প্রচ্ছদ প্রথম পাতা বাজার বিশ্লেষণ

সূচকের আরও পতন ঠেকাল ব্যাংকসহ বড় কয়েকটি মূলধনি কোম্পানি

রুবাইয়াত রিক্তা: পুঁজিবাজারে আগের দিনের পতনের ধারাবাহিকতা অব্যাহত থাকা সত্ত্বেও গতকাল সূচকের পতন প্রায় ৩০ পয়েন্ট কম হয়েছে। এর কারণ আগের দিন ৬১টি কোম্পানির দর বাড়লেও তার অধিকাংশই ছিল বিমা ও মিউচুয়াল ফান্ডের। এগুলো ছোট মূলধনি হওয়ায় সূচকের বড় পতন ঠেকাতে কার্যকর ভূমিকা রাখতে পারেনি। অন্যদিকে গতকাল ব্যাংক খাতের বেশ কয়েকটি কোম্পানিসহ অন্যান্য খাতের বড় মূলধনি কয়েকটি কোম্পানির দরবৃদ্ধি সূচকের বড় পতন ঠেকিয়ে দিয়েছে। সূচকের বড় পতন রোধ করতে ভূমিকা রেখেছে ওষুধ খাতের রেনাটা, জ্বালানি খাতের সামিট পাওয়ার, খাদ্য খাতের অলিম্পিক ইন্ডাস্ট্রিজ ও ইসলামী ব্যাংকসহ আট ব্যাংকের দরবৃদ্ধি।
গতকালও ৭৭ শতাংশ কোম্পানির দরপতন হয়। দর বেড়েছে মাত্র ১৭ শতাংশ বা ৬০টি কোম্পানির। সবচেয়ে বেশি ১৬ শতাংশ বা সাড়ে ৬২ কোটি টাকা লেনদেন হয় বিমা খাতে। এ খাতে ১১টি কোম্পানির দর বেড়েছে। ফেডারেল ইন্স্যুরেন্সের সাড়ে ৯ কোটি টাকা লেনদেন হলেও ৮০ পয়সা দরপতন হয়। ন্যাশনাল লাইফ ইন্স্যুরেন্সের সাড়ে ছয় কোটি টাকা লেনদেনের পাশাপাশি দর বেড়েছে প্রায় তিন টাকা। পাঁচ শতাংশ ও পৌনে পাঁচ শতাংশ করে বেড়ে দরবৃদ্ধির শীর্ষ দশে উঠে আসে স্ট্যান্ডার্ড ও কন্টিনেন্টাল ইন্স্যুরেন্স। ওষুধ ও রসায়ন খাতে লেনদেন হয় ১১ শতাংশ। দর বেড়েছে পাঁচটি কোম্পানির। স্কয়ার ফার্মার সাড়ে ১২ কোটি টাকার বেশি লেনদেন হলেও দরপতন হয় সাড়ে পাঁচ টাকা। প্রকৌশল খাতে লেনদেন হয় ১০ শতাংশ। এ খাতে আটটি কোম্পানির দর বেড়েছে। বস্ত্র খাতে লেনদেন হয় ৯ শতাংশ। এ খাতে ১১ কোম্পানির দর বেড়েছে। ১০ শতাংশ বেড়ে আলহাজ টেক্সটাইল দরবৃদ্ধির শীর্ষে উঠে আসে। বছরজুড়ে লোকসানে থাকা কোম্পানিটির দর টানা পতনের পর গতকাল হঠাৎ বেড়েছে। জ্বালানি খাতে লেনদেন হয় আট শতাংশ। প্রায় পাঁচ শতাংশ বেড়ে এ খাতের ইন্ট্রাকো রিফুয়েলিং দরবৃদ্ধির শীর্ষ দশের মধ্যে উঠে আসে। ইউনাইটেড পাওয়ারের সাড়ে ১০ কোটি টাকা লেনদেন হলেও সাড়ে তিন টাকা দরপতন হয়। এছাড়া বিবিধি খাতের সিনোবাংলা ইন্ডাস্ট্রিজের প্রায় আট কোটি টাকা লেনদেন হয়, দর বেড়েছে ২০ পয়সা। সিরামিক খাতের মুন্নু সিরামিকের সোয়া সাত কোটি টাকা লেনদেন হয়, দর বেড়েছে আট টাকা ২০ পয়সা। কোম্পানিটি দরবৃদ্ধির শীর্ষ দশের মধ্যে অবস্থান করে। আর্থিক খাতে গতকাল ১০ কোম্পানির দর বেড়েছে। এ খাতের ইউনিয়ন ক্যাপিটালের দর প্রায় ১০ শতাংশ বেড়ে দরবৃদ্ধিতে পঞ্চম অবস্থানে উঠে আসে। গ্রামীণফোনের সাড়ে ছয় কোটি টাকা লেনদেন হলেও তিন টাকা ১০ পয়সা দরপতন হয়। বিএটিবিসির সাড়ে ছয় কোটি টাকা লেনদেন হয়, দরপতন হয় সাড়ে ৪৩ টাকা। প্রায় ৯ কোটি টাকা লেনদেন হলেও সী পার্ল রিসোর্টের দরপতন হয় তিন টাকা। মিউচুয়াল ফান্ড খাতে আটটি ইউনিটের দর বেড়েছে। দরবৃদ্ধির শীর্ষ দশে অবস্থান করে চারটি ফান্ড।

সর্বশেষ..