সাতক্ষীরায় রাজাকার পুত্রের হাতে নৌকার বৈঠা, প্রতিবাদে মুখে কালো কাপড় বেঁধে গণঅনশন

প্রতিনিধি, সাতক্ষীরা: পঞ্চম ধাপে ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে সাতক্ষীরার আশাশুনি উপজেলার খাজরা ইউনিয়নে যুদ্ধাপরাধী মামলার আসামী রাজাকার মোজাহার সরদারের সন্তান হত্যা, ধর্ষণ, ত্রাণ আত্মসাৎ ও বিস্ফোরকসহ ১৫ মামলার আসামী শাহনেওয়াজ ডালিমকে আওয়ামী লীগ দলীয় নৌকার মনোনয়ন দেওয়ায় প্রতিবাদে ধিক্কার জানিয়ে এবং মনোনয়ন পরিবর্তনের দাবিতে মুখে কালো কাপড় বেঁধে গণঅনশন করেছে খাজরা ইউনিয়নবাসী, মুক্তিযোদ্ধা ও আওয়ামী লীগ নেতৃবৃন্দ।

আজ (৫ ডিসেম্বর) রোববার বেলা ১২ টার সময় আশাশুনি উপজেলার মুক্তিযোদ্ধা স্মৃতিসৌধ, শহীদ মিনার এবং বঙ্গবন্ধু মুরাল চত্বরে শত শত নারী-পুরুষ মুখে কালো কাপড় বেঁধে রাজাকারের সন্তান খাজরা ইউপি চেয়ারম্যান শাহনেওয়াজ ডালিমের নৌকার মনোনয়ন পরিবর্তনের দাবীতে এই গণঅনশন কর্মসূচী পালন করে।

গনঅনশন কর্মসূচীতে বক্তরা অভিযোগ করে বলেন, ইউপি চেয়ারম্যান শাহনেওয়াজ ডালিমের পিতা মোজাহার সরদার একজন আত্মস্বীকৃত এবং সরকারের গেজেটভূক্ত কুখ্যাত রাজাকার। ১৯৭১ সালে মহান মুক্তিযুদ্ধের সময় তার পিতা গদাইপুর গ্রামের নওশের আলী সরদারকে চাপড়া রাজাকার ক্যম্পে তুলে নিয়ে নির্মম ভাবে হত্যা করে। তার পিতার বিরুদ্ধে যুদ্ধাপরাধী আন্তর্জাতিক ট্যাইবুনালে মামলা বিচারাধীন রয়েছে। রাজাকারের সন্তান ডালিমের বিরুদ্ধে ৮ নং আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক শরবত মোল্লা হত্যা, টুম্পা ধর্ষণ ও হত্যাসহ, ত্রাণ আত্মসাৎসহ ১৫টি মামলা রয়েছে। অবিলম্বে সন্ত্রাসী দূর্নীতিবাজ রাজাকারের সন্তান ইউপি চেয়ারম্যান শাহনেওয়াজ ডালিমের আওয়ামী লীগ দলীয় নৌকার মনোনয়ন বাতিল করার জন্য বঙ্গবন্ধু কন্যা মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার দৃষ্টি আকর্ষন করেন। গনঅনশনে বক্তব্য রাখেন খাজরা ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি জাকিরুল ইসলাম, সাংস্কৃতিক বিষয়ক সম্পাদক মাহমুদুর রহমান প্রিন্স, আওয়ামী লীগ নেতা আক্তারুজ্জামান, মফিজুল ইসলাম প্রমূখ।

খাজরা ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি বীর মুক্তিযোদ্ধা রুহুল কুদ্দুস মোল্লা জানান, আশাশুনি উপজেলার সরকারি গেজেটভূক্ত রাজাকারের তালিকায় ১২ নং ক্রমিকে ও সংশোধিত তালিকায় ১৭৬ নং ক্রমিকে ইউপি চেয়ারম্যান শাহনেওয়াজ ডালিমের পিতা মোজাহার উদ্দিন সরদারের নাম তালিকাভূক্ত রয়েছে। মহান স্বাধীনতার ৫০ বছর পূর্তিতে বিজয়ের মাসে মুক্তিযুদ্ধের স্বপক্ষের রাজনৈতিক সংগঠন বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ একজন রাজাকারের সন্তানের হাতে নৌকার বৈঠা তুলে দিয়ে ৩০ লক্ষ শহীদকে কলঙ্কিত এবং বীর মুক্তিযোদ্ধাদের আত্মমর্যদা ক্ষুন্ন করেছে। অবিলম্বে খাজরা ইউনিয়নে রাজাকারের সন্তান দূর্নীতিবাজ খুনি শাহনেওয়াজ ডালিমের নৌকার মনোনয়ন পরিবর্তন করার জন্য মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাসহ দলের অনান্য শীর্ষ নেতাদের হস্তক্ষেপ কামনা করছি।

এব্যাপারে ইউপি চেয়ারম্যান শাহনেওয়াজ ডালিম তার বিরুদ্ধে উত্থাপিত অভিযোগ অস্বীকার করে জানান, আমার পিতা রাজাকার ছিলেন না। ষড়যন্ত্র করে আমার পিতাকে রাজাকার বানানোর চেষ্টা চালিয়েছে। ইতিমধ্যে তদন্ত হয়েছে। উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা জেলা প্রশাসকের নিকট যে রিপোর্ট জমা দিয়েছে তাতে আমার পিতা রাজাকার ছিলেন না উল্লেখ পূর্বক রিপোর্ট গিয়েছে। মুক্তিযোদ্ধা রুহুল কুদ্দুস আমার বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্র করে দুই দশ জন লোক নিয়ে গনঅনশন করছে। আমার ইউনিয়নে ২৪ হাজার ভোটারে মধ্যে আমার পক্ষে ২০ হাজার লোক আছে। রুহুল কুদ্দুস দলের সিদ্ধান্ত উপেক্ষা করে আমার বিরুদ্ধে মানববন্ধন, বিক্ষোভ মিছিল করছে।

উল্লেখ্য, ১ডিসেম্বর আশাশুনির খাজরা ইউপি চেয়ারম্যান শাহনেওয়াজ ডালিমের বিরুদ্ধে অনিয়ম, দুর্নীতি, খুন, গুম হত্যার প্রতিবাদে ও ফাঁসির দাবিতে সাতক্ষীরা জেলা প্রশাসকের কার্যালয়ের সামনে মানববন্ধন ও বিক্ষোভ মিছিল করে তার কুশপুত্তলিকা দাহ করে ইউনিয়ন মুক্তিযোদ্ধাবৃন্দ, খাজরা ইউনিয়নবাসী এবং স্থানীয় ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের নেতৃবৃন্দ। পরে দুপুরে সাতক্ষীরা প্রেসক্লাবে নৌকার মনোনয়ন না দেওয়ার দাবি জানিয়ে শত শত এলাকাবাসীকে সাথে নিয়ে সাংবাদিক সম্মেলন করেন বীরমুক্তিযোদ্ধা বীর মুক্তিযোদ্ধা রুহুল কুদ্দুস ও বীর মুক্তিযোদ্ধা শাহাবুদ্দিন সরদারসহ ইউনিয়ন আওয়ামী লীগ নেতৃবৃন্দ।

প্রিন্ট করুন প্রিন্ট করুন   ❑ পড়েছেন  ৯২৫৮  জন  

সর্বশেষ..