দিনের খবর প্রচ্ছদ শেষ পাতা

সরকার রোহিঙ্গা প্রত্যাবাসনে কিছুই করতে পারেনি: রিজভী

নিজস্ব প্রতিবেদক: ‘রোহিঙ্গা প্রত্যাবাসনে সরকার কূটনৈতিকভাবে ব্যর্থ হয়েছে’ বলে মন্তব্য করেছেন রুহুল কবির রিজভী। গতকাল রাজধানীর নয়াপল্টনে এক সমাবেশে সব প্রস্তুতি নিয়েও রোহিঙ্গা প্রত্যাবাসনের দ্বিতীয় চেষ্টা ব্যর্থ হওয়ার প্রসঙ্গ টেনে এ মন্তব্য করেন বিএনপির এই জ্যেষ্ঠ যুগ্ম মহাসচিব।
রুহুল কবির রিজভী বলেন, রোহিঙ্গা প্রত্যাবাসনে সরকার কিছুই কিছুই পারেনি। এদের বিষয়ে এতদিন হয়ে গেল, সরকার একজনকেও ফেরত পাঠাতে পারল না! এটি এক চরম ব্যর্থতা। সরকার কূটনৈতিকভাবে ব্যর্থ হয়েছে।
এর আগে ২০১৮ সালের নভেম্বরে প্রথম দফায় রোহিঙ্গাদের মিয়ানমারে ফেরত পাঠানোর উদ্যোগ নিয়েছিল সরকার। সে চেষ্টাও ভেস্তে যাওয়ার পর রোহিঙ্গা প্রত্যাবাসন শুরুর জন্য গত ২২ আগস্ট দিন ঠিক হয়েছিল। কিন্তু নাগরিকত্বসহ চার শর্তের কথা তুলে গত বৃহস্পতিবার নির্ধারিত দিনে একজন রোহিঙ্গাও স্বেচ্ছায় মিয়ানমারের রাখাইনে ফিরে যেতে রাজি হয়নি।
এদিকে পররাষ্ট্রমন্ত্রী এ কে আব্দুল মোমেন রোহিঙ্গাদের অনাগ্রহকে ‘দুঃখজনক’ বলে মন্তব্য করেছেন। তিনি বলেছেন, ‘এখন তারা যে সুখে আছে, তা বেশিদিন থাকবে না। এরই মধ্যে টাকা-পয়সা কমছে। রোহিঙ্গাদের নিয়ে যারা কাজ করছে, তারাও কঠোর হবে।’
মন্ত্রীর ওই বক্তব্যের সমালোচনা করে বিএনপি নেতা রিজভী আরও বলেন, ‘একজনকেও আপনারা প্রত্যাবাসন করতে পারেননি। আপনাদের নাকি অনেক বন্ধু আছে, তারা কেন কেউ কিছু করতে পারল না আপনাদের জন্য। অথচ এতগুলো মানুষের চাপ বাংলাদেশকে সহ্য করতে হচ্ছে।’
‘সরকার কেবল কূটনৈতিকভাবেই নয়, দেশের অর্থনীতি ও আইনশৃঙ্খলা সামাল দিতেও ব্যর্থ হয়েছে’ মন্তব্য করে রিজভী আরও বলেন, ‘এ সরকারের পতন ত্বরান্বিত করতে হবে, গণতন্ত্র ফিরিয়ে আনতে হবে। গণতন্ত্রের প্রতীক দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়ার মুক্তির মধ্য দিয়েই এ দেশের মানুষ মুক্তভাবে কথা বলার সুযোগ পাবে।’
খালেদা জিয়ার মুক্তি দাবিতে জাতীয়তাবাদী মুক্তিযোদ্ধা দল ও জাতীয়তবাদী মুক্তিযুদ্ধের প্রজন্মের উদ্যোগে গতকাল নয়াপল্টনে বিএনপি কেন্দ্রীয় কার্যালয়ের সামনে ওই মিছিল ও সমাবেশ হয়। এ সময় জাতীয়তাবাদী মুক্তিযোদ্ধা দলের সভাপতি ইশতিয়াক আজিজ উলফাত ও সাধারণ সম্পাদক সাদেক আহমেদ খানের নেতৃত্বে নেতাকর্মীদের নিয়ে মিছিল করেন রুহুল কবির রিজভী। ওই মিছিল থেকে খালেদা জিয়ার মুক্তির দাবিতে স্লোগান দেওয়া হয়।

 

সর্বশেষ..