প্রিন্ট করুন প্রিন্ট করুন

শ্রদ্ধা ও ভালোবাসায় নিহতদের স্মরণ করলেন কূটনীতিকরা

হলি আর্টিজানে হামলার ছয় বছরপূর্তি

শেয়ার বিজ ডেস্ক : হলি আর্টিজানে জঙ্গি হামলায় নিহতদের প্রতি শ্রদ্ধা জানিয়েছেন বাংলাদেশে নিযুক্ত বিভিন্ন দেশের কূটনীতিকরা। ওই হামলার ঘটনার ছয় বছরপূর্তিতে গতকাল হলি আর্টিজান ভবনের সামনে নির্মিত অস্থায়ী বেদিতে পূষ্পস্তবক অর্পণের মাধ্যমে তারা নিহতদের স্মৃতির প্রতি গভীর  শ্রদ্ধা নিবেদন করেন। (বাসস)।

সকাল সাড়ে ৭টায় প্রথম শ্রদ্ধা জানান বাংলাদেশে নিযুক্ত জাপানের রাষ্ট্রদূত ইতো নাওকি। এরপর ইতালির রাষ্ট্রদূত ইনরিকো নুনজিয়াতা, যুক্তরাষ্ট্রের রাষ্ট্রদূত পিটার ডি হাস ও ভারতের হাইকমিশনার বিক্রম কুমার দোরাইস্বামী ফুল দিয়ে শ্রদ্ধা নিবেদন করেন।

বাংলাদেশে নিযুক্ত ভারতের হাইকমিশনার বিক্রম কুমার দোরাইস্বামী এক প্রতিক্রিয়ায় বলেন, ‘এটা খুবই মর্মান্তিক ঘটনা। বাংলাদেশের বন্ধু হিসেবে আমরা খুবই ব্যথিত। বাংলাদেশের পুলিশসহ সাধারণ মানুষ এ ঘটনায় প্রাণ হারিয়েছেন। আমাদের মনে রাখা উচিতÑঘটনাগুলো কেন ঘটেছে; আমাদের উচিত যৌথভাবে এসব মোকাবেলা করা, যাতে এ ধরনের ঘটনা আর না ঘটে।’

এক প্রতিক্রিয়ায় জাপানের রাষ্ট্রদূত ইতো নাওকি বলেন, ‘ছয় বছর আগের এ ঘটনায় আমাদের সাত নাগরিক মারা গেছেন। তারা সবাই জাইকার ঢাকা মেট্রো লাইন-১ প্রজেক্টে কাজ করতেন। তারা রিসার্চের কাজ করছিলেন। আমরা তাদের কখনও ভুলব না, ওইদিন কী ঘটেছিল তা আমরা কখনও ভুলব না! তিনি বলেন, বাংলাদেশের সঙ্গে জাপানের গুরুত্বপূর্ণ পার্টনারশিপ ও সম্পর্ক রয়েছে। এ সেপ্টেম্বরে লাইন-১-এর কাজ শুরু হবে। এ কাজটা চালিয়ে যাওয়া এবং শেষ করা আমাদের জন্য খুবই গুরুত্বপূর্ণ। এটা আমাদের দায়িত্ব।’

উল্লেখ্য, ২০১৬ সালের ১ জুলাই বাংলাদেশের ইতিহাসের সব থেকে বড় জঙ্গি হামলার ঘটনা ঘটে। সেদিনের ওই ভয়াল রাতে গুলশান-২-এর হলি আর্টিজান বেকারিতে এক নারকীয় হত্যাযজ্ঞ চালায় জঙ্গিরা। হামলায় নিহত হন দুই পুলিশ কর্মকর্তা ও ১৭ বিদেশি নাগরিকসহ মোট ২২ জন। সেদিন রাত ৮টা ৫০ মিনিট থেকে ১২ ঘণ্টা রুদ্ধশ্বাস এক জঙ্গি হামলার ভয়াবহতার সাক্ষী হয়েছিল গোটা জাতি। পরের দিন ২ জুলাই সকালে সেনাবাহিনীর প্যারা কমান্ডো সদস্যদের পরিচালিত ‘অপারেশন থান্ডারবোল্টে’ অবসান হয় জিম্মিদশার। ওই অপারেশনে নিহত হয় হামলাকারী পাঁচ জঙ্গি।

