বিশ্ব সংবাদ

সংঘাত এড়াতে গ্রিস ও তুরস্কের আলোচনার প্রস্তুতি

শেয়ার বিজ ডেস্ক: সামরিক জোট ন্যাটোর সদস্য হওয়া সত্ত্বেও তুরস্ক ও গ্রিসের মধ্যে সংঘাত বিপজ্জনক পথে অগ্রসর হচ্ছিল। ভূমধ্যসাগরের পূর্বাংশে জ্বালানি সম্পদের ওপর দাবিকে কেন্দ্র করে বর্তমান বিরোধ দানা বাঁধছে। প্রাকৃতিক গ্যাস উত্তোলনের অধিকারের দাবির প্রেক্ষাপটে সমুদ্রসীমা নিয়েও বিরোধ প্রকট হয়ে উঠেছে। গত আগস্টে তুরস্ক বিতর্কিত এলাকায় ভূমিকম্প গবেষণার জন্য সজ্জিত এক জাহাজ পাঠানোর পর থেকে এ উত্তেজনা চলছে। সেই জাহাজের সঙ্গে এক তুর্কি রণতরিও ছিল। দুই পক্ষই সামরিক মহড়ার আয়োজন করেছে এবং একে অপরকে কড়া কথা শুনিয়েছে। অবশেষে দুই পক্ষ সরাসরি আলোচনার সদিচ্ছা দেখাচ্ছে। খবর: এএফপি

তুরস্কের প্রেসিডেন্টের দপ্তর ও গ্রিক পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় জানিয়েছে, ভূমধ্যসাগরের পূর্বাংশে উত্তেজনা কমাতে দুই পক্ষ প্রাথমিক সংলাপ শুরু করতে চলেছে। তুরস্ক আলোচনার দিনক্ষণ নিয়ে কোনো মন্তব্য না করলেও গ্রিক পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় জানিয়েছে, যে তুরস্কের ইস্তাম্বুলে দ্বিপক্ষীয় আলোচনা অনুষ্ঠিত হবে। তবে সেই বিবৃতিতে নির্দিষ্ট কোনো তারিখ উল্লেখ করা হয়নি। উল্লেখ্য, ২০১৬ সালেও সমুদ্রসীমা নিয়ে বিরোধ মেটাতে দুই পক্ষ আলোচনায় বসেছিল।

ইউরোপীয় ইউনিয়নের (ইইউ) বর্তমান সভাপতি দেশ জার্মানির চ্যান্সেলর আঙ্গেলা মেরকেল, ইইউ সরকার পরিষদের প্রধান শার্ল মিশেল এবং তুরস্কের প্রেসিডেন্ট রিসেপ তাইয়েপ এরদোয়ানের মধ্যে ভিডিও কনফারেন্সের পর এ সমাধানসূত্র উঠে এসেছে। এরদোয়ানের মধ্যস্থতার উদ্যোগের জন্য মেরকেলকে ধন্যবাদ জানান। তার মতে, গ্রিসের পরবর্তী পদক্ষেপের ওপর আলোচনার অগ্রগতি নির্ভর করবে। দুই পক্ষকেই উপযুক্ত পদক্ষেপ নিয়ে আলোচনার আবহ ‘সুরক্ষিত’ রাখতে হবে, বলেন এরদোয়ান। উল্লেখ্য, চলতি সপ্তাহের শেষে পরিকল্পিত ইইউ শীর্ষ সম্মেলনেও বিষয়টি নিয়ে আলোচনার কথা ছিল। এমনকি তুরস্কের ওপর ইইউ নিষেধাজ্ঞা চাপাতে পারে বলে শোনা যাচ্ছিল। গ্রিস ও ফ্রান্স এমন দাবি জানাচ্ছে। কিন্তু শার্ল মিশেল কোয়ারেন্টাইনে যেতে বাধ্য হওয়ায় সেই সম্মেলন ১ ও ২ অক্টোবর অনুষ্ঠিত হবে।

তুরস্কের প্রেসিডেন্ট এরদোয়ান গত মঙ্গলবার ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে জাতিসংঘের সাধারণ পরিষদে ভাষণ দিতে গিয়ে এক সার্বিক সমাধানসূত্রের প্রস্তাব দেন। অঞ্চলের উপকূলবর্তী সব দেশকে নিয়ে এক সম্মেলন আয়োজন করে জ্বালানি সম্পদের বিষয়টির নিষ্পত্তি চাইছেন তিনি। এমনকি সাইপ্রাস দ্বীপের তুর্কি নিয়ন্ত্রিত এলাকার সরকারকেও এ কাঠামোয় শামিল করতে চান তুরস্কের প্রেসিডেন্ট। কোনো শক্তির সঙ্গে সংঘাতের পথে না গিয়ে আন্তর্জাতিক আইন ও সমানাধিকারের ভিত্তিতে তিনি বিরোধ মেটানোর পক্ষে সওয়াল করেন। এরদোয়ান অবশ্য অন্য একটি ভাষণে তুরস্কের অধিকার কায়েম করতে প্রয়োজনে শক্তি প্রয়োগের সম্ভাবনাও উড়িয়ে দেননি।

তুরস্কের অভিযোগ, ভূমধ্যসাগরের পূর্বাঞ্চলে দীর্ঘতম উপকূল থাকা সত্ত্বেও সে দেশের সমুদ্রসীমার আনুপাতিক এলাকা অত্যন্ত কম। অন্যদিকে ছড়িয়ে থাকা দ্বীপগুলোর কারণে গ্রিসের ভাগের সামুদ্রিক এলাকা অনেক বেশি। তুরস্কের উপকূল থেকেও কয়েকটি দ্বীপ দেখা যায়।

প্রিন্ট করুন প্রিন্ট করুন

সর্বশেষ..