Print Date & Time : 29 November 2022 Tuesday 5:36 pm

সারা দেশে চা-বাগানে অনির্দিষ্টকালের ধর্মঘট চলছে

 প্রতিনিধি, শ্রীমঙ্গল (মৌলভীবাজার) : মজুরি বাড়ানোর দাবিতে সারা দেশের ২৩১টি চা-বাগানে বাংলাদেশ চা-শ্রমিক ইউনিয়নের ডাকে অনির্দিষ্টকালের জন্য ধর্মঘট পালন করছেন চা-শ্রমিকেরা। আজ শনিবার (১৩ আগস্ট) সকালে ধর্মঘটের প্রথম দিনে মৌলভীবাজারের শ্রীমঙ্গলের খাইছড়া চা-বাগান ও ভুরভুরিয়া চা-বাগানের শ্রমিকেরা ভাড়াউড়া চা-বাগানের এসে বিক্ষোভ করছেন। দৈনিক মজুরি ১২০ টাকা থেকে বাড়িয়ে ৩০০ টাকা করার দাবিত এ ঘর্মঘটের ডাক দেয়া হয়।

এর আগে গত মঙ্গলবার থেকে প্রতিদিন দুই ঘণ্টা করে কর্মবিরতি পালন করে আসছিলেন শ্রমিকেরা। তবে দাবি মেনে না নেয়ায় গতকাল শুক্রবার অনির্দিষ্টকালের জন্য ধর্মঘটের ডাক দেয় চা-শ্রমিক ইউনিয়ন।

 শনিবার সকালে শ্রীমঙ্গলের ভাড়াউড়া চা-বাগানে আন্দোলনরত শ্রমিকরা দাবি আদায়ের বিষয়ে বিভিন্ন স্লোগান দিতে থাকেন। সমাবেশে আসা নারী চা-শ্রমিক উষা রানী বলেন, আমাদের দুঃখ কেউ বোঝে না। আমরা চার দিন কর্মবিরতি করেছি। কিন্তু কেউ আশ্বাস দিল না। আমরা এত কষ্ট করে কাজ করি, কিন্তু আমাদের ন্যায্য মজুরি দেয়া হয় না। চাল, ডাল, তেল- সবকিছুর দাম বেড়েছে। ছেলেমেয়েদের পড়াশোনার খরচ আছে। অসুখ হলে চিকিৎসা করাতে হয়। এর মধ্যে প্রতিদিনই জিনিসের দাম বাড়ছে। কিন্তু আমাদের মজুরি বাড়ছে না।

আরেক নারী শ্রমিক শিলা  ভূঁইয়া বলেন, দুই বছর আগে যে জিনিস ১০০ টাকায় পাওয়া যেত, এখন সেটা ২০০ টাকা। আমাদের তো আলাদা কোনো রুজির ব্যবস্থা নেই। এটা তো বাগানমালিকেরা জানে। আমরা ছেলেমেয়েদের আশা পূরণ করতে পারি না। আমরা আন্দোলন করছি। দাবি আদায় না হলে রাস্তায় রক্ত দেব। যদি শ্রমিক ইউনিয়নও আন্দোলন বন্ধ করার কথা বলে, আমরা মানব না।

বাংলাদেশ চা-শ্রমিক ইউনিয়নের কেন্দ্রীয় কমিটির সাংগঠনিক সম্পাদক ও বালিশিরা ভ্যালির সভাপতি বিজয় হাজরা বলেন, পূর্বঘোষিত কর্মসূচি অনুযায়ী অনির্দিষ্টকালের জন্য ধর্মঘট চলছে। দেশের ২৩১টি চা-বাগানে এ ধর্মঘট পালিত হচ্ছে। ৩০০ টাকা মজুরি না হওয়া পর্যন্ত আন্দোলন চলবে। আন্দোলন কঠোর থেকে কঠোরতর হবে। দেশের বিভিন্ন বাগানে চা-শ্রমিকেরা একত্র হয়েছেন। বাগানে বাগানে সমাবেশ হবে। দুপুরে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার মাধ্যমে প্রধানমন্ত্রীর বরাবর স্মারকলিপি দেয়া হবে। এ ছাড়া শ্রীমঙ্গল শহরে বিক্ষোভ মিছিল বের হবে।

শ্রমিকদের আন্দোলনের বিষয়ে বাংলাদেশীয় চা-সংসদের সিলেট বিভাগের চেয়ারম্যান গোলাম মোহাম্মদ শিবলী বলেন, মালিকপক্ষের সঙ্গে শ্রমিকদের আলোচনাকালে এভাবে কাজ বন্ধ করে আন্দোলন করা বেআইনি। আমরা আশা করছি, তারা আন্দোলন বন্ধ করে কাজে যোগ দেবে। এখন চা-বাগানে ভরা মৌসুম। কাজ বন্ধ রাখলে সবারই ক্ষতি।