টেলকো টেক

সংকুচিত হতে পারে ফেসবুক গ্রুপ চ্যাটের পরিসর

জনপ্রিয় সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম ফেসবুকের অন্যতম জনপ্রিয় অ্যাপ গ্রুপ চ্যাট। যোগাযোগ সহজ করতে এর ভূমিকা অনস্বীকার্য। বন্ধুবান্ধব কিংবা পরিচিতজনদের নিয়ে কোথাও বেড়াতে যাওয়ার পরিকল্পনা করা, একসঙ্গে অনেক মানুষের সঙ্গে যোগাযোগ রক্ষা করা, গ্রুপ স্টাডি, অফিশিয়াল কর্মকাণ্ড সেরে নেওয়া, নিছক আড্ডা দেওয়া প্রভৃতি সহজ করেছে অ্যাপটি। এখন এ সেবাকে ব্যক্তিগত তথ্যের নিরাপত্তার খাতিরে বন্ধ করতে যাচ্ছে ফেসবুক।
২২ আগস্ট থেকে মেসেঞ্জারে গ্রুপ চ্যাট সেবা বন্ধ করে দেবে ফেসবুক। অবশ্য গ্রুপের আগের চ্যাটগুলো দেখা যাবে। শনিবার কমিউনিটি লিডারশিপ সার্কেল ফ্রম ফেসবুক এক পোস্টে এ তথ্য নিশ্চিত করেছে। ফেসবুক কমিউনিটিতেও এ-সংক্রান্ত বিস্তারিত জানানো হয়েছে।
ওই পোস্টে জানানো হয়েছে, সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম যে কাঠামোতে তৈরি করা হয়েছে, তার সঙ্গে ফেসবুকের গ্রুপ চ্যাট ফিচারটি মানানসই নয়। এছাড়া ব্যবহারকারীদের তথ্য সুরক্ষায় সব সময় কাজ করছে এ সামাজিক যোগাযোগের মাধ্যমটি। মূলত ব্যবহারকারীর নিরাপত্তা ইস্যুকে প্রাধান্য দিয়ে গ্রুপ চ্যাট ফিচারটি বন্ধ করে দেওয়া হচ্ছে বলে পোস্টে উল্লেখ করা হয়েছে। তবে গ্রুপ চ্যাট বন্ধ করা হলেও ফ্রেন্ডলিস্টে থাকা বন্ধুদের সঙ্গে গ্রুপ চ্যাট করা যাবে। লিস্টে নেই এমন বন্ধুরা গ্রুপে অ্যাড হতে পারবে না। অর্থাৎ কিছুটা পরিবর্তন আসবে। তবে সে সম্পর্কে এখনও কিছু জানায়নি ফেসবুক কর্তৃপক্ষ। কমিউনিটি লিডারশিপ সার্কেল ফ্রম ফেসবুক পেজে উল্লেখ করা হয়েছে, তাৎক্ষণিক যোগাযোগের জন্য গ্রুপ চ্যাটে আগামীতে নতুন সেবা যোগ করা যায় কি না সে ব্যাপারে কাজ চলছে, কিন্তু সেটা কীভাবে হবে তা এখনই বলা যাচ্ছে না।
২০০৮ সালে ফেসবুক মেসেঞ্জার চালু করা হয়। ২০১০ সালে সংস্কার করে আবার চালু করা হয়। ২০১১ সালের ৬ জুলাই ফেসবুকের ভিডিও কল সেবা চালু করে স্কাইপেকে তাদের প্রযুক্তি অংশীদার করে। সেই থেকে স্কাইপে রেস্ট এপিআই ব্যবহার করে এক-থেকে-এক ব্যবস্থায় কল করা যায়। ২০১১ সালের ৯ আগস্ট আনুষ্ঠানিকভাবে অ্যানড্রয়েড ও আইওএস অ্যাপে ফেসবুক মেসেঞ্জার চালু করা হয়। আর গ্রুপ চ্যাট চালু হয় ২০১৩ সালে।

 

সর্বশেষ..