প্রিন্ট করুন প্রিন্ট করুন

সাপ্তাহিক দর বৃদ্ধির শীর্ষে সিএমসি কামাল

নিজস্ব প্রতিবেদক: বিদায়ী সপ্তাহে দেশের প্রধান পুঁজিবাজার ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জে (ডিএসই) দর বাড়ার শীর্ষে উঠে এসেছে সিএমসি কামাল টেক্সটাইলস মিলস। এ সময় কোম্পানির শেয়ারদর বেড়েছে ২৮ দশমিক ০৪ শতাংশ। আলোচ্য সপ্তাহে কোম্পানিটির প্রতিদিন গড়ে ১৭ কোটি ৯৩ লাখ ৫৪ হাজার টাকার শেয়ার লেনদেন হয়েছে। আর পুরো সপ্তাহে এ কোম্পানির ৮৯ কোটি ৬৭ লাখ ৭৪ হাজার টাকার শেয়ার লেনদেন হয়েছে।
কোনো কারণ ছাড়াই এক মাসের ব্যবধানে প্রতিষ্ঠানের প্রতিটি শেয়ারের দর বেড়েছে আট টাকা। যা চোখে পড়েছে সাধারণ বিনিয়োগকারীসহ সংশ্লিষ্ট সবার। বিষয়টি নজর এড়ায়নি ডিএসই কর্তৃপক্ষেরও।
প্রাপ্ত তথ্যানুযায়ী, ২১ নভেম্বর সিএমসি কামালের শেয়ারদর ছিল ১৪ টাকা ৮০ পয়সা। এর পর থেকেই প্রতিষ্ঠানটির শেয়ারদর বাড়তে থাকে। তিন কার্যদিবসের ব্যবধানে প্রতিটি শেয়ার বিক্রি হয় ১৭ টাকা ৩০ পয়সায়। পরের তিন কার্যদিবসে দর কিছুটা কমে চলে আসে ১৫ টাকা ৯০ পয়সায়। এর পর থেকে আবারও ঊর্ধ্বমুখী হতে থাকে দর, যা এখনও অব্যাহত রয়েছে। সর্বশেষ বৃহস্পতিবার কোম্পানিটির শেয়ারদর বেড়ে দাঁড়িয়েছে ২৪ টাকা ২০ পয়সায়। অর্থাৎ এক মাসের ব্যবধানে কোম্পানিটির শেয়ারদর বেড়েছে ৭ টাকা বা ৩৩ দশমিক ৩৩ শতাংশ। আর শেয়ারটির এ দর বাড়াকে অস্বাভাবিক বলে মনে করছেন ডিএসইর কর্তৃপক্ষ। বিগত ৫২ সপ্তাহে শেয়ারটির ১১ টাকা ৮০ পয়সা থেকে ২৪ টাকা ২০ পয়সায় বেচাকেনা হয়।
২০১২ সালে এ প্রতিষ্ঠানটি শেয়ারহোল্ডারদের ১৫ শতাংশ বোনাস শেয়ার দেন। পরের বছর লভ্যাংশের পরিমাণ কমে আসে। এবছর কোম্পানিটি লভ্যাংশ দেন ১২.৫০ শতাংশ। এর পরের বছরও কোম্পানিটি ১২ দশমিক ৫০ শতাংশ বোনাস শেয়ার দেন।
‘এ’ ক্যাটাগরির প্রতিষ্ঠান সিএমসি কামাল টেক্সটাইল মিলস ১৯৯৭ সালে পুঁজিবাজারে তালিকাভুক্ত হয়। কোম্পানিটির মোট শেয়ারের মধ্যে সাধারণ বিনিয়োগকারীদের কাছে রয়েছে ৫৯ দশমিক ২৪ শতাংশ শেয়ার। এছাড়া পরিচালকদের কাছে রয়েছে ৩১ দশমিক ৯৭ শতাংশ শেয়ার বাকি ৯ দশমিক ৪১ শতাংশ শেয়ার রয়েছে প্রাতিষ্ঠানিক বিনিয়োগকারীদের কাছে।
গত সপ্তাহে দর বাড়ার শীর্ষ ১০-এর তালিকায় থাকা অন্য কোম্পানিগুলোর মধ্যে রয়েছে যথাক্রমে ইস্টার্ন লুব্রিকেন্টসের ২৩ দশমিক ৪৭ শতাংশ, সেন্ট্রাল ফার্মাসিউটিক্যালসের ২১ দশমিক ৭৬ শতাংশ, এমারেল্ড অয়েলের ১৮ দশমিক ৪৪ শতাংশ, পূরবী জেনারেল ইন্স্যুরেন্সের ১৬ দশমিক ৯৯ শতাংশ, এ্যাপোলো ইস্পাতের ১৬ দশমিক ৩৮ শতাংশ, ফু-ওয়াং ফুডের ১৫ দশমিক ৭৯ শতাংশ, আমরা টেকনোলজিসের ১৫ দশমিক ০২ শতাংশ, প্রভাতি ইন্স্যুরেন্সের ১৪ দশমিক ৭৪ শতাংশ ও প্রাইম ফাইন্যান্স ফার্স্ট মিউচুয়াল ফান্ডের ১৪ দশমিক ১৩ শতাংশ দর বেড়েছে।