দিনের খবর মত-বিশ্লেষণ

সিসার মাত্রা পরীক্ষার জন্য সক্ষমতা গড়ে তুলতে হবে

সিসাযুক্ত জ্বালানি তেল ও বেশিরভাগ সিসাযুক্ত রঙের ব্যবহার বন্ধ করার পর থেকে উচ্চ-আয়ের দেশগুলোয় রক্তে সিসার মাত্রা নাটকীয়ভাবে কমে এসেছে। তবে নিন্ম ও মধ্য-আয়ের দেশগুলোয় শিশুদের রক্তে উচ্চমাত্রায় সিসার উপস্থিতি বজায় রয়েছে এবং অনেক ক্ষেত্রেই তা বিপজ্জনক মাত্রায় বেশি, এমনকি বৈশ্বিকভাবে সিসাযুক্ত জ্বালানি তেলের ব্যবহার বন্ধের এক দশক পরও।

প্রতিবেদনে পাঁচটি দেশের কেস স্টাডি রয়েছে যেখানে সিসাদূষণ ও অন্যান্য বিষাক্ত ভারী ধাতব বর্জ্য শিশুদের ক্ষতিগ্রস্ত করেছে। এ পাঁচটি দেশের দূষণপূর্ণ স্থানগুলো হচ্ছে বাংলাদেশের কাঠগড়া, জর্জিয়ার তিবিলিসি, ঘানার অ্যাগবোগব্লোশি, ইন্দোনেশিয়ার পেসারিয়ান এবং মেক্সিকোর মোরেলস স্টেট। প্রতিবেদনে উল্লেখ করা হয়েছে, ক্ষতিগ্রস্ত দেশগুলোর সরকার নিন্ম লিখিত ক্ষেত্রগুলোয় সমন্বিত ও সম্মিলিত পদ্ধতির ব্যবহার করে সিসাদূষণ ও শিশুদের মধ্যে এর বিষক্রিয়াজনিত পরিস্থিতি মোকাবিলা করতে পারে এক. রক্তে সিসার মাত্রা পরীক্ষা জন্য সক্ষমতা গড়ে তোলাসহ পর্যবেক্ষণ এবং প্রতিবেদন তৈরির ব্যবস্থা; দুই. নির্দিষ্ট কিছু সিরামিকস, রং, খেলনা ও মসলার মতো সিসাযুক্ত উচ্চ ঝুঁকিপূর্ণ স্থান ও পণ্যের সংস্পর্শে শিশুদের আসা ঠেকানোসহ প্রতিরোধ ও নিয়ন্ত্রণমূলক পদক্ষেপ; তিন. স্বাস্থ্যব্যবস্থাগুলো যাতে শিশুদের মাঝে সিসার বিষক্রিয়া শনাক্ত, পর্যবেক্ষণ ও চিকিৎসার জন্য যথাযথভাবে প্রস্তুত থাকে, সেজন্য এগুলো শক্তিশালী করা ছাড়াও ব্যবস্থাপনা, চিকিৎসা ও প্রতিকারের ব্যবস্থা করা; চার. শিশুদের সিসার সংস্পর্শে আসার নেতিবাচক প্রভাবগুলো আরও ভালোভাবে সামাল দিতে তাদের জন্য বিস্তৃতি শিক্ষা ও মানসিক আচরণগত থেরাপি প্রদানের ব্যবস্থা করা; পাঁচ. সিসার সংস্পর্শে আসার বিপদ ও এর উৎসগুলো সম্পর্কে নিয়মিত গণশিক্ষামূলক প্রচার চালানো এবং বাবা-মা, স্কুল ও কমিউনিটি নেতৃবৃন্দ এবং স্বাস্থ্যকর্মীদের কাছে সরাসরি আবেদন জানানোসহ জনসচেতনতা ও আচরণ পরিবর্তন করা; ছয়. সিসা এসিড ব্যাটারি ও ই-বর্জ্য উৎপাদন এবং আবার ব্যবহারযোগ্য করার জন্য পরিবেশগত, স্বাস্থ্য ও সুরক্ষা মানদণ্ড গড়ে তোলা, বাস্তবায়ন ও প্রয়োগ করা এবং ধাতু গলানোর কার্যক্রমের জন্য পরিবেশগত এবং বাতাসের মানবিষয়ক নিয়মকানুন কার্যকর করাসহ আইন ও নীতিমালা করা; সাত. জনস্বাস্থ্য, পরিবেশগত ও স্থানীয় অর্থনীতির ওপর দূষণের ফল যাচাই করতে পরিমাপের বৈশ্বিক মানদণ্ড তৈরি করা; আট. রক্তে সিসার মাত্রাবিষয়ক গবেষণার ফলগুলোর একটি আন্তর্জাতিক রেজিস্ট্রি তৈরি করা; নয়. ব্যবহৃত সিসা এসিড ব্যাটারি পুনর্ব্যবহার এবং পরিবহন ঘিরে আন্তর্জাতিক মান ও নিয়মনীতি তৈরি করাসহ বৈশ্বিক ও আঞ্চলিক পদক্ষেপ গ্রহণ।

ইউনিসেফের তথ্য অবলম্বনে

প্রিন্ট করুন প্রিন্ট করুন

সর্বশেষ..