বিশ্ব সংবাদ

সরকারি দপ্তরে বিদেশি প্রযুক্তি রাখবে না চীন

শেয়ার বিজ ডেস্ক: নিজেদের সরকারি দপ্তর ও প্রতিষ্ঠান থেকে বিদেশি কম্পিউটার এবং সফটওয়্যার সরিয়ে নেওয়ার নির্দেশ দিয়েছে চীন সরকার। এ বছরের শুরুতেই এ বিষয়ে এক নির্দেশনা ইস্যু করেন বেইজিংয়ের কর্তাব্যক্তিরা। ওই নির্দেশনায় আগামী তিন বছরের মধ্যে বিদেশি হার্ডওয়্যার ও সফটওয়্যার সরিয়ে তার বদলে চীনের হার্ডওয়্যার ও সফটওয়্যার ব্যবহারের কথা বলা হয়েছে। খবর: রয়টার্স।

নীতিটিকে ‘৩-৫-২’ নামেও ডাকা হচ্ছে, কারণ ২০২০ সালে সরকারি দপ্তর থেকে ৩০ শতাংশ হার্ডওয়্যার ও সফটওয়্যার, ২০২১ সালে ৫০ শতাংশ এবং ২০২২ সালে অবশিষ্ট ২০ শতাংশ সরিয়ে দেওয়ার পরিকল্পনা করেছে দেশটি। খবর: সিনেট।

চীনের এ নির্দেশনার বিষয়টি জানিয়ে গত রোববার প্রথম প্রতিবেদন প্রকাশ করে ফিন্যান্সিয়াল টাইমস। নির্দেশনা প্রসঙ্গে চীনের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের মন্তব্য জানতে চাওয়া হয়েছিল। তবে এ বিষয়ে কোনো মন্তব্য করতে রাজি হয়নি মন্ত্রণালয়।

প্রায় বছরখানেকেরও বেশি সময় ধরে চলছে চীন ও যুক্তরাষ্ট্রের বাণিজ্যযুদ্ধ। চলতি বছরের নভেম্বরে চীনা প্রতিষ্ঠান হুয়াওয়ে ও জেডটিই’র কাছ থেকে যন্ত্রাংশ ও সেবা কেনার জন্য বার্ষিক ৮৫০ কোটি ডলারের ইউনিভার্সাল সার্ভিস ফান্ড খরচের বিপক্ষে ভোট দিয়েছে মার্কিন ফেডারেল কমিউনিকেশনস কমিশন। যুক্তরাষ্ট্র বলছে, মার্কিন জাতীয় নিরাপত্তাকে হুমকির মুখে ফেলছে প্রতিষ্ঠান দুটি। 

এর আগে মে মাসে জাতীয় নিরাপত্তার কথা বলে প্রতিষ্ঠানটিকে কালো তালিকাভুক্ত করে যুক্তরাষ্ট্র। নিষেধাজ্ঞার পর থেকেই ফাইভজি নেটওয়ার্ক থেকে হুয়াওয়েকে বাদ দিতে অন্যান্য দেশকে ‘পরামর্শ’ দিয়ে আসছে মার্কিন প্রশাসন। তবে হুয়াওয়ে ও জেডটিই প্রতিষ্ঠান দুটি নজরদারি বা মার্কিন নিরাপত্তার হুমকির অভিযোগটি বরাবরই অস্বীকার করেছে।

দীর্ঘ ১৭ মাস ধরে চলা বাণিজ্যযুদ্ধের মধ্যে চীনের হাজার হাজার কোটি ডলারের রপ্তানি পণ্যে শুল্কারোপ করেছে যুক্তরাষ্ট্র। চীনের বাণিজ্য ও শিল্পনীতিতে বড় পরিবর্তন আনতে চাপ প্রয়োগের লক্ষ্যে এ পদক্ষেপ নিয়েছে ডোনাল্ড ট্রাম্প প্রশাসন, যদিও চীন সে পথে না হেঁটে প্রতিশোধমূলক পদক্ষেপ নিয়েছে। তারাও হাজার হাজার কোটি ডলারের যুক্তরাষ্ট্রের রফতানি পণ্যে পাল্টা শুল্কারোপ করেছে।

প্রিন্ট করুন প্রিন্ট করুন

সর্বশেষ..