প্রিন্ট করুন প্রিন্ট করুন

সহিংসতা রোধে আরও সতর্ক থাকা উচিত ছিল: কাদের

নিজস্ব প্রতিবেদক: জাতীয় নির্বাচন সামনে রেখে দুর্গাপূজা ঘিরে ‘সাম্প্রদায়িক অপশক্তির সৃষ্ট সহিংসতা ঠেকাতে’ যথেষ্ট সরকারের সতর্কতার অভাব ছিল বলে মনে করেন ক্ষমতাসীন দলের নেতা ও মন্ত্রী ওবায়দুল কাদের। আওয়ামী লীগ সভাপতি শেখ হাসিনার নেতৃত্বের সরকারের টানা ১৩ বছরে এর আগে কোনো দুর্গাপূজায় ‘সহিংস ঘটনা ঘটেনি’ দাবি করে তিনি বলেন, ‘আমাদের অবাক করে দিয়েছে। আমরা ভাবতেই পারিনি।’

তিনি বলেন, ‘এই ধরনের ঘটনা ঘটতে পারে বিবেচনায় নিয়ে আমাদের আরও বেশি সতর্ক থাকা উচিত ছিল। কারণ জাতীয় নির্বাচনকে সামনে রেখে এই অপশক্তি মাথাচাড়া দিয়ে উঠেছে।’

গত ১৩ অক্টোবর কুমিল্লা শহরের একটি মন্দিরে কথিত ‘কোরআন অবমাননার’ অভিযোগ তুলে কয়েকটি মন্দিরে হামলা-ভাঙচুর চালানো হয়। দুর্গাপূজার মধ্যে এরপর চাঁদপুর, চট্টগ্রামসহ কয়েকটি জেলায় মন্দিরে হামলা হয়। তাতে নিহত হয় অন্তত ছয়জন।

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ইউনিভার্সিটি ল্যাবরেটরি স্কুল অ্যান্ড কলেজে বঙ্গবন্ধুর কনিষ্ঠ পুত্র শেখ রাসেলের জন্ম দিন উপলক্ষে অনুষ্ঠানে এসব কথা বলেন তিনি।

আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক কাদের বলেন, ‘সাম্প্রদায়িক অপশক্তি কিন্তু তৎপর। তারা বুঝে ফেলেছে, শেখ হাসিনার সরকারকে ভোটে হারানো যাবে না; আন্দোলনেও জনগণ সাড়া দেবে না। কারণ দেশের মানুষ শেখ হাসিনার ওপর খুশি। তার সাহসী নেতৃত্ব, অর্জন, উন্নয়নে সারা বিশ্ব তাকে সম্মান করে।’

আগামী বছর বেশ কয়েকটি ‘মেগা প্রকল্প’ উদ্বোধন হবে জানিয়ে সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী বলেন, ‘এটা বিএনপির অন্তর্জ্বালার কারণ, এটাই সাম্প্রদায়িক শক্তির গাত্রদাহের কারণ। এগুলো উদ্বাধন হলে তারা চোখে অন্ধকার দেখবে। বিএনপি এমন এক দল যে দল পূর্ণিমার ঝলমলে আলোয় অমাবস্যার অন্ধকার দেখে। তারা সরকারের উন্নয়ন দেখে না।’

বিএনপি ও জামায়াতে ইসলামের মধ্যে ‘ভেতরে ভেতরে মুধুর বন্ধন’ অটুট রয়েছে বলেও মন্তব্য করেন কাদের।

তিনি বলেন, সব সাম্প্রদায়িক শক্তির ঠিকানা এক বিএনপি। পঁচাত্তরের হত্যাকাণ্ড একাত্তরের পরাজয়ের প্রতিশোধ ছিল। একাত্তরে যারা পরাজিত হয়েছিল তারাই এ হত্যাকাণ্ড করেছিল দেশি-বিদেশি নীলনকশায়।

তিনি বলেন, ‘সেই শক্তি বঙ্গবন্ধু হত্যার পর ২১ বছর বিষবৃক্ষ ডালপালা বিস্তার লাভ করেছে। এদের ডালপালা আজ অনেক দূর চলে গেছে। এদের শেকড়ও অনেক গভীরে চলে গেছে। মাঝে মনে হয় নিষ্ক্রিয়, আসলে এরা সক্রিয়; সুযোগ পেলেই ছোবল রাখে। এই সাম্প্রদায়িক অপশক্তি বিষধর সাপ। সুযোগ পেলেই ছোবল মারবেÑতার প্রমাণ এবার দুর্গাপূজা।’

‘স্বপ্ন ও সম্ভাবনার স্ফুলিঙ্গ-শেখ রাসেল’ শীর্ষক আলোচনা সভা ও মেধা বৃত্তি, দরিদ্র তহবিলে বিশেষ অনুদান ও শিক্ষা উপকরণ বিতরণের এ কর্মসূচির আয়োজন করে আওয়ামী লীগের ত্রাণ ও সমাজকল্যাণ বিষয়ক উপ-কমিটি।

আওয়ামী লীগের সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য মতিয়া রহমানের সভাপতিত্বে দলের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক আ ফ ম বাহাউদ্দিন নাছিম, সাংগঠনিক সম্পাদক আবু সাঈদ আল স্বপন, দপ্তর সম্পাদক বিপ্লব বড়–য়া, ত্রাণ ও সমাজকল্যাণ সম্পাদক সুজিত রায় নন্দি, ছাত্রলীগ সভাপতি আল নাহিয়ান খান জয়, সাধারণ সম্পাদক লেখক ভট্টাচার্য বক্তব্য দেন।