প্রিন্ট করুন প্রিন্ট করুন

সাইফ মেরিটাইমকে অধিগ্রহণ করছে সাইফ পাওয়ারটেক

নিজস্ব প্রতিবেদক: সাইফ মেরিটাইম এলএলসির শতভাগ মালিকানা গ্রহণের সিদ্ধান্ত নিয়েছে পুঁজিবাজারে তালিকাভুক্ত বিদ্যুৎ ও জ্বালানি খাতের কোম্পানি সাইফ পাওয়ারটেক লিমিটেডের পরিচালনা পর্ষদ। ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জ (ডিএসই) সূত্রে এ তথ্য জানা গেছে।

প্রাপ্ত তথ্যমতে, পাঁচ লাখ দিরহাম বা এক কোটি ২৬ লাখ ৯০ হাজার টাকার (প্রতি দিরহাম ২৫ টাকা ৩৮ পয়সা ধরে) বিনিময়ে সংযুক্ত আরব আমিরাতের দুবাইভিত্তিক সাইফ মেরিটাইম এলএলসির শতভাগ মালিকানা গ্রহণ করবে সাইফ পাওয়ারটেক লিমিটেড। গত বৃহস্পতিবার অনুষ্ঠিত কোম্পানিটির পরিচালনা পর্ষদের সভায় এ সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে। জানা গেছে, সাইফ মেরিটাইম এলএলসি ভারী ও হালকা ট্রাক দিয়ে কার্গো পরিবহনের ব্যবসা পরিচালনা করবে। এছাড়া মালবাহী ও যাত্রী পরিবহনের জন্য শিপিং লাইন, সমুদ্রে মালবাহী ও যাত্রী চার্টার পরিষেবা ও কার্গো সেবা প্রদান, কাস্টমস ব্রোকার, কার্গো লোডিং ও আনলোডিং সেবা প্রদান, সমুদ্রগামী কার্গো সেবা, শিপিং কনটেইনার লোডিং ও আনলোডিং সেবা প্রদান, সমুদ্রগামী শিপিং লাইন এজেন্ট ও ফ্রেইট ব্রোকার হিসেবে কাজ করবে। আর এ ব্যবসার মাধ্যমে কোম্পানিটি বছরে ২৫ কোটি ৯৮ লাখ টাকা আয় করবে এবং ৩ কোটি ৮৯ লাখ টাক কর-পরবর্তী নিট মুনাফা করবে বলে ধারণা করছে।

সাইফ পাওয়ারটেক ২০১৪ সালে পুঁজিবাজারে তালিকাভুক্ত হয়ে বর্তমানে ‘এ’ ক্যাটেগরিতে অবস্থান করছে। ৫০০ কোটি টাকা অনুমোদিত মূলধনের বিপরীতে পরিশোধিত মূলধন ৩৭৯ কোটি ৩৩ লাখ টাকা। রিজার্ভের পরিমাণ ১৩৫ কোটি ৪১ লাখ টাকা। কোম্পানির ৩৭ কোটি ৯৩ লাখ ৩৮ হাজার ৬৪৮ শেয়ার রয়েছে। ডিএসইর সর্বশেষ তথ্যমতে, কোম্পানির মোট শেয়ারের মধ্যে উদ্যোক্তা ও পরিচালকদের ৪০ দশমিক শূন্য ছয় শতাংশ, প্রাতিষ্ঠানিক ১৭ দশমিক ৯৯ শতাংশ এবং সাধারণ বিনিয়োগকারীর কাছে রয়েছে ৪১ দশমিক ৯৫ শতাংশ শেয়ার।

এদিকে চলতি হিসাববছরের তৃতীয় প্রান্তিকে (জানুয়ারি-মার্চ ২০২২) সাইফ পাওয়ারটেক লিমিটেডের শেয়ারপ্রতি আয় (ইপিএস) হয়েছে ১৩ পয়সা, যা আগের বছরের একই সময়ে ছিল ৯ পয়সা। অর্থাৎ, আগের বছরের তুলনায় কোম্পানিটির ইপিএস ৪ পয়সা বেড়েছে। আর প্রথম তিন প্রান্তিক বা ৯ মাসে (জুলাই ২০২১-মার্চ ২০২২) তাদের ইপিএস হয়েছে ১ টাকা ১২ পয়সা, যা আগের বছরের একই সময়ে ছিল ৭১ পয়সা। ২০২১ সালের ৩১ মার্চ তারিখে কোম্পানিটির শেয়ারপ্রতি নিট সম্পদমূল্য (এনএভিপিএস) দাঁড়িয়েছে ১৬ টাকা ৩২ পয়সা। এছাড়া প্রথম তিন প্রান্তিকে কোম্পানিটির শেয়ারপ্রতি নগদ অর্থপ্রবাহ হয়েছে ১ টাকা ৪৪ পয়সা।

কোম্পানিটির পরিচালনা পর্ষদ ৩০ জুন, ২০২১ সমাপ্ত হিসাববছরের আর্থিক প্রতিবেদন বিশ্লেষণ করে বিনিয়োগকারীদের জন্য ১০ শতাংশ নগদ ও ছয় শতাংশ বোনাস লভ্যাংশ দিয়েছে। আলোচিত সময়ে কোম্পানিটির শেয়ারপ্রতি আয় (ইপিএস) হয়েছে এক টাকা ৭৫ পয়সা। ৩০ জুন, ২০২১ তারিখে শেয়ারপ্রতি নিট সম্পদমূল্য (এনএভি) দাঁড়িয়েছে ১৭ টাকা ১১ পয়সা। এছাড়া এই হিসাববছরে কোম্পানিটির শেয়ারপ্রতি নগদ অর্থপ্রবাহ (এনওসিএফপিএস) হয়েছে দুই টাকা ৭৯ পয়সা। এর আগে ২০২০ সালের ৩০ জুন সমাপ্ত হিসাববছরের নিরীক্ষিত আর্থিক প্রতিবেদন পর্যালোচনা করে বিনিয়োগকারীদের ৫ শতাংশ নগদ ও ৫ শতাংশ বোনাস লভ্যাংশ দিয়েছে। আলোচিত সময়ে কোম্পানিটির শেয়ারপ্রতি আয় (ইপিএস) হয়েছে এক টাকা ১৪ পয়সা। ৩০ জুন, ২০২১ তারিখে শেয়ারপ্রতি নিট সম্পদমূল্য (এনএভি) দাঁড়িয়েছে ১৬ টাকা ৬৩ পয়সা।

এদিকে গতকাল কোম্পানিটির শেয়ারদর ডিএসইতে দশমিক ২৯ শতাংশ বা ১০ পয়সা বেড়ে প্রতিটি সর্বশেষ ৩৪ টাকা ৭০ পয়সায় হাতবদল হয়, যার সমাপনী দরও ছিল একই। দিনজুড়ে ৬২ লাখ ২৬ হাজার ৬৯৬টি শেয়ার মোট ৩ হাজার ৯৭০ বার হাতবদল হয়, যার বাজারদর ২১ কোটি ৯২ লাখ টাকা। দিনভর শেয়ারদর সর্বনিন্ম ৩৪ টাকা ৬০ পয়সা থেকে সর্বোচ্চ ৩৫ টাকা ৯০ পয়সায় হাতবদল হয়। আর গত এক বছরের মধ্যে কোম্পানিটির শেয়ারদর ২১ টাকা ৯০ পয়সা থেকে ৪৯ টাকায় লেনদেন হয়েছে।