হলি আর্টিজান হামলায় সরাসরি অংশ নেয় উচ্চশিক্ষিত পাঁচ জঙ্গি। তারা জঙ্গি মতাদর্শে উদ্বুদ্ধ হয়ে দীর্ঘ প্রশিক্ষণ ও পরিকল্পনার অংশ হিসেবে এ নারকীয় ধ্বংসযজ্ঞ চালায়। হামলায় অংশ নেয় মালয়েশিয়ার মোনাশ ইউনিভার্সিটির ছাত্র নিবরাস ইসলাম, ব্র্যাক বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র রোহান ইবনে ইমতিয়াজ, স্কলাসটিকার সাবেক ছাত্র মীর সামিহ মোবাশ্বের, বগুড়ার বিগিগ্রাম ডিইউ সেন্ট্রাল ফাজিল মাদরাসার সাবেক ছাত্র খায়রুল ইসলাম পায়েল ও বগুড়ার সরকারি আযিযুল হক কলেজের ছাত্র শফিকুল ইসলাম উজ্জ্বল।

হামলায় যে দুই পুলিশ কর্মকর্তা নিহত হন, তারা হলেন ডিবির সহকারী কমিশনার (এসি) মো. রবিউল করিম ও বনানী থানার তৎকালীন ওসি মো. সালাহউদ্দিন খান। এছাড়া জঙ্গিদের হাতে নিহত আরও ২০ জনের মরদেহ উদ্ধার করা হয়। নিহতদের মধ্যে ৯ জন ইতালির, সাতজন জাপানের, একজন ভারতের এবং তিনজন বাংলাদেশের নাগরিক রয়েছেন।

এদিকে গুলশানের হলি আর্টিজানে হামলার ঘটনায় দায়েরকৃত মামলায় ২০১৯ সালের ২৭ নভেম্বর সাত আসামিকে মৃত্যুদণ্ড এবং এক আসামিকে খালাস দেন বিচারিক আদালত। ঢাকার সন্ত্রাসবিরোধী বিশেষ ট্রাইব্যুনালের বিচারক মোহাম্মদ মজিবুর রহমান এ রায় দেন।

দণ্ডপ্রাপ্তরা হলেন জাহাঙ্গীর হোসেন ওরফে রাজীব গান্ধী, আসলাম হোসেন ওরফে র‌্যাশ, আব্দুস সবুর খান, রাকিবুল হাসান রিগ্যান, হাদিসুর রহমান, শরিফুল ইসলাম ওরফে খালেদ ও মামুনুর রশিদ রিপন। এছাড়া ঘটনার সঙ্গে জড়িত থাকার বিষয়ে সন্দেহাতীতভাবে প্রমাণিত না হওয়ায় মিজানুর রহমান ওরফে বড় মিজানকে বেকসুর খালাস দেন আদালত।

একই বছরের ৩০ নভেম্বর মৃত্যুদণ্ডপ্রাপ্ত সাত আসামির ডেথ রেফারেন্স ও মামলার যাবতীয় নথি হাইকোর্টে আসে। এর পরই তৎকালীন প্রধান বিচারপতি সৈয়দ মাহমুদ হোসেন অগ্রাধিকার ভিত্তিতে এই মামলার পেপারবুক প্রস্তুতের নির্দেশ দেন। এরপর আসামিরা রায়ের বিরুদ্ধে আপিল করেন। আর রায়ে খালাস পাওয়া একজনের বিরুদ্ধে আপিল করে রাষ্ট্রপক্ষ।

অপরদিকে জঙ্গিসংশ্লিষ্টতার অভিযোগে দেশে এ পর্যন্ত দুই হাজার ৪১০ জনকে গ্রেপ্তার করেছে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী। এর মধ্যে র‌্যাবের হাতেই গ্রেপ্তার হয়েছে এক হাজার ৬৭৮ জন।

এদিকে জঙ্গি দমনের সঙ্গে যুক্ত পুলিশের দুটি ইউনিট গ্রেপ্তার করেছে ৭৩২ জনকে। এর মধ্যে পুলিশের কাউন্টার টেররিজম অ্যান্ড ট্রান্সন্যাশনাল ক্রাইম (সিটিটিসি) ইউনিটের সদস্যদের হাতে গ্রেপ্তার হয় ৫৫৯ জন এবং অ্যান্টি-টেররিজম ইউনিট (এটিইউ) গ্রেপ্তার করেছে ১৭৩ জনকে।