দিনের খবর

সহায়তা করে বিমানকর্মী, স্বর্ণসহ আটক সৌদি ফেরত যাত্রী

নিজস্ব প্রতিবেদক: হযরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে সৌদি ফেরত একজন যাত্রীকে স্বর্ণসহ গ্রীন চ্যানেল অতিক্রমে সহায়তা করে একজন বিমানকর্মী। শেষে ওই যাত্রীর চার্জার লাইটের মটরের ভেতর বিশেষ কায়দায় লুকানো প্রায় সাড়ে তিন কেজি স্বর্ণ আটক করেন ঢাকা কাস্টম হাউস প্রিভেন্টিভ টিম ও ঢাকা কাস্টম হাউসের শিফটে কর্মরত কর্মকর্তারা। শুক্রবার দিবাগত রাতে স্বর্ণসহ দুইজনকে আটক করা হয়। ঢাকা কাস্টম হাউস প্রিভেন্টিভ টিম ও শিফটে কর্মরত একাধিক কর্মকর্তা শেয়ার বিজকে এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

কর্মকর্তারা জানান, বিমানবন্দর দিয়ে স্বর্ণ চোরাচালানের গোপন তথ্য পায় ঢাকা কাস্টম হাউসের কমিশনার। এরই প্রেক্ষিতে চোরাচালান প্রতিরোধে ঢাকা কাস্টম হাউস প্রিভেন্টিভ টিম ও ঢাকা কাস্টম হাউসের শিফটে কর্তব্যরত কর্মকর্তারা যৌথভাবে বিমানবন্দরের বিভিন্ন পয়েন্টে অবস্থান করে নজরদারি করতে থাকে। শুক্রবার দিবাগত রাত সাড়ে ১২টায় সৌদি আরব থেকে এস ভি ৮০২ ফ্লাইট বিমানবন্দরে অবতরণ করে। প্রাপ্ত তথ্যের ভিত্তিতে ওই ফ্লাইটে আগত যাত্রীদের উপর নজরদারি করা হয়।

কর্মকর্তারা আরো জানান, ওই ফ্লাইটে আগত মমেনুর রহমান নামে একজন যাত্রীকে সনাক্ত করা হয়। তাকে গ্রীন চ্যানেল অতিক্রমে সহায়তা করেন মো. নজরুল ফরাজী নামের একজন বিমানকর্মী। পরে দুইজনকে স্বর্ণ থাকার বিষয়ে জিজ্ঞাসাবাদ করা হয়। কিন্তু তারা অস্বীকার করেন। পরবর্তীতে যাত্রীর সঙ্গে থাকা ব্যাগ স্ক্যানিং করলে একটি চার্জার লাইটের মটরের ভেতর স্বর্ণবার এর অস্তিত্ব পাওয়া যায়।

ব্যাগেজ কাউন্টারে এনে সেই চার্জার লাইটের ব্যাটারির ভেতর অভিনব কায়দায় লুকানো অবস্থায় ১৮টি স্বর্ণবার উদ্ধার করা হয়। যার ওজন তিন কেজি ৪০০ গ্রাম। আনুমানিক বাজারমূল্য দুই কোটি ২১ লাখ টাকা। পরে যাত্রী মমেনুর রহমান ও বিমানকর্মী মো. নজরুল ফরাজীকে আটক করা হয়। তাদের উভয়ের বাড়ি নরসিংদী জেলায়। আটককৃত স্বর্ণের বিষয়ে কাস্টমস আইনে ব্যবস্থা নেয়া হচ্ছে। ওই যাত্রী ও বিমানকর্মীকে থানায় সোপর্দ করা এবং ফৌজদারি মামলা দায়ের করা হয়েছে।

###

প্রিন্ট করুন প্রিন্ট করুন

সর্বশেষ..