কোম্পানি সংবাদ

সপ্তাহের শেষদিনেও উভয় বাজারে সূচকের বড় পতন

নিজস্ব প্রতিবেদক: সপ্তাহের শেষদিনেও বড় পতন হয়েছে পুঁজিবাজারে। ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জে (ডিএসই) প্রায় ৬৬ শতাংশ কোম্পানির দরপতনে প্রধান সূচক ডিএসইএক্সের ৪৪ পয়েন্ট পতন হয়। বাকি দুই সূচকেরও পতন হয়। সে সঙ্গে কমেছে লেনদেন। গতকাল লেনদেনের শুরুতেই সূচকের উত্থান হলেও ১৫ মিনিটের মধ্যে বিক্রির চাপ শুরু হলে সূচকে পতন নেমে আসে। বেলা ১২টার দিকে সূচক কিছুটা ঊর্ধ্বমুখী হওয়ার চেষ্টা করলেও অল্প সময়ের মধ্যে ফের পতন নেমে আসে। শেষ পর্যন্ত সূচকের পতন অব্যাহত থাকে। লেনদেন শেষে প্রধান সূচক ৪৪ পয়েন্ট নিম্নমুখী হয়। অন্যদিকে চিটাগং স্টক এক্সচেঞ্জে (সিএসই) একই চিত্র দেখা গেছে।
বাজার পর্যবেক্ষণে দেখা গেছে, গতকাল ডিএসইর প্রধান সূচক ডিএসইএক্স ৪৪ দশমিক ২২ পয়েন্ট বা দশমিক ৮৬ শতাংশ কমে পাঁচ হাজার ৯৫ দশমিক ৭৭ পয়েন্টে অবস্থান করে।
ডিএসইএস বা শরিয়াহ্ সূচক ৯ দশমিক ১০ পয়েন্ট বা দশমিক ৭৬ শতাংশ কমে এক হাজার ১৮৩ দশমিক ৪৪ পয়েন্টে অবস্থান করে। আর ডিএস৩০ সূচক ১৭ দশমিক ৬৫ পয়েন্ট বা দশমিক ৯৭ শতাংশ কমে এক হাজার ৮০০ দশমিক শূন্য পাঁচ পয়েন্টে অবস্থান করে। গতকাল ডিএসইর বাজার মূলধন তিন লাখ ৮০ হাজার ৮৪৫ কোটি ৭২ লাখ এক হাজার ৩৪৮ টাকা হয়। ডিএসইতে লেনদেন হয় ৪০২ কোটি ৯১ লাখ ৮০ হাজার টাকার শেয়ার ও মিউচুয়াল ফান্ডের ইউনিট। আগের কার্যদিবসে লেনদেন হয়েছিল ৪০২ কোটি ৯১ লাখ ৮০ হাজার টাকার শেয়ার ও মিউচুয়াল ফান্ডের ইউনিট। এ হিসেবে লেনদেন কমেছে ৫৩ কোটি ৭৯ লাখ টাকা। এদিন ১১ কোটি ২৭ লাখ ছয় হাজার ৬১৩ শেয়ার এক লাখ ১৮ হাজার ৭১৪ বার হাতবদল হয়। লেনদেন হওয়া ৩৫৩ কোম্পানি ও মিউচুয়াল ফান্ডের মধ্যে দর বেড়েছে ৭৮টির, কমেছে ২৩৬টির এবং অপরিবর্তিত ছিল ৩৯টির দর।
গতকাল টাকার অঙ্কে লেনদেনের শীর্ষে উঠে আসে ইউনাইটেড পাওয়ার। কোম্পানিটির ১৯ কোটি ৬৮ লাখ টাকার শেয়ার লেনদেন হয়। দর কমেছে ৭০ পয়সা। সিলকো ফার্মার ১৩ কোটি ৩১ লাখ টাকা লেনদেনের পাশাপাশি দর বেড়েছে দেড় টাকা। তৃতীয় অবস্থানে থাকা ন্যাশনাল পলিমারের ১২ কোটি ৯৭ লাখ টাকার শেয়ার লেনদেন হয়। দর কমেছে ছয় টাকা ৮০ পয়সা। সুহƒদ ইন্ডাস্ট্রিজের ১১ কোটি ৯৬ লাখ টাকার শেয়ার লেনদেন হয়। ওয়াটা কেমিক্যালের ১০ কোটি ৫২ লাখ টাকা লেনদেন হয়। এছাড়া মুন্নু জুট স্টাফলার্সের ১০ কোটি ৪৬ লাখ টাকা, ন্যাশনাল টিউবসের ৯ কোটি ৪৮ লাখ টাকা, বীকন ফার্মার ৯ কোটি টাকা, গ্রামীণফোনের সাড়ে সাত কোটি টাকা, ডরিন পাওয়ারের সাড়ে সাত কোটি টাকার শেয়ার লেনদেন হয়।
