংশ বেড়ে দাঁড়িয়েছে যথাক্রমে এক হাজার ৪৪৩ দশমিক ৪৭ পয়েন্টে এবং দুই হাজার ৩৬১ দশমিক ৫৬ পয়েন্টে।

ডিএসইতে গতকাল এক হাজার ১৬৯ কোটি ৮৩ লাখ টাকার লেনদেন হয়েছে, যা আগের কার্যদিবস থেকে ১২০ কোটি ৩৬ লাখ টাকা কম। আগের কার্যদিবস লেনদেন হয়েছিল এক হাজার ২৯০ কোটি ১৯ লাখ টাকার। গতকাল ডিএসইতে আজ ৩৭০টি প্রতিষ্ঠানের শেয়ার ও ইউনিট লেনদেন হয়েছে। এসব প্রতিষ্ঠানের মধ্যে শেয়ারদর বেড়েছে ৭৭টির বা ২০ দশমিক ৮১ শতাংশের, শেয়ারদর কমেছে ১০৩টির বা ২৭ দশমিক ৮৪ শতাংশের এবং ১৯০টির বা ৫১ দশমিক ৩৫ শতাংশের শেয়ার ও ইউনিটদর অপরিবর্তিত রয়েছে।