বিশ্ব সংবাদ

সরকারের সমালোচনাকারী চীনা ধনকুবের সানের ১৮ বছর জেল

শেয়ার বিজ ডেস্ক: চীনের সরকারের সমালোচনাকারী বড় ব্যবসায়ীদের সাজার আওতায় আনার ধারাবাহিকতায় এক ধনকুবেরকে ১৮ বছরের জেল দিয়েছেন দেশটির আদালত। ‘বিবাদ ও সমস্যা সৃষ্টিতে উসকানি দেয়ার’ অপরাধে দোষী সাব্যস্ত করে দেশের কৃষি খাতের সবচেয়ে বড় ব্যবসায়ী সান দাওউকে এ সাজা দেয়া হয়। খবর: বিবিসি।

সাধারণত সরকারবিরোধী কর্মীদের বিরুদ্ধে এমন অভিযোগ আনা হয়। ৬৫ বছর বয়সী সান এর আগে মানবাধিকার ও স্পর্শকাতর রাজনৈতিক বিষয় নিয়ে সরকারের সমালোচনা করেছিলেন।

অবৈধভাবে কৃষিজমি দখল, সরকারি প্রতিষ্ঠানে হামলার উদ্দেশ্যে লোক জমায়েত করা এবং সরকারি কর্মচারীদের কাজে বাধা দেয়ার দায়ে সানকে অভিযুক্ত করা হয়েছে। আদালতে তাকে ৩১ লাখ ইউয়ান জরিমানাও করা হয়।

চীনের সবচেয়ে বড় কোম্পানিগুলোর একটি সানের প্রতিষ্ঠান। যেখানে মাংস প্রক্রিয়াকরণ থেকে শুরু করে পোষা প্রাণীর খাবার এবং স্কুল কিংবা হাসপাতালের খাবারও সরবরাহ করা হয়।

জমি নিয়ে সরকারি একটি ফার্মের সঙ্গে বিরোধের জেরে গত বছর ২০ ব্যবসায়িক সহযোগী ও স্বজনসহ সান দাওউকে আটক করা হয়েছে। তিনি তখন দাবি করেছিলেন, এ বিরোধের জেরে তার কয়েক ডজন কর্মী পুলিশের সঙ্গে সংঘর্ষে আহত হয়েছেন।

২০১৯ সালে আফ্রিকান ‘সোয়াইন ফ্লু’ মহামারি আড়াল করঢ়  ১া নিয়ে খোলাখুলিভাবে চীন সরকারের সমালোচনা করেন সান। সেসময় মহামারিতে তার খামার ক্ষতিগ্রস্ত হয় এবং বিপর্যস্ত হয় চীনের পোলট্রি শিল্প। অবৈধভাবে তহবিল সংগ্রহের অভিযোগে এর আগে ২০০৩ সালেও তাকে কারাদণ্ড দিয়েছিলেন আদালত। তবে দেশের জনগণ ও আন্দোলন কর্মীদের দাবির মুখে ওই মামলা বাতিল করা হয়।

তবে সান তার বিরুদ্ধে আনা এসব অভিযোগ প্রত্যাখ্যান করে নিজেকে ‘সর্বান্তঃকরণে কমিউনিস্ট পার্টির একজন সদস্য’ হিসেবে দাবি করেন। অবশ্য

তিনি অনলাইনে ‘বার্তা’ দেয়াসহ বেশ কিছু ভুলের কথা স্বীকার করেছেন।

প্রযুক্তি প্রতিষ্ঠান ‘আলিবাবা’, ‘দিদি’ ও ‘টেনসেন্ট’সহ বেশ কিছু বড় ব্যবসায়িক প্রতিষ্ঠান নিয়ন্ত্রণ নীতি মানছে কি না, সে বিষয়ে তদন্ত চালাচ্ছে চীন।

প্রিন্ট করুন প্রিন্ট করুন

সর্বশেষ..