প্রায় ১০ শতাংশ বেড়ে দর বৃদ্ধির শীর্ষে উঠে আসে প্রাইম ফাইন্যান্স ফার্স্ট মিউচুয়াল ফান্ড। এসইএমএল এফবিএসএল গ্রোথ ফান্ডের দর আট দশমিক ৯৮ শতাংশ, স্ট্যান্ডার্ড সিরামিকের ছয় দশমিক ৭৭ শতাংশ, সিলকো ফার্মার পাঁচ দশমিক শূন্য আট শতাংশ, রেকিট বেনকিজারের চার দশমিক ৯৩ শতাংশ, ডরিন পাওয়ারের চার দশমিক ৮৬ শতাংশ, এক্সিম ব্যাংক ফার্স্ট মিউচুয়াল ফান্ডের চার দশমিক ৪৪ শতাংশ, ফিনিক্স ফাইন্যান্সের তিন দশমিক ৬৮ শতাংশ, গ্ল্যাক্সোস্মিথক্লাইনের তিন দশমিক ৫৯ শতাংশ, এলআর গ্লোবাল মিউচুয়াল ফান্ডের দর তিন দশমিক ৩৮ শতাংশ বেড়েছে।
৯ দশমিক ২৪ শতাংশ কমে দরপতনের শীর্ষে উঠে আসে এসইবিএল ফার্স্ট মিউচুয়াল ফান্ড। মেঘনা কনডেন্সড মিল্কের আট দশমিক ৩৩ শতাংশ, এনএলআই ফার্স্ট মিউচুয়াল ফান্ডের সাত দশমিক ৮৭ শতাংশ, ন্যাশনাল পলিমারের সাড়ে ছয় শতাংশ, প্রাইম ফাইন্যান্সের সাত দশমিক ৪০ শতাংশ, আফতাব অটোর ছয় দশমিক ৬৮ শতাংশ, তাল্লু স্পিনিংয়ের পাঁচ দশমিক ৮৮ শতাংশ, ডিবিএইচ ফার্স্ট মিউচুয়াল ফান্ডের পাঁচ দশমিক ৮১ শতাংশ, ফারইস্ট ফাইন্যান্সের সাড়ে পাঁচ শতাংশ, ডেল্টা স্পিনিংয়ের দর পাঁচ দশমিক ৪৫ শতাংশ কমেছে।
সিএসইতে গতকাল সিএসসিএক্স মূল্যসূচক ৯৬ দশমিক ৪৩ পয়েন্ট বা এক শতাংশ কমে ৯ হাজার ৪৫৭ দশমিক ৬৫ পয়েন্টে এবং সার্বিক সূচক সিএএসপিআই ১৫৪ দশমিক ৯৮ পয়েন্ট বা দশমিক ৯৮ শতাংশ কমে ১৫ হাজার ৫৮০ দশমিক ৬০ পয়েন্টে অবস্থান করে। গতকাল সর্বমোট ২৩৯টি কোম্পানি ও মিউচুয়াল ফান্ডের শেয়ার ও ইউনিট লেনদেন হয়। এর মধ্যে দর বেড়েছে ৪২টির, কমেছে ১৮৪টির এবং অপরিবর্তিত ছিল ১৩টির দর।
সিএসইতে এদিন ১৭ কোটি ৪৫ লাখ ১০ হাজার ২১১ টাকার শেয়ার ও মিউচুয়াল ফান্ডের ইউনিট লেনদেন হয়। আগের কার্যদিবসে লেনদেন হয়েছিল ১৩ কোটি ৬৩ লাখ এক হাজার ৪০২ টাকার শেয়ার ও মিউচুয়াল ফান্ডের ইউনিট। এ হিসেবে লেনদেন কমেছে তিন কোটি ৮২ লাখ টাকা। সিএসইতে গতকাল লেনদেনের শীর্ষে অবস্থান করে ডরিন পাওয়ার। কোম্পানিটির ৪৬ লাখ টাকার শেয়ার লেনদেন হয়। এরপর বীকন ফার্মার ৫৪ লাখ টাকার, সিলকো ফার্মার ৫৪ লাখ টাকার, বেক্সিমকোর ৪৯ লাখ টাকার, কপারটেকের ৪৬ লাখ টাকার, এসএস স্টিলের ৪২ লাখ টাকার, বিএটিবিসির ৩৭ লাখ টাকার, মুন্নু সিরামিকের ৩৫ লাখ টাকার, গ্রামীণফোনের ৩২ লাখ টাকার, সি পার্ল রিসোর্টের ৩০ লাখ টাকার শেয়ার লেনদেন হয়।

সর্বশেষ..