সাম্প্রদায়িক সহিংসতার ঘটনায় ফেসবুকেরও দায় রয়েছে: তথ্য ও সম্প্রচারমন্ত্রী

নিজস্ব প্রতিবেদক: দুর্গাপূজার মধ্যে কুমিল্লায় ‘কোরআন অবমাননার’ কথিত অভিযোগে মন্দিরে ভাঙচুরের পর দেশজুড়ে ছড়ানো সাম্প্রদায়িক সহিংসতার ঘটনায় ফেসবুক কর্তৃপক্ষেরও দায় রয়েছে বলে মন্তব্য করেছেন তথ্য ও সম্প্রচারমন্ত্রী হাছান মাহমুদ। তিনি বলেন, ‘ভুয়া পোস্টের’ কারণে সৃষ্ট সহিংসতার বিষয়ে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম ফেসবুক কর্তৃপক্ষকে সরকার নোটিস করবে।

গতকাল দুপুরে সচিবালয়ে সম্পাদক ফোরামের সঙ্গে বৈঠকে তিনি এসব কথা বলেন।

তথ্যমন্ত্রী বলেন, কুমিল্লার ঘটনা ‘সোশাল মিডিয়ায়’ প্রকাশ না পেলে তা সারা দেশে ছড়িয়ে ‘এই পরিস্থিতি’ তৈরি হতো না, রংপুরের পীরগঞ্জে হিন্দুদের বাড়িঘরে হামলার ঘটনার পেছনেও একই কারণ। সোশাল মিডিয়ার কারণে এ ঘটনা ঘটে, ফেসবুকের পোস্টের কারণে এ ঘটনা ঘটে। কারণ তাদের মাধ্যম ব্যবহার করে সমাজে অস্থিরতা তৈরির করার জন্য এ কাজগুলো করা হয়েছে। অবশ্যই ফেসবুক কর্তৃপক্ষকে আমরা নোটিস করব।

তিনি বলেন, ‘এ ঘটনার সঙ্গে যারাই যুক্ত ছিল সবাই দায়ী। যে কোরআন শরিফ রেখে এসেছে সে দায়ী, তাকে যারা প্ররোচনা দিয়ে করিয়েছে তারা দায়ী, যারা একটি পোস্টের পরিপ্রেক্ষিতে যাচাই-বাছাই না করে সমাজে হানাহানি তৈরি করল তারাও দায়ী।’

সচিবালয়ে সম্পাদক ফোরামের সঙ্গে বৈঠক শেষে সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে তথ্য ও সম্প্রচারমন্ত্রী বলেন, সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম নিয়ন্ত্রণ করার কোনো উদ্দেশ্য সরকারের নেই। কিন্তু সবকিছুই এমনভাবে পরিচালিত হওয়া প্রয়োজন, সেটি যাতে খারাপ কাজে ব্যবহৃত না হয় এবং সেখানে যাতে স্বচ্ছতা থাকে। এখন ফেসবুকে পরিচয় গোপন করে ‘ফেক আইডি’ থেকে পোস্ট দেয়া হয়, তাকে আর খুঁজে পাওয়া যায় না। এর প্রতিকার দরকার।

বিজ্ঞাপনের বিল পরিশোধে সরকারি দপ্তরগুলোকে আবার তাগাদাপত্র দেয়া হবে জানিয়ে সম্পাদক পরিষদের সদস্যদের মন্ত্রী বলেন, এ সপ্তাহেই আমরা বিভিন্ন মন্ত্রণালয় ও আইএমইডির সঙ্গে যোগাযোগ করব। ডিএফপির বিজ্ঞাপনের টাকা নিয়ে অর্থ মন্ত্রণালয়ের সঙ্গে যোগাযোগ করা হয়েছে। বিভিন্ন জেলায় ২১০টি পত্রিকা প্রকাশ হয় না। সেগুলো বন্ধ করতে ডিসিদের জানিয়ে দেয়া হয়েছে এবং ইতোমধ্যে এসব পত্রিকার কয়েকটি বন্ধ হয়ে গেছে বলেও জানান তিনি।

প্রিন্ট করুন প্রিন্ট করুন   ❑ পড়েছেন  ৯১  জন  

সর্বশেষ..