দিনের খবর প্রচ্ছদ শেষ পাতা

সহযোগীর মুনাফায় এগিয়েছে প্যারামাউন্ট টেক্সটাইল

পলাশ শরিফ: চলতি আর্থিক বছরের প্রথম প্রান্তিকে আয়-মুনাফায় এগিয়েছে বস্ত্র খাতের কোম্পানি প্যারামাউন্ট টেক্সটাইল। আগের বছরের একই সময়ের তুলনায় প্রতিষ্ঠানটির শেয়ারপ্রতি আয় (ইপিএস) ১১৬ দশমিক ১২ শতাংশ বেড়েছে। আর

কর-পরবর্তী মুনাফা বেড়েছে ১২৬ দশমিক ২৪ শতাংশ। মূল ব্যবসায় আয়-মুনাফার প্রবৃদ্ধির সঙ্গে সহযোগী প্রতিষ্ঠান প্যারামাউন্ট বিট্র্যাক এনার্জি লিমিটেডের (পিবিইএল) মুনাফা যুক্ত হওয়ার জেরেই এমন সাফল্য পেয়েছে প্যারামাউন্ট টেক্সটাইল।

তথ্যমতে, চলতি ২০১৯-২০ আর্থিক বছরের প্রথম প্রান্তিকে (চলতি পঞ্জিকা বছরের জুলাই থেকে সেপ্টেম্বর) প্যারামাউন্ট টেক্সটাইলের আয় প্রায় ১৪২ কোটি ১৯ লাখ টাকায় দাঁড়িয়েছে, যা এর আগের আর্থিক বছরের একই সময়ে ছিল প্রায় ১৪৩ কোটি ৪৮ লাখ টাকা। উৎপাদন ব্যয় বৃদ্ধির পরও এগিয়ে থাকার ধারা অব্যাহত রেখেছে বস্ত্র খাতের কোম্পানিটি। এ সময় নিট মুনাফা দাঁড়িয়েছে ১৮ কোটি ১৯ লাখ টাকা, যদিও এর আগের আর্থিক বছরের প্রথম প্রান্তিকে ওই মুনাফা ছিল প্রায় আট কোটি তিন লাখ টাকা। অর্থাৎ এক বছরের ব্যবধানে কোম্পানিটির কর-পরবর্তী মুনাফা ১২৬ দশমিক ২৪ শতাংশের বেশি বেড়েছে। 

এদিকে প্রথম প্রান্তিক শেষে প্যারামাউন্ট টেক্সটাইলের ইপিএস দাঁড়িয়েছে এক টাকা ৩৪ পয়সা, যা এর আগের আর্থিক বছরের একই সময়ে ৬২ পয়সা ছিল। এ হিসেবে এক বছরে ইপিএস ১১৬ দশমিক ১২ শতাংশ বেড়েছে। মূল ব্যবসায় প্রবৃদ্ধির সঙ্গে সহযোগী প্রতিষ্ঠানের মুনাফার যোগ হওয়ার কারণেই কোম্পানিটি আয়-মুনাফায় এগিয়েছে। প্রথম প্রান্তিকে সহযোগী প্রতিষ্ঠান পিবিইএলের মুনাফা হিসেবে প্রায় ১০ কোটি ২৩ লাখ টাকা পেয়েছে প্যারামাউন্ট টেক্সটাইল, যা মুনাফাকে এগিয়ে নিতে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রেখেছে।

আলাপকালে প্যারামাউন্ট টেক্সটাইলের কোম্পানি সচিব রবিউল ইসলাম শেয়ার বিজকে বলেন, ‘টেক্সটাইল ব্যবসায় আমরা ভালো করছি। সেখানে প্রবৃদ্ধির ধারা অব্যাহত রয়েছে। এর সঙ্গে এবার সহযোগী প্রতিষ্ঠান পিবিইএলের মুনাফা পেয়েছি, যে কারণে মুনাফা উল্লেখযোগ্য হারে বেড়েছে। ইপিএসও বেড়েছে। সব মিলিয়ে আমরা ভালো করতে পেরেছি।’

এদিকে কয়েক বছর ধরেই প্যারামাউন্ট টেক্সটাইলের আয়-মুনাফা বাড়ছে। চলতি পঞ্জিকা বছরের জুনে শেষ হওয়া আর্থিক বছরে প্রায় ২৭ কোটি ৭৫ লাখ টাকা কর-পরবর্তী মুনাফা করেছে কোম্পানিটি, যা গত পাঁচ বছরের মধ্যে সর্বোচ্চ। ওই আর্থিক বছরে বিনিয়োগকারীদের সাত শতাংশ ক্যাশ ও পাঁচ শতাংশ বোনাস মিলিয়ে মোট ১২ শতাংশ লভ্যাংশ দিয়েছে কোম্পানিটি।  

উল্লেখ্য, ২০১৩ সালে পুঁজিবাজারে তালিকাভুক্ত হয় প্যারামাউন্ট টেক্সটাইল। কোম্পানিটির পরিশোধিত মূলধন ১৩৫ কোটি ৪৯ লাখ টাকা। প্যারামাউন্ট গ্রুপের ওই কোম্পানিটির মোট প্রায় ১৩ কোটি ৫৪ লাখ শেয়ারের মধ্যে উদ্যোক্তা ও পরিচালকদের হাতে ৬০ দশমিক ৭৫ শতাংশ শেয়ার রয়েছে। এর বাইরে প্রাতিষ্ঠানিক বিনিয়োগকারীদের হাতে ১২ দশমিক ২৮ শতাংশ, বিদেশি বিনিয়োগকারীদের কাছে তিন দশমিক ৬০ শতাংশ ও সাধারণ বিনিয়োগকারীদের হাতে ২৩ দশমিক ৩৭ শতাংশ শেয়ার রয়েছে। ডিএসইতে কোম্পানিটির প্রতিটি শেয়ার সর্বশেষ ৫৯ টাকা ৫০ পয়সায় লেনদেন হয়েছে।  

প্রিন্ট করুন প্রিন্ট করুন

সর্বশেষ..