খবর

সিঙ্গাপুরের ব্যবসায়ীরা বিনিয়োগ করতে আগ্রহী

এফবিসিসিআই ও সিঙ্গাপুর বিজনেস ফেডারেশনের বৈঠক

নিজস্ব প্রতিবেদক: সিঙ্গাপুরের ব্যবসায়ীরা বাংলাদেশে বিভিন্ন খাতে বিনিয়োগে আগ্রহ প্রকাশ করেছে বলে জানিয়েছেন এফবিসিসিআই সভাপতি শেখ ফজলে ফাহিম। সিঙ্গাপুর বিজনেস ফেডারেশনের (এসবিএফ) নির্বাহী পরিচালক সু উই-চিয়েহ গতকাল রোববার এফবিসিসিআই নেতাদের সঙ্গে এক অনুষ্ঠানে এ আগ্রহের কথা প্রকাশ করেন।
এফবিসিসিআই ও এসবিএফের যৌথ উদ্যোগে রাজধানীর এক হোটেলে ‘সিঙ্গাপুর-বাংলাদেশ বিজনেস নেটওয়ার্কিং’ শীর্ষক আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়।
এসবিএফর ১১ সদস্য একটি বাণিজ্য প্রতিনিধিদল তিন দিনের সফরে ঢাকায় রয়েছেন। এ সফরে তারা বাংলাদেশের বিভিন্ন শিল্পপ্রতিষ্ঠান পরিদর্শন করবেন এবং বিনিয়োগের সিদ্ধান্ত নেবেন বলে জানা গেছে।
আলোচনা সভায় এফবিসিসিআই সভাপতি শেখ ফজলে ফাহিম বাংলাদেশের সাম্প্রতিক আর্থসামাজিক অগ্রগতি ও বিদেশি বিনিয়োগ আকর্ষণে সরকারের নেওয়া বিভিন্ন কর্মসূচি তুলে ধরেন। দক্ষিণ এশিয়ার দেশগুলোর মধ্যে বাংলাদেশেই সবচেয়ে উদার এবং সহজ বিনিয়োগ সুবিধাদি রয়েছে বলে তিনি উল্লেখ করেন।
এফবিসিসিআই সভাপতি বাংলাদেশে বিনিয়োগকারী সিঙ্গাপুরের কোম্পানিগুলোকে এদেশের অর্থনীতিতে অবদান রাখায় ধন্যবাদ জানান। তিনি সিঙ্গাপুরের বাণিজ্যিক কোম্পানিগুলোকে এফবিসিসিআইয়ের করপোরেট সদস্য হওয়ার আহ্বান জানান। সাম্প্রতিক বছরগুলোতে চীন, জাপান, নেদারল্যান্ড এবং সিঙ্গাপুর থেকেই বাংলাদেশে সবচেয়ে বেশি বিনিয়োগ এসেছে বলে এফবিসিসিআই সভাপতি উল্লেখ করেন। তিনি বলেন, বাংলাদেশে স্বল্প উৎপাদন ব্যয় এবং বিশ্বের বিভিন্ন দেশের বাজারে বাংলাদেশি পণ্যের সহজ প্রবেশাধিকার থাকায় সিঙ্গাপুরের ব্যবসায়ীরা এদেশে আরও বেশি পরিমাণে বিনিয়োগে এগিয়ে আসতে পারেন।
অনুষ্ঠানে সিঙ্গাপুরের শীর্ষস্থানীয় তথ্যপ্রযুক্তি খাত, পরিবেশ, আর্থিক সেবা খাতসহ গুরুত্বপূর্ণ বিভিন্ন বাণিজ্য খাতের প্রতিনিধিরা অংশ নেন। বাংলাদেশের উচ্চপদস্থ সরকারি কর্মকর্তাসহ শীর্ষস্থানীয় শিল্পপতি ও ব্যবসায়ী নেতারা অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন।
উল্লেখ্য, ২০১৮-১৯ অর্থবছরে বাংলাদেশ ১৪৯.৩৪ মিলিয়ন ডলারের পণ্য সিঙ্গাপুরে রফতানি করে এবং সিঙ্গাপুর থেকে ২২৮৬ মিলিয়ন ডলারের পণ্য আমদানি করে। সিঙ্গাপুরে বাংলাদেশের রফতানিযোগ্য পণ্যগুলো হচ্ছে নিটওয়্যার, ওভেন গার্মেন্ট, কৃষিপণ্য, প্রকৌশল পণ্য ও হোম টেক্সটাইল। আর সিঙ্গাপুর থেকে মূলত খনিজপণ্য, মেশিনারিজ সামগ্রী ও কেমিক্যাল পণ্য আমদানি করা হয়।

সর্বশেষ..