আজকের পত্রিকা সুস্বাস্থ্য

সময়মত পদক্ষেপ নিলে করোনা মোকাবেলা সহজ হতো

স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের সাবেক মহাপরিচালকের মত

নিজস্ব প্রতিবেদক: করোনা ভাইরাস আসছে তা আমরা আগে থেকেই জানতাম। করোনা আক্রমনের পর গত তিনমাস ধরে আমরা প্রস্তুতি নিয়েছি। অথচ আরো অনেক আগে থেকেই আমরা প্রস্তুতি শুরু করতে পারতাম। সময়মতো কার্যকর পদক্ষেপ নেওয়া হলে করোনা মোকাবেলা এখন অনেক সহজ হতো।

গতকাল এক অনলাইন আলোচনায় এ কথা বলেন স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের সাবেক মহাপরিচালক অধ্যাপক ডা. শাহ মনির হোসেন। তিনি বলেন, প্রতিনিয়ত স্বাস্থ্যকর্মীদের মৃত্যুর সারি দীর্ঘ হচ্ছে। আমরা যদি এভাবে স্বাস্থ্যকর্মীদের হারাতে থাকি, তাহলে দেশের স্বাস্থ্য ব্যবস্থা ভেঙে পড়বে। তাই সবার আগে আমাদেরকে স্বাস্থ্যকর্মীদের স্বাস্থ্য সুরক্ষা নিশ্চিত করতে হবে। একটি যুগোপযোগী কার্যকর স্বাস্থ্য ব্যবস্থা গড়ে তুলতে আমাদের ৩০ বছরের দীর্ঘময়াদী পরিকল্পনা নিতে হবে, যার মধ্যে মধ্যমেয়াদী ৫ বছরের পরিকল্পনা অন্তর্ভুক্ত থাকবে।

আর্ক ফাউন্ডেশন ও সেন্টার ফর ল অ্যান্ড পলিসি অ্যফেয়ার্স (সিএলপিএ) গতকাল ‘করোনা মোকাবেলায় স্বাস্থ্য ব্যবস্থাপনা’ শীর্ষক এ অনলাইন টকশো’র আয়োজন করে। এতে যুক্ত হন বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার সাবেক আঞ্চলিক পরামর্শক মোজাহেরুল হক, ক্যানসার বিশেষজ্ঞ অধ্যাপক ডা. গোলাম মহিউদ্দিন ফারুক এবং আইনজীবী ও নীতি বিশ্লেষক অ্যডভোকেট সৈয়দ মাহবুবুল আলম। অনুষ্ঠানটি সঞ্চালনা করেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের অর্থনীতি বিভাগের অধ্যাপক ও আর্ক ফাউন্ডেশনের নির্বাহী পরিচালক ড. রুমানা হক।

আলোচনায় মোজাহেরুল হক বলেন, আমরা স্বাস্থ্য সচেতনতায় অনেক পিছিয়ে আছি। একইসঙ্গে আমাদের স্বাস্থ্য ব্যবস্থাপনাও শক্তিশালী নয়। আমাদের স্বাস্থ্য ব্যবস্থাপনায় দক্ষতা বাড়াতে হবে ও এর বিকেন্দ্রীকরণ করতে হবে। স্থানীয় পর্যায়ে স্বাস্থ্য সেবা আরও উন্নত করতে হবে। জেলা হাসপাতালে নিরবচ্ছিন্নভাবে অক্সিজেন, ভেন্টিলেশন ব্যবস্থা ও আইসিইউ ব্যবস্থা রাখতে হবে। পাশাপাশি গ্রাম থেকে প্রাথমিক চিকিৎসা নিয়ে শহরে যাতে স্পেশালাইড চিকিৎসা গ্রহণ করা যায়, সেজন্য কার্যকর রেফারেল ব্যবস্থা জোরদার করতে হবে।

অধ্যাপক ডা. গোলাম মহিউদ্দিন ফারুক বলেন, আমরা চিকিৎসা ব্যবস্থা নিয়ে ভুলের মধ্যে আছি। সবগুলো জায়গা খতিয়ে দেখে আমাদেরকে সামনের দিকে এগিয়ে যেতে হবে। একইসঙ্গে চিকিৎসকরা যাতে চিকিৎসা দিতে ভয় না পান, সে জন্য সব খাতের চিকিৎসককে ঝুঁকি ভাতা দিতে হবে। দেশে একটি শক্তিশালী ওষুধ ব্যবস্থাপনা গড়ে তুলতে হবে। তাহলেই আমরা আমাদের সমস্যা মোকাবিলা করতে পারবো।

অ্যডভোকেট সৈয়দ মাহবুবুল আলম বলেন, আমাদের বুঝতে হবে, স্বাস্থ্য ব্যবস্থা মানে শুধু চিকিৎসা ব্যবস্থা নয়। দেশে একটি কার্যকর জনস্বাস্থ্য ব্যবস্থা গড়ে তোলা স্বাস্থ্য সংশ্লিষ্ট দপ্তর সংস্থাগুলোর একার পক্ষে সম্ভব নয়। এর জন্য একটি সমন্বিত উদ্যোগ প্রয়োজন। সবাইকে নিয়ে একটি ডাটাবেজ প্রস্তুত এবং একটি ন্যাশনাল হেলথ কমান্ড তৈরি করে সমন্বিতভাবে কাজ করতে হবে। পাশাপাশি এতৎসংশ্লিষ্ট দেশের প্রচলিত আইন ও বিধানসমূহের কার্যকর প্রয়োগ, প্রয়োজনে আইন সংশোধন নতুন আইন প্রণয়ন করতে হবে।

মিটিং সফটওয়ার জুম-এর মাধ্যমে টকশোটি পরিচালিত হয়। আলোচকরা সরাসরি যোগ য়ো অংশগ্রহণকারী এবং স্যোশাল মিডিয়ার মাধ্যমে অংশ নেয়া ব্যাক্তিদের নানা প্রশ্নের জবাব দেন।

প্রিন্ট করুন প্রিন্ট করুন

সর্বশেষ..