প্রচ্ছদ প্রথম পাতা

সবজি ডাল পেঁয়াজ ও মরিচের বীজ আমদানিতে শুল্ক অব্যাহতি

নিজস্ব প্রতিবেদক: পেঁয়াজ, মরিচ, গম, সরিষা, সব ধরনের ডাল ও সবজির বীজ আমদানিতে সব ধরনের শুল্ক অব্যাহতি দিয়েছে জাতীয় রাজস্ব বোর্ড (এনবিআর)। সম্প্রতি এ বিষয়ে প্রজ্ঞাপন জারি করা হয়েছে। তবে বিদেশ থেকে সবজির বীজ আমদানির ক্ষেত্রে কৃষি মন্ত্রণালয়ের অনুমতি ও রপ্তানিকারকদের দেশের প্রত্যয়নসহ আমদানিকারকদের তিনটি শর্ত মানতে হবে।

তথ্যমতে, বিদেশ থেকে পেঁয়াজ, মরিচ, গম, সরিষা ও সবজির বীজ আমদানির ক্ষেত্রে আমদানিকারকদের আইন মেনে আমদানি শুল্ক, রেগুলেটরি ডিউটি ও সম্পূরক শুল্কসহ নির্ধারিত অন্য শুল্ক দিতে হয়। এর ফলে বীজের দাম বেড়ে যায়। তাই বীজ আমদানি সহজ করতে সব ধরনের শুল্ক অব্যাহতির নির্দেশনা দিয়েছে এনবিআর। তিনটি শর্ত মেনে আমদানিকারকরা শুল্ক ছাড়াই বিদেশ থেকে বীজ আমদানি করতে পারবেন।

এনবিআরের শর্তের প্রথমটিতে বলা হয়েছে, সর্বোচ্চ এক কেজি মোড়কজাত বীজ সরাসরি কৃষক পর্যায়ে বিপণনযোগ্য অবস্থায় আমদানি করতে হবে। এক্ষেত্রে বীজ রফতানিকারক দেশের সরকারি বা সরকারিভাবে স্বীকৃত বীজ প্রত্যয়ন এজেন্সির কাছ থেকে জার্মিনেশন রেট, গ্রীষ্মপ্রধান দেশে ব্যবহারযোগ্য এবং বিপণনের সময় ইত্যাদি বিষয় পরিষ্কার ও বিস্তারিত উল্লেখ সহকারে প্রত্যয়নপত্র নিতে হবে, যা শুল্কায়নের আগেই সংশ্লিষ্ট কাস্টমস কর্মকর্তাদের কাছে দাখিল করতে হবে।

সেই সঙ্গে বিদেশ থেকে ব্যাগজাত (প্রতি ব্যাগে সর্বোচ্চ ২৫ কেজি) সবজির বীজ আমদানির জন্য এলসি খোলার আগে কৃষি মন্ত্রণালয়ের মহাপরিচালকের (বীজ) কাছ থেকে বীজের পরিমাণ ও প্রয়োজনীয়তা বিষয়ে অনুমতি নিতে হবে। সেই অনুমতির কপিও শুল্কায়নের সময় কাস্টমসের কর্মকর্তাদের কাছে জমা দিতে হবে।

এনবিআরের অপর শর্তে ‘কোনো অবস্থায় মোড়কবিহীন বীজ আমদানি করা যাইবে না’ বলে উল্লেখ করা হয়েছে। সেই সঙ্গে বীজের প্যাকেট বা মোড়কের ওপর ‘সিড ফর সোয়িং অনলি’ ও বীজের সংক্ষিপ্ত বিবরণ উল্লেখ থাকতে হবে বলেও ওই নির্দেশনায় বলা হয়েছে।

প্রিন্ট করুন প্রিন্ট করুন
ট্যাগ ➧

সর্বশেষ..