প্রিন্ট করুন প্রিন্ট করুন

সিঙ্গাপুরের ম্যানুফ্যাকচারিং খাতে প্রবৃদ্ধি বেড়েছে ১১.৯ শতাংশ

শেয়ার বিজ ডেস্ক: সিঙ্গাপুরের শিল্প খাতে ২০১৪ সালের পর গত নভেম্বরে সবচেয়ে বেশি প্রবৃদ্ধি হয়েছে। বিশেষ করে, ইলেকট্রনিকস ও ফার্মাসিউক্যালস খাতের শক্তিশালী অবস্থানে সার্বিক উৎপাদন ১১ দশমিক ৯ শতাংশ বেড়েছে। গতকাল শুক্রবার প্রকাশিত তথ্যে এটি জানিয়েছে সিঙ্গাপুর ইকোনমিক ডেভেলপমেন্ট বোর্ড (ইডিবি)। খবর রয়টার্স।

রয়টার্স জানায়, এটি সংবাদ সংস্থাটির পূর্বাভাসের চেয়ে ১ দশমিক ৬ শতাংশ বেশি। দেশটির বায়োমেডিক্যাল বহির্ভূত খাতে উৎপাদন বেড়েছে ৬ দশমিক ৪ শতাংশ। আগের মাসের তুলনা ও মৌসুমের সমন্বয়ের ভিত্তিতে নভেম্বরে শিল্প খাতে উৎপাদন ৬ দশমিক ১ শতাংশ বেড়েছে। এটি গত জানুয়ারির পর থেকে সর্বোচ্চ এবং মধ্যবর্তী পূর্বাভাসের চেয়ে দুই শতাংশ কম। বায়োমেডিক্যাল বহির্ভূত খাতে উৎপাদন আগের মাসের চেয়ে ৫ দশমিক ১ শতাংশ বেড়েছে। বায়োমেডিক্যাল খাতে গুচ্ছ উৎপাদন নভেম্বরে ৩৪ দশমিক ৮ শতাংশ বেড়েছে। এটি আগের বছরের একই মাসের প্রবৃদ্ধির সমান। ফার্মাসিউটিক্যালস খাতে প্রবৃদ্ধি বেড়েছে ৩৬ দশমিক ১ শতাংশ।

ফার্মাসিউটিক্যালস ইনগ্রেডিয়েন্ট ও বায়োলজিক্যাল পণ্যের কারণেই উৎপাদন বেড়েছে বলে জানায় ইডিবি। এদিকে মেডিক্যাল ইনস্ট্র–মেন্টের রফতানি বেড়ে যাওয়ায় মেডিক্যাল প্রযুক্তিতে উৎপাদন ৩০ দশমিক ৮ শতাংশ বেড়েছে বলে জানানো হয়।

ইডিবি আরও জানায়, ইলেকট্রনিকস ক্লাস্টারে উৎপাদন নভেম্বরে আগের বছরের একই মাসের চেয়ে ২৪ দশমিক দুই শতাংশ বেড়েছে। সংস্থাটির তথ্যমতে, আলোচ্য মাসে সেমিকন্ডাকটর উৎপাদন বেড়েছে সবচেয়ে বেশিÑ৪৯ দশমিক ৬ শতাংশ।

এছাড়া ইঞ্জিনিয়ারিং ক্লাস্টারে ৭ দশমিক ৬, মেশিনারি খাতে ১০ শতাংশ উৎপাদন বেড়েছে। কেমিক্যাল ক্লাস্টারে সাড়ে তিন ও পেট্রোলিয়ামনির্ভর খাতে উৎপাদন ২২ শতাংশ বেড়েছে। এটি আরও বৃদ্ধি পাওয়ার সম্ভাবনা থাকলেও গত বছর কয়েকটি কারখানা বন্ধ করে দেওয়ায় এটি অপেক্ষাকৃত কমেছে। জেনারেল ম্যানুফ্যাকচারিং খাতে নভেম্বরে আগের বছরের একই মাসের চেয়ে উৎপাদন দশমিক ৯ শতাংশ কমেছে।