বিশ্ব সংবাদ

সিরিয়ায় যুক্তরাষ্ট্রের হামলায় নিহত ১৭ জন

শেয়ার বিজ ডেস্ক: যুক্তরাষ্ট্রের সেনাবাহিনী সিরিয়ায় ইরান-সমর্থিত বাহিনীর ওপর বিমান হামলা চালিয়েছে বলে জানিয়েছে পেন্টাগন। এতে ইরানপন্থি অন্তত ১৭ সেনা সদস্যের মৃত্যু হয়েছে বলে যুদ্ধপরিস্থিতি পর্যবেক্ষণকারী সংস্থা সিরিয়ান অবজারভেটরি ফর হিউম্যান রাইটস জানিয়েছে। গত বৃহস্পতিবারের হামলায় ইরানসমর্থিত একাধিক গোষ্ঠীর অনেক স্থাপনাও ধ্বংস হয়েছে বলে দাবি করেছে পেন্টাগন।

ইরাকে যুক্তরাষ্ট্র ও এর মিত্র সেনাদের ওপর সাম্প্রতিক বেশকিছু হামলার প্রতিক্রিয়ায় প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন সিরিয়ায় এ বিমান হামলার অনুমোদন দেন। এরপর বৃহস্পতিবার এ হামলা চালায় যুক্তরাষ্ট্রের সেনারা। খবর: বিবিসি, আরব নিউজ।

চলতি মাসের প্রথম দিকে ইরাকে যুক্তরাষ্ট্রের লক্ষ্যবস্তুতে রকেট হামলায় এক বেসামরিক ঠিকাদার নিহত হন। ইরবিলের যুক্তরাষ্ট্রের নেতৃত্বাধীন জোটের ব্যবহƒত একটি ঘাঁটিসহ বিভিন্ন স্থাপনায় সেসব রকেটের আঘাতে যুক্তরাষ্ট্রের সেনাবাহিনীর এক সদস্য এবং আরও পাঁচ ঠিকাদার আহত হয়েছেন।

গতকাল শুক্রবার যুক্তরাজ্যভিত্তিক মানবাধিকার সংস্থা সিরিয়ান অবজারভেটরি ফর হিউম্যান রাইটসের পরিচালক রামি আব্দুল রহমান জানিয়েছেন, যুক্তরাষ্ট্রের হামলায় গোলাবারুদভর্তি তিনটি লরি ধ্বংস হয়ে গেছে। প্রাথমিকভাবে ধারণা করা হচ্ছে, এ ঘটনায় অন্তত ১৭ যোদ্ধা নিহত হয়েছেন। নিহতরা সবাই ইরাকের ইরানপন্থি প্যারামিলিটারি সংগঠন পপুলার মোবিলাইজেশন ফোর্সেসের সদস্য বলে দাবি করেছেন এ কর্মকর্তা।

এর আগে, বৃহস্পতিবার রাতে সিরিয়ায় বেশকিছু সামরিক স্থাপনায় বিমান হামলা চালায় যুক্তরাষ্ট্র। যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট জো বাইডেনের অনুমতি নিয়ে এ হামলা চালানো হয়েছে বলে জানিয়েছে যুক্তরাষ্ট্রের বাহিনী।

যুক্তরাষ্ট্রের দাবি, সিরিয়ার স্থাপনাগুলো ইরান-সমর্থিত সশস্ত্র গোষ্ঠীগুলো ব্যবহার করত। সম্প্রতি ইরাকে মার্কিনিদের লক্ষ করে রকেট হামলার জবাবে এই বিমান হামলা চালানো হয়েছে বলে দাবি করেছে পেন্টাগন।

যুক্তরাষ্ট্রের মুখপাত্র জন কিরবি এক বিবৃতিতে বলেন, প্রেসিডেন্ট বাইডেনের নির্দেশে রাতে পূর্ব সিরিয়ায় ইরান-সমর্থিত সশস্ত্র গোষ্ঠীর স্থাপনায় বিমান হামলা চালিয়েছে যুক্তরাষ্ট্রের সামরিক বাহিনী। তিনি বলেন, ইরাকে মার্কিন ও জোট কর্মকর্তাদের ওপর সাম্প্রতিক হামলা এবং ওই কর্মকর্তাদের বিরুদ্ধে ক্রমাগত হুমকির জবাবে এই হামলার অনুমোদন দেয়া হয়েছে।

যুক্তরাষ্ট্রের বাহিনী হামলা চালিয়ে কাতায়িব হিজবুল্লাহ (কেএইচ) ও কাতায়্যিব সাইয়্যিদ আল-শুহাদার (কেএসএস) মতো ইরান-সমর্থিত সশস্ত্র গোষ্ঠীগুলোর ব্যবহƒত বেশ কয়েকটি স্থাপনা ধ্বংস করেছে বলেও দাবি করেছেন পেন্টাগনের মুখপাত্র।

প্রিন্ট করুন প্রিন্ট করুন

সর্বশেষ..